শনিবার | ২ মার্চ ২০২৪
Cambrian

যেভাবে প্রতারক হয়ে উঠলেন এক নারী চিকিৎসক

spot_img
spot_img
spot_img

নিজস্ব প্রতিবেদক
রাজধানীর মিরপুর থেকে আন্তর্জাতিক এবং দেশি ও বিদেশী সংস্থার প্রতিনিধি পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে এক নারী চিকিৎসককে সহযোগীসহ গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। জিজ্ঞাসাবাদে উঠে এসেছে চাকরি হারিয়ে এই নারী চিকিৎসকের প্রতারক হয়ে যাওয়ার তথ্য।
সরকারের আইন প্রয়োগকারী এই সংস্থাটি বলছে, গ্রেফতার ইশরাত রফিক ঈশিতা নিজেকে শুধু বিজ্ঞানীই নয়, বিশিষ্ট আলোচক, ডিপ্লোম্যাট, বিগ্রেডিয়ার জেনারেল, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক পরিচয় দিয়ে আসছিলো। আজ রবিবার (১ আগস্ট) এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানায় র‌্যাব।

র‌্যাবের সংবাদ সম্মেলন । ছবি : র‌্যাব

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, সম্প্রতি র‌্যাবের সাইবার মনিটরিং টিমের অনুসন্ধানে গ্রেফতারকৃতের প্রতারণার তথ্য উঠে আসে। র‌্যাব জানতে পারে , একশ্রেণীর অসাধু ব্যক্তি বা চক্র ডিজিটাল প্লাটফর্ম ব্যবহার করে উদ্দেশ্য প্রণোদিত প্রচার-প্রচারণার মাধ্যমে নিজেকে খ্যাতিমান হিসেবে অধিস্থিত করে নানাবিধি অবৈধ অপরাধ কার্যক্রমের সাথে যুক্ত রয়েছে। সূদুর প্রসারী পরিকল্পনার মাধ্যমে অপরাধীরা নিজস্ব এজেন্ডা বাস্তবায়নে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে অপব্যবহার করছে। র‌্যাব আরও জানতে পারে, বিভিন্ন মাধ্যম ব্যবহার করে নিজের বা নিজেদের গগনচুম্বী ভূয়া সাফল্য ও আন্তর্জাতিক মানবাধিকার ও নিরাপত্তা বিষয়ক বিভিন্ন সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ততার মিথ্যাচার ও বিভ্রান্তিমূলক তথ্য প্রচারে লিপ্ত রয়েছেন। অনুসন্ধানে উদ্ঘাটিত হয় এ জাতীয় মিথ্যাচারের মাধ্যমে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে প্রতারকরা।
এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখা ও র‌্যাব-৪ এর অভিযানে আজ রবিবার (১ আগস্ট) সকাল সাড়ে ৯টায় রাজধানীর শাহ আলী থানাধীন মিরপুর-১ এলাকায় অভিযান চালিয়ে ইশরাত রফিক ঈশিতা ও তার সহযোগী মোঃ শহিদুল ইসলাম ওরফে দিদারকে গ্রেফতার করে।
তাদের কাছ থেকে প্রতারণায় ব্যবহৃত ভুয়া আইডি কার্ড, ভিজিটিং কার্ড, সীলমোহর, সার্টিফিকেট, প্রত্যয়নপত্র, পাসপোর্ট, ল্যাপটপ, ৩০০পিস ইয়াবা, ৫ বোতল বিদেশী মদ এবং মোবাইল উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা প্রতারণায় সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে তথ্য দিয়েছে।

 

গ্রেফতার ইশরাত রফিক ঈশিতা

কে এই ঈশিতা?
গ্রেফতারকৃত ইশরাত রফিক ঈশিতা পেশায় একজন চিকিৎসক। যিনি বিভিন্ন মাধ্যমে একজন আলোচক, চিকিৎসা বিজ্ঞানী, গবেষক, পিএইচডি সম্পন্ন, মানবাধিকার কর্মী, সংগঠক, বিগ্রেডিয়ার জেনারেল পদ মর্যাদার এবং আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থার সদস্যসহ গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিত রয়েছেন বলে ভূয়া পরিচয় প্রদান করে থাকেন। জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়,বর্ণিত ভূয়া পরিচয়ের বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জনে তিনি ভূয়া নথিপত্র তৈরী ও প্রচার প্রচারণা করে থাকেন। তিনি ময়মনসিংহে অবস্থিত একটি বেসরকারী মেডিকেল কলেজ হতে ২০১৩ সালে (সেশন ২০০৫-২০০৬) এমবিবিএস সম্পন্ন করেন। অতঃপর জুন ২০১৪ সালের প্রথম দিকে মিরপুরের একটি বেসরকারী হাসপাতালে চিকিৎসক হিসেবে যোগদান করেন। অতঃপর ২০১৪ সালে তিনি একটি সরকারী সংস্থায় চুক্তি ভিত্তিক চিকিৎসক হিসেবে নিয়োগ পান। সেখানে ৪ মাস চাকুরী করার পর শৃঙ্খলাজনিত কারণে চাকুরীচ্যুত হন।
গ্রেফতারকৃত ইশরাত রফিক ঈশিতা চিকিৎসা শাস্ত্রের বিভিন্ন বিষয়ে বিশেষজ্ঞ; চিকিৎসা বিজ্ঞানী ও গবেষক হিসেবে পরিচয় দিয়ে থাকেন। তার ভূয়া বিশেষজ্ঞ ডিগ্রীগুলো যথাক্রমে-এমপিএইচ, এমডি, ডিও ইত্যাদি। এছাড়া ভুয়া ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ হিসেবেও বিভিন্ন মতবাদ প্রচার করে থাকেন। গ্রেফতারকৃত বিভিন্ন সাইটে চিকিৎসা শাস্ত্রে গবেষণাধর্মী প্রবন্ধ, আর্টিকেল বা থিসিস পেপার প্রকাশনা করেছেন। তিনি মূলত অনলাইনে প্রাপ্ত বিভিন্ন গবেষণাধর্মী প্রকাশনা এডিট করে বর্ণিত গবেষণাধর্মী প্রকাশনা প্রস্তুত করেছেন বলে জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন।
গ্রেফতারকৃত ইশরাত রফিক ঈশিতা জানান তিনি চিকিৎসা বিজ্ঞানে বিদেশে প্রাপ্ত ভূয়া সাফল্য স্বীকৃতের প্রচারণা করতেন। ২০২০ সালে ভারতের উত্তর প্রদেশে হোটেল পার্ক অ্যাসেন্টে অনুষ্ঠিত জিআইএসআর ফাউন্ডেশনের প্রদত্ত ইন্টারন্যাশনাল ইন্সপিরেশনাল ওমেন অ্যাওয়ার্ড (আইআইডব্লিউ ২০২০) পেয়েছেন। যা ৩৫ বছর বয়সী চিকিৎসা বিজ্ঞানী ও গবেষকদের মধ্যে “বছরের সেরা নারী বিজ্ঞানী” হিসেবে পুরস্কার। এ ছাড়া সংযুক্ত আরব আমিরাতে ‘রিসার্চ অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’, ভারতের ‘টেস্ট জেম অ্যাওয়ার্ড ২০২০’; থাইল্যান্ডে আন্তর্জাতিক শিক্ষা সম্মেলনে অংশ নিয়ে ‘আউটষ্ট্যান্ডিং সায়েন্টিষ্ট এন্ড রিসার্চার অ্যাওয়ার্ড’ইত্যাদি। তিনি জানান যে, তিনি প্রতারণার মাধ্যমে ভূয়া নথি উপস্থাপন করে২০১৮ সালে জার্মানীতে ‘লিন্ডা ও নোবেল লরিয়েট মিট-মেডিসিনে’ অংশগ্রহণ করেন। পরবর্তীতে তিনি প্রচারণা করেন যে, তিনি প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে বর্ণিত অনুষ্ঠানে যোগদান করেন। এছাড়া তিনি অ্যাম্বাসেডর হিসেবে বিভিন্ন সংগঠন যথাক্রমে আমেরিকান সেক্সুয়াল হেলথ অ্যাসোসিয়েশন, ন্যাশনাল সার্ভিকাল ক্যান্সার কোয়ালিশনএবং গ্লোবাল গুডউইল ইত্যাদি হিসেবে বাংলাদেশে কাজ করছেন। তিনি অ্যাওয়ার্ড বিষয়ক অনুষ্ঠানে উপস্থিতির এডিটিং করা ভূয়া ছবি ও সনদ তৈরী করে গণমাধ্যমে প্রেরণ ও ভার্চুয়াল জগতে প্রচারণা করতেন।
গ্রেফতারকৃত ইশরাত রফিক ঈশিতা করোনা মহামারীকে পুঁজি করে ভার্চুয়াল জগতে প্রতারণায় সক্রিয় ছিলেন। এ সংক্রান্ত বিষয়ে আলোচক ও প্রশিক্ষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হন। তিনি অনলাইনে করোনা প্রশিক্ষণ কোর্সের আয়োজন ও সার্টিফিকেট প্রদান করে প্রচার-প্রচারণা করেছেন। সে বিভিন্ন বিদেশীদের ভূয়া সার্টিফিকেট প্রচারণা করে অন্যান্যদের অর্থের বিনিময়ে সার্টিফিকেট গ্রহণে আকৃষ্ট করতেন।
গ্রেফতারকৃত ইশরাত রফিক ঈশিতা ʺইয়াং ওয়ার্ল্ড লিডারস ফর হিউম্যানিটিʺ নামক একটি অনিবন্ধনকৃত ও অননুমোদিত সংগঠন পরিচালনার সাথে যুক্ত। সংস্থাটির সদর দপ্তর নিউইয়র্কে অবস্থিত বলে প্রচারণা করা হয়েছে। ঈশিতা ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে দেশ ও আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে প্রতারণা নেটওয়ার্ক তৈরী করা হয়েছে। ইতোমধ্যে নেপাল, পাকিস্তান, আফগানিস্তান, ভারত, বুরুন্ডি, আমেরিকা, নাইজেরিয়া, ওমান, সৌদি আরব ইত্যাদি দেশে অর্থের বিনিময়ে প্রতিনিধি নিয়োগ হয়েছে। এছাড়াও উক্ত দেশগুলোকে এই সংগঠনের ব্যানারে সেমিনার, অ্যাওয়ার্ড প্রদান ও প্রশিক্ষণ ইত্যাদি আয়োজন করা হয়ে থাকে বলে গ্রেফতারকৃত জানায়। যেখানে অর্থের বিনিময়ে বিভিন্ন ব্যক্তিদের অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়। ভূয়া অ্যাওয়ার্ড বিতরণের বিনিময়ের মাধ্যমে অর্জিত অর্থের সিংহভাগ গ্রেফতারকৃত ইশরাত রফিক ঈশিতা ও তার প্রধান সহযোগী গ্রহণ করে থাকেন বলে জানিয়েছেন। ইতিমধ্যে বুরুন্ডি ও আফগানিস্তানে এ ধরণের অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়েছে। ঈশিতা আন্তর্জাতিকভাবে পরিচিত ব্যক্তিদের বা জনমনে গ্রহণযোগ্যতা পেতে পারে এমন ব্যক্তিদের ছবি যুক্ত করে এ্যাডভাইজর, ভাইস চেয়ারম্যান, ইন্টারন্যাশনাল ভাইস চেয়ারম্যানসহ নানা পদে যোগদান করেছেন বলে ভূয়া প্রচারণা চালাতেন।
এছাড়াও তিনি ২০১৮ সালে নি¤œলিখিত নিরাপত্তা, চিকিৎসা, মানবাধিকার, নারী শিশু অধিকার বিষয়ক বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংগঠনের সাথে যুক্ত বলে ভূয়া তথ্য প্রদান করে থাকেন।
প্রতারণার কৌশল
গ্রেফতারকৃত ইশরাত রফিক ঈশিতা প্রতারণার কৌশল হিসেবে নিরাপত্তা বাহিনীর র‌্যাংক ব্যাচ ও পদ অর্জনের চেষ্টা চালান। সে ফিলিপাইনে পরিচালিত একটি ওয়েবসাইট (IPC.Phil.com) হতে ৪০০ ডলারের বিনিময়ে সামরিক বাহিনীর ন্যায় “বিগ্রেডিয়ার জেনারেল” পদটি প্রাপ্ত হয় বলে জানান। এছাড়াও তিনি ইন্টারন্যাশনাল পুলিশ অর্গানাইজেশন, কাউন্টার ক্রাইম ইন্টেলিজেন্স অর্গানাইজেশন ইত্যাদি সদস্য পদের ভূয়া সনদ তৈরী করে প্রচারণা চালিয়ে থাকেন।
গ্রেফতারকৃত ইশরাত রফিক ঈশিতা নিজস্ব ভূয়া ডিগ্রী, পদ ও পদবী প্রচারণার জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও আইপি চ্যানেল ব্যবহার করতেন। উক্ত প্রচারণার মাধ্যমে সে বিশিষ্ট আলোচক সাথে বিভিন্ন বিষয়ে বিশেষজ্ঞ হিসেবে টকশোতে অংশগ্রহণ করতেন। ক্ষেত্র বিশেষে গণমাধ্যমে তার টকশো, আলোচনা, সাক্ষাতকার ও সাফল্য সমূহ প্রচারিত হয়েছে। মূলত তিনি তার ভূয়া সার্টিফিকেট, এডিটিং ছবি, মিথ্যা বিবৃতি ও তথ্য প্রদানের মাধ্যমে সকলকে বিভ্রান্ত করতেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে তিনি মানবাধিকার লংঘন, নারী শিশু অধিকার, চিকিৎসা বিজ্ঞান, করোনা ইত্যাদি বিষয়ে আলোচক হিসেবে আবিভর্‚ত হয়ে গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধিতে অপচেষ্টা চালাতেন।
বিভিন্ন স্থানে পরিচয় প্রদানের ক্ষেত্রে বাধার সম্মুখীনতা এড়াতে তার “বস” হিসেবে তার সহযোগী গ্রেফতারকৃত মোঃ শহিদুল ইসলাম দিদার ভূমিকা রাখতেন। যিনি টেলিফোনে, অনলাইনে এবং ক্ষেত্র বিশেষেস্ব-শরীরে উপস্থিত হয়ে গ্রেফতারকৃত ইশরাত রফিখ ইশিতার পরিচয় বিশ্বাস যোগ্যতা অর্জনে সহায়তা করতেন। তবে অধিকাংশ ক্ষেত্রে অনলাইনে বিভিন্ন মিটিং এ উর্ধ্বতন কর্মকর্তার বর্ণিত ভূমিকা পালন করতেন।

গ্রেফতার দিদার

কে এই দিদার?
গ্রেফতারকৃত মোঃ শহীদুল ইসলাম দিদার ২০১২ সালে একটি ডিপ্লোমা ইনস্টিটিউট থেকে ডিপ্লোমা (ইঞ্জিনিয়ার) সম্পন্ন করেন। পরবর্তীতে তিনি পোষ্ট গ্রাজুয়েশন ডিপ্লোমাও সম্পন্ন করেন। বর্তমানে একটি গার্মেন্টেসে কমার্শিয়াল ম্যানেজার হিসেবে নিযুক্ত রয়েছেন। সেও ফিলিপাইনে একই সাইট হতে অর্থের বিনিময়ে মেজর জেনারেল পদ ধারণ করেন বলে জানান। এছাড়া নিজেকে আইন সহায়তা কেন্দ্র (আসক); ইয়াং ওয়াল্ড লিডার ফর হিউমিনিটিসহ বিভিন্ন সংগঠনের ফাউন্ডার (প্রতিষ্ঠাতা) বা কর্ণধার হিসেবে উপস্থাপন করেন। একইভাবে তিনি দূর্নীতিসহ বিভিন্ন বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংস্থার দূত বা অ্যাম্বাসেডর হিসেবে পরিচয় দিয়ে থাকেন।
গ্রেফতারকৃতরা যোগসাজশে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থার ভূয়া সদস্য, কর্ণধার বা দূত হিসেবে দেশে-বিদেশে প্রতারণা ও চাঁদাবাজির মাধ্যমে অপরাধ কার্যক্রমের সাথে যুক্ত রয়েছে। তাদের আরও বেশ কয়েকজন সহযোগী সম্পর্কে তথ্য পাওয়া গিয়েছে। বর্ণিত বিষয়ে অনুসন্ধান অব্যাহত রয়েছে।গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলে র‌্যাব জানায়।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ