শুক্রবার | ১৯ জুলাই ২০২৪
Cambrian

যে কারণে অলিম্পিক পদক কামড়ে ধরা হয়

spot_img
spot_img
spot_img

স্পোর্টস ডেস্ক
একটা ব্যাপার নিশ্চয়ই সবাই খেয়াল করেছেন। অলিম্পিক বা এমন কোনো ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় পোডিয়ামে দাঁড়িয়ে বিজয়ী ক্রীড়াবিদেরা নিজেদের পদক কামড়ে ধরেন। ব্যাপারটা কৌতূহলোদ্দীপক, সন্দেহ নেই। কিন্তু কেন? অলিম্পিকের পদক নিশ্চয়ই খাওয়ার কোনো বস্তু নয়!
টোকিও অলিম্পিকেও এটি খুব সাধারণ দৃশ্য। প্রায় প্রতিটি ইভেন্টেই বিজয়ী ক্রীড়াবিদদের এই কাজটা পরিণত হয়েছে ‘আবশ্যিক’ বিষয়ে। ব্যাপারটি লক্ষ করেই কিনা, টোকিও অলিম্পিকের অফিশিয়াল টুইটার পেজে একটা ‘সাবধান বাণী’ পোস্ট করা হয়েছে—‘আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে এটা নিশ্চিত করতে চাই যে অলিম্পিকের পদক কোনো খাওয়ার বস্তু নয়।’
ব্যাপারটি রসিকতা করে করা হয়েছে, এতে কোনো সন্দেহ নেই। অলিম্পিকের অফিশিয়াল টুইটার পেজ ক্রীড়াবিদদের স্বাস্থ্যবিষয়ক শঙ্কা থেকেই আরও লিখেছে, ‘এবারের অলিম্পিকের পদকগুলো ইলেকট্রনিকস পণ্য রিসাইকেল করে তৈরি করা হয়েছে। এই ইলেকট্রনিকস পণ্যগুলো জাপানের সাধারণ মানুষ দান করেছেন। সুতরাং এটা কামড় দেওয়া উচিত নয়। তবে আমরা জানি, এরপরেও অনেকেই কাজটা করবেন!’
কিন্তু ক্রীড়াবিদেরা কেন এটি করেন, সেটি কি কখনো ভেবে দেখা হয়েছে? অলিম্পিক ইতিহাসবিদদের সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল কমিটি অব অলিম্পিক হিস্টোরিয়ানসের নির্বাহী সদস্য ডেভিড ওয়ালিচেনস্কি সিএনএনকে বলেছেন, ‘এটা বিশেষ কোনো বিষয় নয়। খুব সম্ভবত ক্রীড়া ফটোসাংবাদিকদের অনুরোধেই এটা শুরু হয়েছিল। তারা এটিকে দারুণ একটা ছবির বিষয় হিসেবে দেখে থাকেন। অলিম্পিকে ফটোসাংবাদিকেরা ক্রীড়াবিদদের তাই এভাবে পোজ দিতে অনুরোধ করেন। আমি মনে করি না ক্রীড়াবিদেরা এমনটা নিজে থেকে করেন।’
কেবল অলিম্পিকে নয়, শিরোপা কামড়ে ধরার ব্যাপারটি অন্য খেলাতেও দেখা যায়। টেনিস তারকা রাফায়েল নাদাল নিজের গ্র্যান্ড স্লাম ট্রফির হাতল কামড়ে ধরে দেখিয়েছেন। দৃশ্যটি বিখ্যাত হয়েছে। নাদাল ট্রফি বেশ কয়েকবারই কামড়ে ধরে নিজের ভালোবাসার প্রদর্শন ঘটিয়েছেন।
আসলে ব্যাপারটি অন্য জায়গায়। অলিম্পিকের পদকে কামড় দেওয়ার চলটি এসেছে প্রাচীন সময় থেকে। একটা সময় ছিল যখন সোনার মুদ্রা আসল নাকি নকল, সেটি পরীক্ষা করতে লোকজন সেটিতে কামড় দিয়ে দেখত। সোনা সব সময়ই মানুষের দাঁতের চেয়ে নরম। আসল সোনায় কামড় বসালে সেটিতে একটু হলেও দাগ পড়তে বাধ্য। কিন্তু সেটি যদি নকল হয়, তাহলে কামড় দেওয়ার পর দাঁতে ব্যথা করবে—মূলত এমন রীতি থেকেই অলিম্পিকে পদকে কামড় দেওয়ার ব্যাপারটি এসেছে। এটি অনেকটা এমন যে খেলা জিতে পাওয়া পদকটি আসল না নকল, সেটি কামড় দিয়ে পরখ করে দেখেন ক্রীড়াবিদরা।
অলিম্পিকের সোনার পদকগুলোতে মূলত ১.৩৪ শতাংশ খাঁটি সোনা থাকে। বাকিটা ইমিটেশন। এর মধ্যে রিসাইকেল করা উপাদানও যুক্ত হয়। ২০১৬ সালে রিও অলিম্পিকে রিসাইকেলকৃত উপাদান যুক্ত করা হয়েছিল পদক তৈরির সময়। ফোর্বস সাময়িকীর লেখক অ্যান্থনি ডি মার্কো হিসাব করে দেখিয়েছিলেন। সোনা, রিসাইকেলকৃত উপাদান মিলিয়ে অলিম্পিকে একটা ‘সোনা’র পদকের মূল্যমান ৫৬৪ মার্কিন ডলারের বেশি নয়।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ