শুক্রবার | ১ মার্চ ২০২৪
Cambrian

সৌদি যাচ্ছিলো ইয়াবার চালান

spot_img
spot_img
spot_img

নিজস্ব প্রতিবেদক
ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ৮ হাজার ৯৫০ পিস ইয়াবাসহ সাদ্দাম (৩২) নামে এক যাত্রী গ্রেফতার হয়েছে। ইয়াবার চালানটি এক প্রবাসীর কাছে পৌঁছাতে ‘সালাম এয়ারলাইন্স’র একটি ফ্লাইটে  সৌদি আরব যাচ্ছিলো সে। তবে ফ্লাইটে ওঠার আগেই বুধবার সকালে বিমানবন্দরে কর্তব্যরত আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) সদস্যদের হাতে ইয়াবাসহ গ্রেফতার হন ওই যাত্রী।
বুধবার বেলা ১১টার দিকে বিমানবন্দরের কেনপি-১ এ আযোজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান এপিবিএনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) জিয়াউল হক।
তিনি বলেন, গ্রেফতার সাদ্দাম সালাম এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে প্রথমে ওমানের মাস্কাট এবং পরে কানেক্টিং ফ্লাইটে সৌদি আরবের দাম্মাম শহরে যাওয়ার কথা ছিলো। সকাল ৯টা ২০মিনিটে তার ফ্লাইট ছিলো। তবে তিনি ভোর ৬টার দিকে বিমানবন্দরে আসেন।
সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) জিয়াউল হক বলেন, সন্দেহভাজন হিসেবে সাদ্দামকে প্রথমে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এসময় তিনি ইয়াবা থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেন। পরে তার দেহ ও ব্যাগ তল্লাশি করে বিশেষ কায়দায় লুকিয়ে রাখা অবস্থায় ৮ হাজার ৯৫০ পিস ইয়াবার বড়ি উদ্ধার করা হয়। তার ব্যাগ খুলে অনেক কাপড় দেখা যায়, এর নিচে সেলাই করা ব্যাগের একটি কাভার ছিলো। ওই কাভারের ভেতরে কার্বন পেপার ও স্কচটেপ মোড়ানো অবস্থায় এসব ইয়ারা পাওয়া যায়।
তিনি বলেন, সাদ্দামকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আমরা জানতে পারি, এই যদি তিনি সৌদি আরবে নিয়ে যেতে পারতেন, তবে প্রতি পিস এক থেকে দেড় হাজার টাকায় বিক্রি করতে পারতেন।
জিজ্ঞাসাবাদে আসামি আরও বলেন, আটক সাদ্দামের বাড়ি কুমিল্লার কোটবাড়ি এলাকায়। এসব ইয়াবা কুমিল্লার এক ব্যক্তির কাছ থেকে নিয়েছিলেন। সেখানে ওই চক্রটি তাকে সৌদি আরবে যাওয়ার টিকিট বা ভিসা করে দিয়েছে।
জানা গেছে, এই ইয়াবাগুলো বিক্রির পর তিনিও একটি লভ্যাংশ পেতেন। ইয়াবাগুলো নিয়ে সৌদি আরবের দাম্মামের এক প্রবাসীর কাছে হস্তান্তর করতেন বলে জানা গেছে।
সাদ্দামকে জিজ্ঞাসাবাদে আমরা ইয়াবা পাচার চক্রের সঙ্গে জড়িত বেশকিছু সদস্যের নাম পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান জিয়াউল হক।
ইয়াবা পাচার তার এটাই প্রথম নয় উল্লেখ করে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জিয়াউল হক বলেন, আমরা প্রাথমিক তদন্তে জানতে পেরেছি। ২০২০ সালে সাদ্দাম ইয়াবা পাচারের সময় পুলিশের হাতে আটক হয়েছিলেন। সেই মামলায় তিনি এখন জামিনে রয়েছেন। এরই মধ্যে ইয়াবার বড় এই চালানটা তিনি সৌদি আরবে পাচার করতে যাচ্ছিলেন। তিনি এ পথে নতুন নয়। বিমানবন্দরে অভিজ্ঞ এবং প্রশিক্ষিত স্ক্যানাররা আছেন। আমাদের চেকিংয়ে যদিও তিনি পার হতে পারতেন তবে, স্ক্যানিংয়ে গিয়ে ধরা পড়ে যেতো। তবে আমরা আগেই তাকে ধরে ফেলেছি।
সৌদি আরবে এসব ইয়াবার গ্রাহক করা বলে জানতে পেরেছেন? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সৌদি আরবে প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে যারা ইয়াবাসেবী রয়েছেন তারা এবং কিছু সৌদি আরবের নাগরিকরাও এখন ইয়াবা সেবন করছেন।
বিমানবন্দর দিয়ে মাদককারবারি চক্রগুলো প্রতিনিয়ত কী ইয়াবা পাচারের চেষ্টা করছে কিনা? জানতে চাইলে তিনি বলেন, মাদককারবারিরা একটি নতুন ট্রেইন শুরু করেছে, অতিরিক্ত লোভের আশায় ইন্টারন্যাশনাল ফ্লাইটগুলোর মাধ্যমে বিভিন্ন দেশে তারা ইয়াবা পাচারের চেষ্টা করছেন। তবে, আমাদের এখান দিয়ে যাওয়ার অবশ্যই বিমানবন্দরের স্ক্যানিংয়ের মাধ্যমে অবশ্যই ধরা পড়বে।
আটক সাদ্দামের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও জানান তিনি।
সাদ্দাম ছয় বছর ওমানে ছিলেন। পরে সেখানে পাসপোর্ট হারিয়ে ‘আউট পাসে’ দেশে আসেন। এবার তিন মাসের ভিসা নিয়ে সৌদি আরব যাচ্ছিলেন।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ