বৃহস্পতিবার | ১৩ জুন ২০২৪
Cambrian

৩৩৩ নম্বরে ফোন করে খাবার পেলো ১৬ হাজার পরিবার

spot_img
spot_img
spot_img

ক্র্যাবনিউজ ডেস্ক
নোয়াখালীর কবিরহাট পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর আলীপুর এলাকার বাসিন্দা নুরুল আমিন পেশায় একজন নির্মাণশ্রমিক। করোনা মহামারির কারণে কাজকর্ম অনেকটাই বন্ধ। আয়-রোজগার নেই বললেই চলে।
এমন অবস্থায় ঘরে চার মেয়ে ও স্ত্রী নিয়ে কষ্টে কাটছিল তার দিন। টেলিভিশনের পর্দায় দেখেন, করোনায় কর্মহীন হয়ে পড়া কেউ খাদ্যসহায়তা চেয়ে ৩৩৩ নম্বরে কল করলে খাদ্যসামগ্রী বাড়িতে পৌঁছে যাবে।
নুরুল আমিন অনেকটা কৌতূহলী হয়েই ওই নম্বরে কল দেন দিন সাতেক আগে। ফোনের অপর প্রান্ত থেকে তার নাম-ঠিকানাসহ সব তথ্য নেওয়া হয়। এরপর কয়েক দিন আর কেউ যোগাযোগ করেননি। এর মধ্যে ৮ আগস্ট কবিরহাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হাসিনা আক্তার তার বাড়িতে উপস্থিত হয়ে খাদ্যসহায়তা দেন।
নুরুল আমিন বলেন, খাদ্যসহায়তার প্যাকেটে ছিল ১০ কেজি চাল, ১ লিটার সয়াবিন তেল, ১ কেজি মসুর ডাল, ১ কেজি লবণ ও ১০০ গ্রাম করে হলুদ ও মরিচের গুঁড়া।
শুধু কবিরহাটের নুরুল আমিনই নন, ৩৩৩ নম্বরে কল করে খাদ্যসহায়তা পেয়েছে জেলার ১৬ হাজার ৩১০টি পরিবার।
জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খান বলেন, করোনা মহামারির কারণে অনেক নিম্নমধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত পরিবারের আয়-রোজগার কমে গেছে। তারা জনসমক্ষে লাইনে দাঁড়িয়ে খাদ্যসহায়তা নিতে পারছেন না। তারা ৩৩৩ নম্বরে কল করে খাদ্যসহায়তার জন্য আবেদন করেছেন। ৩৩৩ নম্বরের খাদ্যসহায়তা খাতে গত জুলাই মাসে ২ কোটি ১ লাখ ২৫৬ টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে। খাদ্যের প্যাকেট নিয়ে কখনো ইউএনও, কখনো সহকারী কমিশনারসহ (ভূমি) সরকারি কর্মকর্তা মানুষের বাড়ি বাড়ি গেছেন। যত দিন পর্যন্ত বরাদ্দ শেষ না হবে, তত দিন এসব পরিবারকে খাদ্যসহায়তা দেওয়া অব্যাহত থাকবে।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ