শুক্রবার | ১ মার্চ ২০২৪
Cambrian

সিডনিতে লকডাউন এক মাস বৃদ্ধি, যুক্তরাষ্ট্রে মাস্ক বাধ্যতামূলক

spot_img
spot_img
spot_img

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
করোনা সংক্রমন আশঙ্কাজনক বৃদ্ধি পাওয়ায় অষ্ট্রেলিয়ার সিডনিতে লকডাউনের মেয়াদ আরও ৪ সপ্তাহ বাড়ানো হয়েছে।
আর যুক্তরাষ্ট্রে যারা করোনার টিকা নিয়েছেন- তাদেরকেও মাস্ক পড়ার নির্দেশনা দিয়েছে সে দেশের সরকার। নিউ ইয়র্ক টাইমস জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের যেসব অংশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি দেখা যাচ্ছে ওইসব এলাকায় এরইমধ্যে যারা পুরোপুরি কোভিড-১৯ টিকা নিয়েছেন, চার দেয়ালের ভেতরে তাদেরও মাস্ক পরতে হবে। মঙ্গলবার থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হয়েছে।

সিডনি পরিস্থিতি
শনাক্ত কোভিড রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকায় অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে বড় শহর সিডনির কর্তৃপক্ষ লকডাউনের মেয়াদ আরও ৪ সপ্তাহ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
তুলনামূলক বেশি সংক্রামক ডেল্টা ধরনের বিস্তার রোধে জুনের শেষদিকে থেকে শহরটির বাসিন্দাদের জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে না আসার বিধিনিষেধ জারি হয়েছিল।
চলতি মাসের মাঝামাঝি ওই বিধিনিষেধের মেয়াদ ৩০ জুলাই পর্যন্ত বাড়ানো হয়; এরপরও সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি অব্যাহত থাকায় কর্তৃপক্ষ লকডাউন আরও ৪ সপ্তাহ বাড়িয়ে ২৮ অগাস্ট পর্যন্ত নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।

সিডনিতে চলতি বছরের সবচেয়ে বাজে এ প্রাদুর্ভাবে এখন পর্যন্ত আড়াই হাজারের বেশি কোভিড রোগী শনাক্ত হয়েছে বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।
নিউ সাউথ ওয়েলস (এনএসডব্লিউ) বুধবার ১৭৭ জন নতুন রোগী শনাক্তের খবর দিয়েছে; গত বছরের মার্চের পর রাজ্যটিতে একদিনে আর এত কোভিড রোগী মেলেনি। সিডনি নিউ সাউথ ওয়েলসের রাজধানী।
এনএসডব্লিউর প্রিমিয়ার গ্লেডিস বেরিজিক্লিয়ান বলেছেন, শুক্রবার সিডনির লকডাউন তুলে নেওয়ার কথা থাকলেও এখনকার পরিস্থিতিতে তা করা যাচ্ছে না।
তিনি জরুরি প্রয়োজনে বের হওয়া শহরটির বাসিন্দাদের যাতায়াতে নতুন বিধিনিষেধ দিয়েছেন। এ বিধিনিষেধের ফলে বাসিন্দারা এখন জরুরি কেনাকাটার ক্ষেত্রেও ১০ কিলোমিটারের বেশি দূরে যেতে পারবেন না।
নিউ সাউথ ওয়েলসের অবস্থা উদ্বেগজনক হলেও শনাক্ত রোগী কমে যাওয়ায় অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়া ও সাউথ অস্ট্রেলিয়া রাজ্য বুধবার লকডাউন থেকে বেরিয়ে এসেছে।
বিশ্বজুড়ে গত দেড় বছর ধরে চলা মহামারীর বেশিরভাগ সময়েই অস্ট্রেলিয়া সীমান্ত বন্ধ করে দিয়ে ও দেশে আসা ব্যক্তিদের হোটেলে কোয়ারেন্টিনে পাঠিয়ে সংক্রমণ অনেকখানি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সমর্থ হয়েছিল।
বিভিন্ন রাজ্যের সরকার দ্রুত লকডাউন ও আক্রান্ত রোগীর সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের শনাক্ত করার মাধ্যমে সংক্রমণের বিস্তার রোধে সক্ষম হয়েছিল। মহামারী মোকাবেলায় অস্ট্রেলিয়ার আগ্রাসী পদক্ষেপের কারণে গতবছর দেশটির জনগণ ডজনখানেকের বেশি ছোটখাট লকডাউন দেখেছিল।
ডেল্টার প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার আগে এ বছর সিডনির ৫০ লাখ বাসিন্দা মোটামুটি স্বাভাবিক জীবনযাপনই উপভোগ করছিলেন; কিন্তু শনাক্ত রোগীর ঊর্ধ্বগতি ওই চিত্র বদলে দেয়।
বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, সংক্রমণের লাগাম টেনে ধরতে শহরটিতে সেপ্টেম্বর বা তার বেশি সময় পর্যন্ত বিধিনিষেধ দেওয়া লাগতে পারে।
কঠোর এ বিধিনিষেধ শহরটির অনেক বাসিন্দাকে ক্ষুব্ধও করেছে। কয়েকদিন আগে মেলবোর্ন ও অন্যান্য শহরের পাশাপাশি সিডনিতেও হাজারো মানুষ লকডাউন থেকে মুক্ত হওয়ার দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ দেখিয়েছে।
অস্ট্রেলিয়ার এখনকার এ পরিস্থিতির পেছনে টিকাদানে শ্লথগতিকেও অনেকে দায়ী করছেন।
দেশটিতে ফেব্রুয়ারিতে গণটিকাদান শুরু হলেও এখন পর্যন্ত প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে মাত্র ১৬ শতাংশ ভ্যাকসিন পেয়েছেন।
অ্যাস্ট্রাজেনেকার কোভিড টিকায় ‘রক্ত জমাট বাঁধা’ নিয়ে আতঙ্কের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সরকার পর্যাপ্ত ফাইজারের টিকা সংগ্রহ করতে না পারায় দ্রুতগতিতে টিকা দেওয়া যাচ্ছে না বলে ভাষ্য পর্যবেক্ষকদের।
অস্ট্রেলিয়ার নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি সিডনির বাসিন্দাদের অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে; এ টিকার পর্যাপ্ত মজুদ আছে বলে আশ্বস্তও করেছে তারা।

যুক্তরাষ্ট্র পরিস্থিতি
কোভিড-১৯ টিকাদান কার্যক্রমে সাফল্য ও সংক্রমণের হার কমায় যুক্তরাষ্ট্রে মাত্র দুই মাস আগেই মাস্ক পরার বাধ্যবাধকতা শিথিল করা হয়েছিল। অথচ এখন সেই সিদ্ধান্তই আংশিক পুনর্বহাল করেছে সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি)।
নিউ ইয়র্ক টাইমস জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের যেসব অংশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি দেখা যাচ্ছে ওইসব এলাকায় এরইমধ্যে যারা পুরোপুরি কোভিড-১৯ টিকা নিয়েছেন, চার দেয়ালের ভেতরে তাদেরও মাস্ক পরতে হবে। মঙ্গলবার থেকে সিডিসির এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হয়েছে।
এছাড়া টিকা দেওয়া থাকুক বা না থাকুক এবং এলাকাভিত্তিক সংক্রমণের হার যাই থাকুক না কেন, শিক্ষক, কর্মী, শিক্ষার্থী ও বিদ্যালয়ের দর্শনার্থীদেরও মাস্ক পরার পরামর্শ দিয়েছেন সিডিসির কর্মকর্তারা।
সেদেশে আসন্ন শরৎ সেমিস্টারে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে শ্রেণিকক্ষে পাঠদানে ফিরতে সব ধরনের সতর্কতা মেনে চলার আহ্বানও জানিয়েছেন সংস্থার কর্মকর্তারা।
ফ্লোরিডা ও মিজৌরি রাজ্যে সংক্রমণ বাড়ায় এবং পুরোপুরি টিকাপ্রাপ্তদের মধ্যেও করোনাভাইরাসের ডেল্টা ধরন শনাক্ত হওয়ায় সিদ্ধান্ত পরিবর্তনে বাধ্য হয়েছে সিডিসি।
মঙ্গলবার এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে সিডিসির পরিচালক রোচেল ওয়ালেনস্কি বলেন, “ডেল্টা ধরনটি প্রতিদিনই আমাদের কৌশলকে পরাজিত করার আগ্রহ দেখিয়ে চলেছে।”
করোনাভাইরাসের এই ধরনটি অন্য ধরনগুলোর চেয়ে ভিন্ন আচরণ করছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, “এই নতুন ইঙ্গিতগুলো উদ্বেগজনক এবং দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমাদের নির্দেশনাগুলো হালনাগাদ করতে হচ্ছে।”
মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে হোয়াইট হাউজের প্রেস সেক্রেটারি জেন পসাকি বলেন, ‘চলমান এই মহামারী নিয়ন্ত্রণে’ নির্দেশনা বদলানো গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন এই পদক্ষেপকে সমর্থন করে।
বাইডেন প্রশাসনের মহামারী বিষয়ক শীর্ষ উপদেষ্টা অ্যানথনি ফাউচি বলেন, “ভাইরাসটি পরিবর্তিত হচ্ছে; আমরা একটি গতিশীল পরিস্থিতির মোকাবেলা করছি। ভাইরাসের বিবর্তনের সঙ্গে তালমিলিয়ে নির্দেশনায় পরিবর্তন এনে সঠিক পদক্ষেপই নিয়েছে সিডিসি।
“আপনারা বলতে পারবেন না যে এটা শুধু আগুপিছু করা। বরং তারা বিজ্ঞানসম্মতভাবে পাওয়া নতুন তথ্যউপাত্ত নিয়েই কাজ করছে।”
ডেল্টা ধরনটির বিরুদ্ধে কোভিড-১৯ এর টিকা দারুনভাবে কার্যকর প্রমাণ হয়েছে, বিশেষ করে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া এবং মৃত্যু ঠেকানোর ক্ষেত্রে।
তবে সিডিসির এই নতুন নির্দেশনা টিকাপ্রাপ্ত এবং টিকা না নেওয়া- সবার জন্যই প্রযোজ্য হবে, যা মে মাসে সিডিসির ঘোষিত সিদ্ধান্তের বড় পরিবর্তন। ওই সময় সংস্থাটি বলেছিল টিকা নেওয়া ব্যক্তিদের মাস্ক পরার দরকার নেই।
সংক্রমণ বাড়ায় এরইমধ্যে লস অ্যাঞ্জেলেস এবং সেন্ট লুইস কাউন্টির মতো অনেক পৌর এলাকায় মাস্ক পরার নির্দেশনা পুনর্বহাল করা হয়েছে। তবে আরকানসাস রাজ্যে এখনও মাস্ক বাধ্যতামূলক করা হয়নি, সেখানে টিকাদানের হারও কম।
সিডিসির পরিচালক মঙ্গলবারও জনগণকে দ্রুত টিকা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি স্বীকার করেছেন, টিকাপ্রাপ্তদের কেউ কেউ ডেল্টা ধরনে সংক্রমিত হতে পারেন, তবে সেই হার খুবই কম। এর আগে সংস্থার কর্মকর্তারা জানিয়েছিলেন, টিকাপ্রাপ্তদের মধ্যে যারা সংক্রমিত হচ্ছেন তাদের মধ্যে মাত্র তিন শতাংশকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হচ্ছে।
কয়েক মাস ধরে নিম্নমুখী থাকার পর যুক্তরাষ্ট্রে আকস্মিকভাবেই সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি দেখা দিয়েছে। মঙ্গলবার পর্যন্ত দৈনিক গড় সংক্রমণ ৫৬ হাজার ছাড়িয়েছে, যা চার সপ্তাহ আগের সংখ্যার চারগুণ। প্রায় সব রাজ্যেই হাসপাতালে রোগী ভর্তির সংখ্যাও বাড়তে শুরু করেছে। এছাড়া মৃত্যুর সংখ্যাও গড়ে দৈনিক ২৭৫ জন করে বেড়েছে।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ