শুক্রবার | ১ মার্চ ২০২৪
Cambrian

শিশুকে নৃশংসভাবে হত্যা, যা বললো ঘাতক

spot_img
spot_img
spot_img

নিজস্ব প্রতিবেদক
খিলগাঁও নন্দীপাড়া নূর মসজিদ গলি এলাকা থেকে ৫ বছর বয়সী জিসানুল ইসলাম আকাইদ নামে এক শিশুর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শিশুকে ক্ষুর দিয়ে নির্মমভাবে জবাই করে হত্যা করেছে এক পাষন্ড রিকশা চালক। তাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে সে জানিয়েছে, তার স্ত্রী এবং রিকশা চালক নিজে জটিল রোগে আক্রান্ত। চিকিৎসায় প্রচুর টাকার প্রেয়াজন। সেই টাকা পাওয়ার জন্য শিশুটিকে অপহরণের পর হত্যা করে সে।
আজ মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর পুলিশের মতিঝিল জোনের উপ-কমিশনার মোঃ আঃ আহাদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞিপ্তিতে বলা হয়েছে, মামলার বাদী মোঃ আব্দুল মালেক (৩৩) খিলগাঁও থানায় হাজির হয়ে এজাহার দায়ের করেন যে, বাদীর ছেলে জিসানুল ইসলাম আকাইদ ৬ আগস্ট বিকাল তিনটার দিকে বাসার সামনে ৫/৬ জন বাচ্চার সাথে খেলছিলো। অন্য বাচ্চারা খেলা শেষে নিজ নিজ বাসায় ফিরলেও বাদীর বাচ্চা বাসায় ফিরেনি। অেক খুজেঁও ছেলেকে না পেয়ে খিলগাঁও থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করা হয়। যার নাম্বার-৩৯৬। এর প্রেক্ষিতে মতিঝিল বিভাগের ডিসির নের্তৃত্বে একাধিক টিম গঠন করে ঘটনাস্থলের আশে পাশের এলাকা থেকে ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করে পুলিশ। স্থানীয় এবং আশেপাশের লোকজনের মাধ্যমে বাদী জানতে পারে যে, তার ছেলে জিসানুলকে অজ্ঞাত এক রিকশাচালক রিকশায় করে নুর মসজিদের দিকে নিয়ে গেছে।
পুলিশ এ তথ্যের সূত্র ধরে জানতে পারে, ওই রিকশা চালক লোভ দেখিয়ে শিশুটিকে কৌশলে অপহরণ করে অজ্ঞাত নিয়ে গেছে। এরপর এ বিষয়ক সাধারণ ডায়েরিটিকে পুলিশ মামলা হিসেবে গ্রহণ করে। এসআই হাবিবুর রহমানকে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নিযুক্ত করা হয়।
পুলিশ ঘটনাস্থলের আশপাশের এলাকা হতে সংগৃহীত ভিডিও ফুটেজগুলো পর্যালোচনা করে অজ্ঞাত রিকশা চালককে শিশুটিকে রিকশাযোগে নিয়ে যাওয়ার দৃশ্য সনাক্ত করে। তথ্যপ্রযুক্তির পাশাপাশি খিলগাঁও থানা ও আশপাশের থানা এলাকায় রিকশার গ্যারেজসমূহে ডিসি মতিঝিল, এডিসি (খিলগাঁও জোন), খিলগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জ, পুলিশ পরিদশক (তদন্ত), মামলার তদন্তকারী অফিসার ও অন্যান্য অফিসারসহ অভিযান পরিচালনা করা হয়। সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে খিলগাঁও থানাধীন মধ্য নন্দীপাড়া নূর মসজিদ গলির ২ নং রোডের ১৫০৮ নম্বর বাড়ির পাঁচ তলা ভবনের দোতলায় একটি বাচ্চার মৃতদেহ পড়ে আছে মর্মে সংবাদ পেয়ে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে আলামত সংগ্রহ করে সিআইডির ক্রাইম সিন ইউনিট। অন্যদিকে শিশুর বাবা এসে লাশ সনাক্ত করেন। পুলিশ মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠায়। অন্যদিকে সোমবার থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে খিলগাঁও থানা এলাকা থেকে ঘটনায় জড়িত মোঃ সেলিমকে (৩২) গ্রেফতার করে। থানায় নিয়ে এসে জিজ্ঞাসাবাদ করলে আসামী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার সেলিম স্বীকার করে, সে পেশায় রিকশা চালক। তার স্ত্রী নুপুর আক্তার দীর্ঘদিন কিডনী রোগে আক্রান্ত। এ ছাড়াও তার পেটের ভিতরে টিউমারের অস্তিত্ব রয়েছে। পূর্নাঙ্গ চিকিৎসার জন্য অনেক টাকার প্রয়োজন। তাই সে ঘটনাস্থল বাড়ির মালিক বাবুলের স্ত্রীর কাছে গত ৩ আগস্ট মঙ্গলবার টাকা চাইলেও তারা টাকা দেননি। এরপর কোন অবৈধ জিনিস বাবুল সাহেবের বাড়ীতে রেখে পরবর্তীতে তা অপসারন করার জন্য বাবুল সাহেবের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা আদায়ের পরিকল্পনা করে সে। ওোই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে ৪ আগস্ট সে একটি ক্ষুর কিনে নিজের কাছে রেখে দেয়। ৬ আগস্ট বিকালে সে রিকশা নিয়ে মধ্য নন্দীপাড়া ২নং রোডে যায় এবং সেখানে ৫/৬ জন বাচ্চাকে একসাথে খেলতে দেখে জিসানুলকে তার রিকশায় কৌশলে খাবার লোভ দেখিয়ে নুর মসজিদের দিকে নিয়ে এবং পরে তাকে বাবুলের বাড়ীর দোতলায় নিয়ে রশি দিয়ে দুই হাত বেধেঁ ধারালো ক্ষুর দিয়ে তার গলা কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করে। পরবর্তীতে দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। তার পরিকল্পনা ছিল, শনিবার তার বাবুলের বাসা পরিস্কার করার কথা রয়েছে। বাড়ি পরিস্কার করার সময় লাশ দেখতে পেলে পুলিশি ঝামেলা এড়াতে লাশটি সরানোর চিন্তা করবে বাড়ি মালিক বাবুল। এক্ষেত্রে বাবুল তাকে দিয়ে লাশটি সরানোর উদ্যোগ নিলে সে লাশ সরানোর জন্য মোটা অংকের টাকা দাবী করবে। কিন্তু তিন দিন যাবত বাবুল তাকে বাড়ি পরিস্কার করার কাজের জন্য না ডাকায় এবং লাশের কোন প্রকার খোঁজ না পাওয়ায় তার এই পরিকল্পনা ব্যর্থ হয়। ৯ আগস্ট সকাল থেকেই বাবুলের বাড়ি থেকে ব্যাপক পঁচাদূর্গন্ধ বের হতে শুরু করলে মিলে ওই শিশুর লাশ। খুনির পরিহিত টিশার্ট ও লুঙ্গি, হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ক্ষুর জব্দ করেছে পুলিশ।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ