মঙ্গলবার | ২১ মে ২০২৪
Cambrian

‘শরণার্থী’ লুনার অলিম্পিয়ান হওয়ার গল্প….

spot_img
spot_img
spot_img

স্পোর্টস ডেস্ক :
একটু ভালো করে বাঁচার স্বপ্ন, আরেকটু স্বাধীনতা পাওয়ার আশা জুগিয়েছিল অনেকটা পথ পেরুনোর শক্তি। ইউরোপের রঙিন জীবনের হাতছানিতে আফ্রিকার উত্তরপূর্ব অঞ্চলের ইরিত্রিয়া থেকে পালিয়ে একসময় পৌঁছালেন সুইজারল্যান্ডে। কিন্তু গায়ে সেঁটে ছিল যে ‘শরণার্থী’ তকমা। মনটা তাই ছোট হয়ে থাকত সারাক্ষণ। কারো দিকে মুখ তুলে তাকানোর সাহসটুকু হতো না। সেই লুনা সলোমন এখন টোকিও অলিম্পিকের অংশ। অলিম্পিয়ান হতে পারার ঈর্ষণীয় গর্ব তার সঙ্গী!
আসাকা শুটিং রেঞ্জে মেয়েদের ১০ মিটার এয়ার রাইফেলের বাছাইয়ে গত শনিবার হন ৫০তম। বলার অপেক্ষা রাখে না, ছিটকে গেছেন বাছাই থেকে। কিন্তু শত বাধা পেরিয়ে যে জীবন গড়েছেন, তা থেকে তো আর ছিটকে যাননি লুনা। সব ভয়, শঙ্কা, পিছুটান কাটিয়ে মুখ তুলে তাকানোর সাহসটুকু অর্জন করেছেন ঠিকই।
লুনার এই গল্পের আরেক নায়ক অলিম্পিকের চ্যাম্পিয়ন শুটার নিক্কোলো কামপিরিয়ানি। ২০১৫ সালে সুইজারল্যান্ডে আসা লুনার মাঝের লুকায়িত প্রতিভাকে খুঁজে বের করেন তিনি। অলিম্পিক চ্যানেল অরিজিনাল সিরিজ ‘টেকিং রিফিউজি’-এর মাধ্যমে তাকে শুটিংয়ে আনেন অলিম্পিকে তিন সোনাজয়ী নিক্কোলো। অথচ এর কিছুদিন আগেও শুটিং বলে কোনো খেলা আছে, তা জানতেনই না লুনা!
২০১৬ সালে রিও দে জেনেইরো অলিম্পিকের পর শুটিংকে বিদায় বলে দেন নিক্কোলো। সুইজারল্যান্ডে থিতু হয়ে তিনি বেছে নেন নতুন পথ। লুজানে থাকা শরণার্থীদের মধ্য থেকে সম্ভাবনাময় শুটারদের খুঁজে বের করার উদ্যোগ নেন। আটঘাঁট বেঁধে নেমে পড়েন কাজে, যাতে করে টোকিওর আসরে খেলার ‘বাছাইয়ে ন্যূনতম স্কোর’ করতে পারেন শুটাররা। লুনা তাদেরই একজন।
শুটিংয়ে আসার পর থেকে লুনার ভেতরটা বদলে যেতে থাকে। মনের যে কুঠুরিতে শঙ্কা-ভয় বাসা বেঁধেছিল, একটু একটু করে আত্মবিশ্বাস জন্ম নিতে থাকে সেখানে। অভিষ্ঠ লক্ষে পৌঁছুতে সপ্তাহে চার দিন অনুশীলন করতে করতে নিজেকে অন্যভাবে আবিষ্কার করতে থাকেন লুনাও। অনুভব করতে থাকেন, বদলে যাচ্ছেন তিনি!
“শুটিংয়ে যোগ দেওয়ার পরই…আমি মানুষের চোখে চোখ রেখে কথা বলার আত্মবিশ্বাস পেলাম। আগে কখনও যা করতে পারতাম না আমি। মাথা নিচু রাখতেই অভ্যস্ত ছিলাম; কেননা, আমি ছিলাম শরণার্থী।”

“খেলাধুলার প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। এখন লুনা অন্য সবার মতোই। তার কোনো ঘাটতির জায়গা নেই…খেলাধুলায় এসে আমি আত্মবিশ্বাস পেয়েছি। হ্যাঁ, এই আত্মবিশ্বাস বিশেষ কিছু।”
বয়স ২৭ বছর। সন্তান আছে। শুটিং রেঞ্জে নামার আগে অলিম্পিক ডটকমের সঙ্গে আলাপচারিতায় লুনা পিছু ফিরে তাকালেন ঝঞ্ঝাবিক্ষুব্ধ দিনগুলোর দিকে। আশাবাদ জানালেন, ভবিষ্যতে প্রিয় ইরিত্রিয়ার আঙিনায় ফেরারও।

“জীবনে কখনও কখনও আপনি পথ বেছে নিতে পারবেন, কখনও পারবেন না। (আমি পেরেছিলাম) যদিও আমরা চেয়েছিলাম জন্মভূমিতে বাবা-মায়ের সঙ্গে থাকতে, কিন্তু পরিস্থিতি নিরাপদ ছিল না। তাই দেশ ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। আমি ছিলাম ভীষণ হতাশ এবং দুঃখী মেয়ে।”
“এই পথচলা সহজ ছিল না। অন্যান্য দেশে জন্ম নেওয়া মানুষের পক্ষেও খেলাধুলার মাধ্যমে উন্নতি এবং সাফল্য পাওয়া সম্ভব। নিজের দেশ ইরিত্রিয়াকে ছেড়েছিলাম, সেখানে জীবনযাত্রায় যথেষ্ট স্বাধীনতা না থাকার কারণে। আমি আমার দেশকে ভালোবাসি, মিস করি এবং আশা করি, একদিন নিজের দেশে ফিরব। তবে, এই মুহূর্তে আমি সুইজারল্যান্ডের লুজানের অলিম্পিক সিটিতে আছি।”
লুনার এই বদলে যাওয়া দেখে একটুও বিস্মিত নন কামপিরিয়ানি। বরং যে স্বপ্ন নিয়ে এই যাত্রা শুরু করেছিলেন তিনি, তা সত্যি হতে দেখে গর্বিত এই ইতালিয়ান।
“লুনা ক্রমেই আরও উন্নতি করছে, এটা দেখে বিস্মিত নই আমি। খুঁজে পাওয়া জীবনের ভারসাম্য সে শুটিংয়েও বয়ে নিয়েছে।”
সত্যিই পেরেছেন লুনা। যে চোখ কারো দিকে মুখ তুলে চাইতে পারত না, সেই চোখ এখন ২০২৪ সালের প্যারিস অলিম্পিকসের দিকে তাকিয়ে!
“২০২৪ সালের প্যারিস অলিম্পিক পর্যন্ত খেলাধুলার সঙ্গে থাকব। ওই অলিম্পিক গেমসে অংশ নিতে চাই আমি।”

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ