শুক্রবার | ১৯ জুলাই ২০২৪
Cambrian

সিলেট-৩ আসনের উপ-নির্বাচন স্থগিত চেয়ে সিইসিকে লিগ্যাল নোটিস

spot_img
spot_img
spot_img

নিজস্ব প্রতিবেদক 
সিলেট-৩ আসনের উপ-নির্বাচন স্থগিত চেয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদাকে আইনি নোটিস পাঠানো হয়েছে।
সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ আইনজীবীর পক্ষে ইমেইলে নোটিসটি পাঠিয়েছেন আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির।
গত ১১ মার্চ মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর মৃত্যুতে সিলেট-৩ আসন শূন্য ঘোষণা করা হয়। সংবিধানের ১২৩ অনুচ্ছেদের শর্ত ৪ অনুযায়ী পদ শূন্য হওয়ার দিন থেকে নব্বই দিনের মধ্যে শূন্য পদ পূরণ করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।
তবে দৈব-দূর্বিপাকের কারণে যদি এই নব্বই দিনের মধ্যে নির্বাচন করা না যায় তাহলে পরবর্তী নব্বই দিনের মধ্যে নির্বাচন করার কথা বলা আছে ওই শর্তে।
যে কারণে গত ২৯ এপ্রিল নির্বাচন কমিশন এক প্রজ্ঞাপনে ৮ জুন সিলেট-৩ আসনে উপ-নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করলেও করোনাভাইরাসের কারণে তা সম্ভব নয় বলে জানায়।
পরে গত ২ জুন নির্বাচন কমিশন তফসিল ঘোষণা করে ১৪ জুলাই ভোট গ্রহণের তারিখ রাখে। কিন্তু করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে সরকার ১ থেকে ৭ জুলাই পর্যন্ত সারাদেশে কঠোর লকডাউন ঘোষণা করে। পরবর্তীতে তা আরও এক দফা বাড়ানো হয়।
কোরবানির ঈদ সামনে রেখে কঠোর লকডাউন গত ১৪ জুলাই থেকে শিথিল করলেও পরিস্থিতি বিবেচনায় আটকে যায় ফলে সিলেট-৩ আসনের ভোট গ্রহণ।
এমন পরিস্থিতিতে গত ১৫ জুন নির্বাচন কমিশন ভোটের নতুন তারিখ ঘোষণা করে। সে ঘোষণা অনুযায়ী ২৮ জুলাই সিলেটের এ আসনে উপ-নির্বাচন হওয়ার কথা।
আইনজীবী শিশির মনির বলেন, “সাংবাধানিক বাধ্যবাধকতার কথা বলে এ নির্বাচনের যে তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে তা সঠিক নয়। সাংবাধানিক বাধ্যবাধকতা অনুযায়ী ২৮ জুলাইয়ের পর ৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আরও ৪২ দিন সময় আছে। যদি এই সময়ের মধ্যে করোনাভাইরাসের প্রকোপ না কমে তবে বাধ্য হয়েই নির্বাচন করতে হবে। যেহেতু ২৮ জুলাইয়ের পর হাতে আরও ৪২ দিন সময় আছে তাই সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কথা বলে সিইসি যে ব্যাখ্যা দিয়েছেন, তা সঠিক নয়।”
নোটিসে বলা হয়েছে, ২৮ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য উপ-নির্বাচন স্থগিত করা যাবে না, এই বক্তব্য আইনের সঠিক ব্যাখ্যা নয়। নির্বাচন কমিশনের উচিত চলমান করোনাভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধি বিবেচনায় নিয়ে লকডাউনের সময় নির্বাচন না করা এবং ৭ সেপ্টেম্বরের মধ্যে অন্য যেকোনো দিন ভোটগ্রহণের দিন নির্ধারণ করা।
“তাছাড়া ৩ লাখ ৫২ হাজার ভোটারের এই নির্বাচন অনুষ্ঠান সরকারের লকডাউন নীতিরও বিরোধী। সুতরাং ২৮ জুলাই নির্বাচন অনুষ্ঠানের কোনো সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা নেই। তাই করোনাভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধি বিবেচনায় নিয়ে ২৮ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য সিলেট-৩ আসনের ভোটগ্রহণ স্থগিত করার অনুরোধ জানাচ্ছি। অন্যথায় আমরা উচ্চ আদালতের শরণাপন্ন হতে বাধ্য হব,” বলা হয়েছে নোটিসে।
নোটিসদাতা পাঁচ আইনজীবী হলেন মো. মুজাহিদুল ইসলাম, আল রেজা মো. আমির, মো. জোবায়দুর রহমান, মো. জহিরুল ইসলাম এবং মুস্তাফিজুর রহমান।
তাদের বিষয়ে জানতে চাইলে আইনজীবী শিশির মনির বলেন, “তারা কেউই এ আসনের ভোটার বা কোনো এলাকার বাসিন্দা নন। সিইসি সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে এ উপ-নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করাতেই আইনি নোটিস পাঠানো হয়েছে।”
নোটিসের জবাব না পেলে অথবা জবাব গ্রহণযোগ্য মনে না হলে বা নোটিসের দাবি অনুযায়ী কোনো পদক্ষেপ না নিলে সিইসির এ সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে রিট আবেদন করা হবে। তখন রিট আবেদনকারী হিসেবে ওই আসনের ভোটারকে যুক্ত করা হবে বলে জানান আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ