শনিবার | ২ মার্চ ২০২৪
Cambrian

হাইতির প্রেসিডেন্ট হত্যার পরিকল্পনা তিন মাস আগে, আরো ৮ খুনী পলাতক

spot_img
spot_img
spot_img

হাইতির প্রেসিডেন্ট জোভেনেল মইসির মূল ঘাতক দলের সদস্যরা বিদেশি। তাঁরা প্রায় তিন মাস আগে হাইতিতে গিয়ে এই হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনা করেন। গত মাসে ডোমিনিকান রিপাবলিক থেকে কয়েকজন গিয়ে তাঁদের সঙ্গে যোগ দেন। বিশ্বকে নাড়া দেওয়া এই হত্যাকাণ্ডের তদন্ত–সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা এমনটাই বলছেন।

হাইতির রাজধানী পোর্ট অব প্রিন্স- এ প্রেসিডেন্ট জোভেনেল মইসির (৫৩) ব্যক্তিগত বাসভবনেগত বুধবার দিনগত রাত ১২টার দিকে (স্থানীয় সময়) হামলা চালায় একদল বন্দুকধারী। যাদের মূল হোতা আমেরিকা ও হাইতির দুই নাগরিক রয়েছে। তাদের সঙ্গে ২৩-২৪ জন কলম্বিয়ান এই হত্যাকাণ্ডে অংশ নেন। এই হত্যা মিশনের জন্য তারা অস্ত্র, অর্থ, মোবাইল ফোন এবং ভাড়ার গাড়িসহ অন্যান্য সরঞ্জাম জোগাড় করেছিলেন।

তদন্তের দায়িত্বে থাকা হাইতির বিচারিক কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে দেশটির গণমাধ্যম জানিয়েছে, যে দুই আমেরিকান নাগরিককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, তাদের মধ্যে জেমস সোলাগেস তদন্তকারীদের বলেছেন, ইন্টারনেটে কাজের প্রস্তাব পেয়ে এই গোষ্ঠীর সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন তিনি। প্রথমে ভেবেছিলেন বিদেশিদের জন্য দোভাষীর কাজ করতে হবে তাকে। সোলাগেস দাবি করেছেন, তার বিশ্বাস ছিল হামলাকারীরা হাইতির প্রেসিডেন্টকে হত্যা নয়, তাকে গ্রেপ্তার করতে যাচ্ছেন।

বৃহস্পতিবার রাতে রক্তাক্ত অবস্থায় ঘাতকদের সাংবাদিকদের সামনে আনা হয়। তাদের একটি গাড়ি থেকে উদ্ধার করা অস্ত্রগুলোও সামনে আনা হয়। তাইওয়ান দূতাবাসের কর্মকর্তারা তাদের ওখান থেকে ১১ জন গ্রেপ্তার হওয়ার বিষয়ে নিশ্চিত করেছেন। ঘাতকেরা ওই দূতাবাস প্রাঙ্গণে ঢুকে পড়েছিলেন। গ্রেপ্তার অপর দুই ঘাতককে পোর্ট–অব–প্রিন্সের ঝোপঝাড় থেকে ধরিয়ে দেন স্থানীয় লোকজন।

এই হত্যাকাণ্ডে যে দুই হাইতিয়ান–আমেরিকান গ্রেপ্তার হয়েছেন, তাঁদের আগের ইতিহাস বিবেচনায় এ ধরনের মিশনে যোগ দেওয়া নিয়ে অনেকের মনে কৌতূহল তৈরি হয়েছে। তাঁদের একজন ৩৫ বছর বয়সী জেমস সোলাগেস মূলত হাইতির জাকমেল শহরের বাসিন্দা। তার একটি মেইনটেন্যান্স অ্যান্ড রিপায়ার কোম্পানি রয়েছে। লিংকডইন প্রোফাইল অনুযায়ী, তিনি একজন ‘ডিপ্লোম্যাটিক এজেন্ট’ ছিলেন। ছিলেন হাইতিতে কানাডিয়ান দূতাবাসের দেহরক্ষীদের প্রধান কমান্ডার।

কানাডার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, হাইতির প্রেসিডেন্টকে হত্যায় গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের একজন একসময় তাদের দূতাবাসে ‘দেহরক্ষী’ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। একটি বেসরকারি কনট্রাক্টরের মাধ্যমে তিনি এই দায়িত্বে এসেছিলেন।

লিংকডইনে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, সোলাগেস বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার একটি শহরে থাকেন। তিনি সেখানে প্রবীণদের সেবাদাতা একটি প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন। একটি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান চালানোর পাশাপাশি সোলাগেস হাইতিতে নিজের শহর জ্যাকমেলের একটি দাতব্য সংস্থার পরিচালনা পর্ষদের সভাপতির দায়িত্বে আছেন।
তাঁর তুলনায় গ্রেপ্তার দ্বিতীয় আমেরিকান–হাইতিয়ান সম্পর্কে কম জানা গেছে। ভিনসেন্ট জোসেফ নামের ওই ব্যক্তিও সোলাগেসের মতো ফ্লোরিডায় থাকেন।

হাইতির পুলিশ প্রধান লিওন চার্লস সাংবাদিকদের বলেন, ‘এই দলে ২৮ আততায়ী ছিলেন। তাদের ২৬ জন ছিলেন কলম্বিয়ান। তারাই প্রেসিডেন্টকে হত্যার অপারেশনটি চালিয়েছেন। আমরা ১৫ কলম্বিয়ান ওই হাইতিয়ান-আমেরিকানকে গ্রেপ্তার করেছি। ৩ কলম্বিয়ান নিহত হয়েছেন। পালিয়ে আছেন আরও ৮ জন।’

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ