বুধবার | ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
Cambrian

হেলেনা জাহাঙ্গীর তিন দিনের রিমান্ডে

spot_img
spot_img
spot_img

নিজস্ব প্রতিবেদক

আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় দুটি মামলা করেছে র‌্যাব । আজ শুক্রবার রাত ৯টা ৯মিনিটে র‌্যাব সদর দপ্তর থেকে পাঠানো এক সংক্ষিপ্ত বার্তায় জানানো হয়েছে, `হেলেনা জাহাঙ্গীর এর বিরুদ্ধে র‍্যাব-১ রাজধানীর গুলশান থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫/২৯/৩১ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেছে। এছাড়া মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ৩৬(১) ও ২৪(খ); সহ ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ২৫ B এর ১(B); সহ ২০০১ সালের বাংলাদেশের টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইন (সংশোধনী/২০১০) এর ৩৪ (খ);সহ ২০১২ সালের বন্যপ্রাণী (সংরক্ষন ও নিরাপত্তা) আইন এর ৩৪(খ) ধারায় অপর একটি মামলা দায়ের করেছে।’

এদিকে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে তিন দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দিয়েছে আদালত। পুলিশের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালত শুক্রবার রাতে এই আদেশ দেন।
এই তথ্য নিশ্চিত করেন ঢাকার সিমএমএম আদালতের সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) হেমায়েত উদ্দিন খান।

এর আগে আসামি হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আদালতে হাজির করে গুলশান থানায় করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় পাঁচ দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার আবেদন করে পুলিশ। উভয় পক্ষের শুনানি নিয়ে আদালত তিন দিন রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে আজ শুক্রবার র‌্যাব সদর দপ্তরে আয়োজিত এক ব্রিফিংয়ে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক খন্দকার আল মঈন বলেন, হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, বিশেষ ক্ষমতা আইন, বন্য প্রাণী সংরক্ষণ আইন ও টেলিযোগাযোগ আইনে পৃথক পাঁচটি মামলা করা হবে।
আল মঈন জানান, যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়েই আইপি টিভি চ্যানেল পরিচালনা করছিলেন হেলেনা জাহাঙ্গীর। তিনি জেলায় জেলায় প্রতিনিধি নিয়োগের নামে চাঁদাবাজি করেছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে মিরপুরে অবস্থিত ওই টেলিভিশন কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে সেটি সিলগালা করে দেওয়া হয়েছে। আর টিভির সম্প্রচার-সরঞ্জাম জব্দ করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।
এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার রাত আটটার দিকে হেলেনা জাহাঙ্গীরের গুলশানের বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব। প্রায় সোয়া চার ঘণ্টার অভিযানে ওই বাসা থেকে বিদেশি মদ, বিদেশি মুদ্রা, হরিণ ও ক্যাঙারুর চামড়া, ক্যাসিনোর সরঞ্জাম ও ওয়াকিটকি সেট উদ্ধার করা হয়। রাত সোয়া ১২টার দিকে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আটক করে র‌্যাবের সদর দপ্তরে নেওয়া হয়।
এরপর দিবাগত রাত দুইটার দিকে র‌্যাবের একটি দল মিরপুরে হেলেনা জাহাঙ্গীরের মালিকানাধীন জয়যাত্রা টেলিভিশন ও জয়যাত্রা ফাউন্ডেশন ভবনে অভিযান চালায়। রাতভর ওই অভিযান চলে। আজ শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল এ এম আজাদ জানান, অভিযানের সময় টিভি চ্যানেলটির অনুমোদন থাকার কোনো কাগজপত্র তারা পাননি।
রিমান্ডে চায় পুলিশ
র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার ব্যবসায়ী হেলেনা জাহাঙ্গীরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডে নিতে চায় গুলশান থানা পুলিশ।
গুলশান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম জানান, র‌্যাবের অভিযোগের ভিত্তিতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা করা হয়েছে হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে।

“সেই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে তাকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিতে আমরা ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে পাঠিয়েছি।”
মহানগর হাকিম রাজেশ চৌধুরীর আদালতে ওই রিমান্ড শুনানি হবে জানিয়ে ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতের প্রধান কৌঁসুলি আবদুল্লাহ আবু বলেন, “ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় ৫ দিনের হেফাজত চাওয়া হয়েছে। অন্য কোনো মামলার কাগজ এখানো আসেনি। তাকেও আদালতে আনা হচ্ছে, রাস্তায় রয়েছে।”
বাকি মামলাগুলোর বিষয়ে গুলশান থানার পরিদর্শক আমিনুল বলেন, র‌্যাব একটি দরখাস্তে শুধু ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করার আবেদন করেছে। আরেকটি দরখাস্তে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, বিশেষ ক্ষমতা আইন, বন্য প্রাণী সংরক্ষণ আইন এবং টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইনের সংশ্লিষ্ট ধারার কথা লিখেছে।
“পরের আবেদনের বিষয়ে আমরা কীভাবে রেকর্ড করব- সে ব্যাপারে কথা বলছি। শিগগিরই এসব ধারায় মামলা হবে। তখন তাকে সেসব মামলাতেও গ্রেপ্তার দেখানো হবে। ‘

আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপকমিটির সদস্য ছিলেন হেলেনা জাহাঙ্গীর। গত ১৭ জানুয়ারি তাঁকে এই পদ দেওয়া হয়। গত রোববার তাঁকে সংগঠন থেকে অব্যাহতি দিয়ে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। বিজ্ঞপ্তিতে উপকমিটির সদস্যসচিব ও আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ সই করেন। এতে বলা হয়, হেলেনা জাহাঙ্গীর আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপকমিটির সদস্য ছিলেন। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারিত তাঁর সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড সংগঠনের নীতিবহির্ভূত হওয়ায় আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপকমিটির সদস্যপদ হতে তাঁকে অব্যাহতি দেওয়া হলো।

এর আগে ২০২০ সালের ডিসেম্বরের দিকে তিনি কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য হন। আবদুল মতিন খসরু মারা গেলে ওই আসনে মনোনয়নের জন্য দলীয় ফরম সংগ্রহ করেছিলেন। তবে মনোনয়ন পাননি।

সম্প্রতি ফেসবুকে নেতা বানানোর ঘোষণা দিয়ে ছবি পোস্ট করে আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দেন হেলেনা জাহাঙ্গীর।
বাংলাদেশ আওয়ামী চাকরিজীবী লীগ নামের একটি সংগঠনের ব্যানারে সংগঠনটির জেলা, উপজেলা ও বিদেশি শাখায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নিয়োগ দেওয়া হবে বলে ঘোষণা দেওয়া হয়, যা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। কথিত এই সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি হিসেবে হেলেনা জাহাঙ্গীর ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মাহবুব মনিরের নাম উল্লেখ করা হয়।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ