শুক্রবার | ১৯ জুলাই ২০২৪
Cambrian

মূল গণমাধ্যমের বিপরীত নেটওয়ার্ক তৈরীর অপচেষ্টা হেলেনার

spot_img
spot_img
spot_img

নিজস্ব প্রতিবেদক
আওয়ামীলীগের উপ-কমিটি থেকে বহিষ্কৃত ব্যবসায়ী হেলেনা জাহাঙ্গীরের গ্রেপ্তার হওয়া দুই সহযোগী র‌্যাবকে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন। চাঁদাবাজিসহ দুই মামলায় গণমাধ্যমকে বিতর্কিত করতে ৫ হাজার কথিত সাংবাদিক নিয়ে আলাদা প্ল্যাটফর্ম তৈরির অপচেষ্টা চালিয়েছিলেন তিনি। হাজেরা খাতুন এবং সানাউল্ল্যাহ নূরী নামের ওই দুই সহযোগীকে সেমাবার রাজধানীর গাবতলি এলাকা থেকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।
অন্যদিকে হেলেনার বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত মোট ৪টি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে চাঁদাবাজির মামলায় হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আরও ৮ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছে আদালত। গত ২৯ জুলাই ২০২১ তারিখ রাজধানীর গুলশান-২ হতে হেলেনা জাহাঙ্গীর (৪৯) কে গ্রেফতার করা হয়েছিল।

র‌্যাবের সংবাদ সম্মেলন

এদিকে হেলেনার ওই দুই সহযোগিকে গ্রেপ্তারের পর র‌্যাব মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলন করে। গ্রেপ্তার হাজেরাকে জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের বরাত দিয়ে র‌্যাব জানায়, জয়যাত্রা টিভির বিশাল নেটওয়ার্ক নিয়ে হেলেনা নেতিবাচক উদ্দেশ্য চরিতার্থে একটি পরিকল্পনা তৈরী করেন। মূল মিডিয়া জগতের বিপরীতে তিনি একটি সংগঠন তৈরীর পরিকল্পনা করেন। যেখানে ৫ হাজার সংবাদকর্মীর একটি বিশাল নেটওয়ার্ক তৈরী হবে। তিনি দেশব্যাপী এই নেটওয়ার্ক ব্যক্তি হীন স্বার্থে ব্যবহারের পরিকল্পনা করেন। মাঝে মধ্যে তিনি ঢাকায় কর্মী সমাবেশ করতেন এবং ক্ষেত্র বিশেষে নিজের শো ডাউনে তাদেরকে ব্যবহার করতেন।

র‌্যাব জানায়, গ্রেফতার হাজেরা খাতুন এবং সানাউল্ল্যাহ নূরীকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হেলেনা জাহাঙ্গীরের প্রতারণার সাথে জড়িত বেশ কয়েকজনের সম্পর্কে তথ্য পাওয়া যায়। দেশের সকল গণমাধ্যমে ব্যাপকভাবে হেলেনা জাহাঙ্গীরের গ্রেফতারের সংবাদ প্রচারিত হয়। ফলশ্রুতিতে প্রতারিতরা আশান্বিত হয়। এ প্রেক্ষিতে ভিকটিমরা অভিযোগ দায়ের করতে উৎসাহী হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রদান করেছে।

কে এই হাজেরা খাতুন?
হেলেনা জাহাঙ্গীরের অন্যতম সহযোগী হাজেরা খাতুনের (৪০) স্বামীর নাম মনিরুল ইসলাম। তার বাড়ি কুমিল্লার বুড়িচং তানার এতবারপুর গ্রামে। গ্রেফতারকৃত হাজেরা খাতুন ২০০৯ সালে কুমিল্লার একটি কলেজ হতে মাষ্টার্স করেন। এরপর তিনি মিরপুরে হেলেনা জাহাঙ্গীরের মালিকানাধীন একটি গার্মেন্টস এ্যাডমিন (এইচ আর) পদে চাকরী শুরু করেন। তিনি হেলেনা জাহাঙ্গীরের নিকট আত্মীয় এবং একই সাথে কর্মদক্ষতা গুনে হেলেনা জাহাঙ্গীরের অত্যন্ত আস্থাভাজন হয়ে উঠেন। ফলে ২০১৬ সালে তিনি “জয়যাত্রা ফাউন্ডেশন” এর ডিজিএম হিসেবে নিযুক্তি পান। অতঃপর তিনি “জয়যাত্রা টিভি” প্রতিষ্ঠালগ্ন হতে অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে জিএম (এ্যাডমিন) এর পদে নিযুক্ত হন। গ্রেফতারকৃত হাজেরা খাতুন মূলত দুটি প্রতিষ্ঠানের প্রশাসনিক কার্যক্রমসহ হেলেনা জাহাঙ্গীরের আর্থিক বিষয়াদি দেখভাল করতেন বলে জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন।

যা জানালেন হাজেরা
জয়যাত্রা টিভি সম্পর্কে গ্রেফতারকৃত হাজেরা খাতুন’কে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, জয়যাত্রা টিভি ২০১৮ সাল হতে হংকং এর একটি ডাউন লিংক চ্যানেল হিসেবে সম্প্রচার হয়ে আসছে। যার ফ্রিকুয়েন্সি হংকং হতে বরাদ্দ করা হয়েছে। উক্ত ফ্রিকুয়েন্সির জন্য হংকংকে প্রতি মাসে প্রায় ছয় লক্ষ টাকা পরিশোধ করতে হয়। এখানে উল্লেখ্য যে, হংকং হতে বরাদ্দ ফ্রিকুয়েন্সির মাধ্যমে বাংলাদেশে সম্প্রচারের কোন বৈধ অনুমোদন নেই বলে গ্রেফতারকৃত হাজেরা খাতুন জানান। সম্প্রচারের জন্য ক্যাবল ব্যবসায়ীদের নিকট রিসিভার জয়যাত্রা টিভি বা তার প্রতিনিধির দ্বারা ক্যাবল ব্যবসায়ীদের নিকট সরবরাহ করা হয়ে থাকে। প্রতিনিধিরা ক্যাবল ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে সম্প্রচার নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হলে চাকুরিচ্যুত হয়ে থাকেন।
জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, এই টিভি বাংলাদেশের প্রায় ৫০টি জেলায় সম্প্রচারিত হয়ে থাকে। টিভি চ্যানেলটি রাজধানী ও জেলা পর্যায়ের পাশাপাশি মফস্বল ও প্রত্যন্ত অঞ্চলে জনপ্রিয় করার লক্ষে ব্যাপক উদ্দেশ্য প্রণোদিত পরিকল্পনা নেওয়া হয়। যাতে প্রত্যন্ত অঞ্চল হতে অধিকসংখ্যক প্রতিনিধি নিয়োগের মাধ্যমে বিপুল পরিমান অর্থ আত্মসাৎ করা যায়। গুরুত্ব বিবেচনায় জেলা প্রতিনিধি ত্রিশ থেকে পঞ্চাশ হাজার টাকা, উপজেলা প্রতিনিধি দশ থেকে বিশ হাজার টাকা এককালীন প্রদান করতে হয়। এছাড়া প্রতিনিধিদের নিকট হতে প্রতি মাসে দুই থেকে পাঁচ হাজার টাকা সংগ্রহ করা হয়ে থাকে। বর্ণিত টিভিটি বিশ্বের প্রায় ৩৪টি দেশে সম্প্রচারিত হয়। যেখানে দেশের গুরুত্ব বিবেচনায় এক থেকে পাঁচ লক্ষ টাকার বিনিময়ে প্রতিনিধিরা নিয়োগ পেয়ে থাকেন। যারা প্রতি মাসে বিশ থেকে পঞ্চাশ হাজার টাকা প্রদান করে থাকেন। নিয়োগ বাণিজ্য, অর্থ সংগ্রহ ও যাবতীয় হিসাবপত্র গ্রেফতারকৃত হাজেরা খাতুন এর উপর ন্যাস্ত বলে তিনি জানান।
গ্রেফতারকৃত হাজেরা খাতুনের দেয়া তথ্যে জানা যায়, অর্থ বাণিজ্যের মাধ্যমে নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অনেক বিতর্কিত ব্যক্তিরা নিয়োগ পেয়েছেন। হেলেনা জাহাঙ্গীরের পরিকল্পনা, উৎসাহে বা চাপে, নির্দেশনায় জয়যাত্রা টিভির কোন কোন প্রতিনিধি নেতিবাচক কর্মকান্ডে জড়িত হয়েছেন। এছাড়া প্রত্যন্ত অঞ্চলে ব্যক্তি প্রচার, প্রার্থিতা প্রচার, সাক্ষাতকার ইত্যাদির মাধ্যমে অর্জিত অর্থের একটি অংশ গ্রেফতারকৃতদের মাধ্যমে হেলেনা জাহাঙ্গীর গ্রহণ করে থাকতেন বলে গ্রেফতারকৃতরা জানান। যে সমস্ত বিজ্ঞাপন প্রতিষ্ঠিত গণমাধ্যমে প্রচারিত হত না, সেগুলো জয়যাত্রা টিভিতে প্রচার করা হতো। যেমন-তাবিজ- কোবজ, টুটকা- ফাটকা, ভাগ্য বলে দিতে পারে, জ্বীনের সাথে সরাসরি যোগাযোগ, ফারা কেটে যাওয়া এবং গোপন সমস্যার সমাধান ইত্যাদি।
গ্রেফতারকৃত হাজেরা খাতুন র‌্যাবকে জানান, হেলেনা জাহাঙ্গীর জয়যাত্রা টিভিকে নিজ প্রচার ও প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার জন্য ব্যবহার করতেন। উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে বিভিন্ন ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে জয়যাত্রা টিভি ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নেতিবাচক প্রচারণা চালাতেন। তিনি তার প্রতিষ্ঠান হতে চাকুরীচ্যুতদের একইভাবে হেনস্থা করতেন।
গ্রেফতারকৃত জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানায় যে, জয়যাত্রা টিভি এর বিশাল নেটওয়ার্ক নিয়ে তিনি নেতিবাচক উদ্দেশ্য চরিতার্থে একটি পরিকল্পনা তৈরী করেন। মূল মিডিয়া জগতের বিপরীতে তিনি একটি সংগঠন তৈরীর পরিকল্পনা করেন যেখানে ৫ হাজার সংবাদকর্মীর একটি বিশাল নেটওয়ার্ক তৈরী হবে। তিনি দেশব্যাপী এই নেটওয়ার্ক ব্যক্তি হীন স্বার্থে ব্যবহারের পরিকল্পনা করেন। মাঝে মধ্যে তিনি ঢাকায় কর্মী সমাবেশ করতেন এবং ক্ষেত্র বিশেষে নিজের শো ডাউনে তাদেরকে ব্যবহার করতেন।
জয়যাত্রা ফাউন্ডেশন সম্পর্কে গ্রেফতারকৃত হাজেরা খাতুন জানায়, উক্ত ফাউন্ডেশনে ডোনার, জেনারেল মেম্বার, লাইফ টাইম মেম্বার ইত্যাদি ক্যাটাগরিতে অর্থ সংগ্রহ করা হয়। এই সংগঠনের প্রায় ২০০ জন সদস্য রয়েছে। যাদের নিকট হতে সদস্য পদ বাবদ বিশ হাজার থেকে দুই লক্ষ টাকা পর্যন্ত সংগ্রহ করা হয়েছে। যার যৎ সামান্যই মানবিক কাজে ব্যবহার করে জয়যাত্রা টিভি ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক প্রচারণা চালানো হত। অবশিষ্ট অর্থ তার সন্তানদের নামে সঞ্চয় করা হত বলে গ্রেফতারকৃত জানান।

সানাউল্ল্যাহ নূরী

যা করতো গ্রেপ্তার নূরী
গ্রেফতারকৃত সানাউল্ল্যা নুরী (৪৮) জয়যাত্রা টিভি এর প্রতিনিধি সমন্বয়ক ছিলেন। তিনি হেলেনা জাহাঙ্গীরের নির্দেশনায় প্রতিনিধিদের সমন্বয় সাধন করতেন। প্রতিনিধিদের কেহ মাসিক টাকা দিতে ব্যর্থ হলে বা গড়িমসি করলে তিনি ভয় ভীতি প্রদর্শন করতেন। এলাকাতে তার নামে চাঁদাবাজি অভিযোগ রয়েছে। তিনি গাজীপুর গার্মেন্টস সেক্টরে ব্যাপক চাঁদাবাজি করে তার একটি অংশও জয়যাত্রা টিভিতে প্রদান করতেন বলে জানান। এছাড়াও তিনি গাজীপুর ও তদসংলগ্ন এলাকার অনুমোদনহীন জয়যাত্রা টিভির সম্প্রচার নিশ্চিত করতেন। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলে র‌্যাব জানায়।

দুই মামলায় ৮ দিনের রিমান্ডে হেলেনা জাহাঙ্গীর
চাঁদাবাজির অভিযোগ ও টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় ব্যবসায়ী হেলেনা জাহাঙ্গীরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আট দিনের হেফাজতে পেয়েছে পুলিশ। পল্লবী থানার দুই মামলায় মঙ্গলবার আসামিকে সাত দিন করে হেফাজতে নেওয়ার আবেদন করে পুলিশ
শুনানি শেষে ঢাকার মহানগর হাকিম শাহিনুর রহমান চার দিন করে আট দিনের হেফাজতের নেওয়ার আদেশ দেন বলে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান আইনজীবী আবদুল্লাহ আবু। এর আগে গুলশান থানার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় তিন দিনের রিমান্ড শেষে দুপুরে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আদালতে হাজির করা হয়।

আইনজীবী আবদুল্লাহ আবু বলেন, পল্লবীর দুই মামলার রিমান্ড শুনানির সময় হেলেনা জাহাঙ্গীর স্বাভাবিক থাকলেও পরে তাকে ভীষণ উদ্বিগ্ন দেখা যায়।
“তাকে তার আইনজীবী ও স্বামী জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে নিচু স্বরে কথাবার্তা বলতে দেখা যায়। রিমান্ড শুনানি শেষে তাকে খুবই বিচলিত দেখাচ্ছিল।”
তার আইনজীবী মো. শফিকুল ইসলাম রিমান্ড বাতিল করে জামিনের আবেদন করলেও তাতে কাজ হয়নি। এ আইনজীবী আদালতকে বলেন, হেলেনা জাহাঙ্গীর ‘প্রতিহিংসার শিকার’। রাষ্ট্রপক্ষে জামিনের বিরোধিতা করেন আবুল্লাহ আবু।
সোমবার বিকালে পল্লবী থানায় হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগে মামলা করেন ভোলার আব্দুর রহমান তুহিন নামের এক ব্যক্তি। এজাহারে বলা হয়, হেলেনার মালিকানাধীন জয়যাত্রা টিভিতে ভোলা প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগ দেওয়ার নামে আব্দুর রহমান তুহিনের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা নেয় কর্তৃপক্ষ।
ওই মামলায় আইপি টিভি জয়যাত্রার ব্যবস্থাপনা পরিচালক হেলেনা ছাড়াও অন্যতম সহযোগী হাজেরা খাতুন, জয়যাত্রা টিভির প্রধান সম্পাদক কামরুজ্জামান আরিফ, স্টাফ রিপোর্টার সালাউদ্দিন ও মাহফুজের নামও রয়েছে।
মামলার অভিযোগ তুলে ধরে পল্লবী থানার ওসি পারভেজ ইসলাম বলেন, “প্রায় ৩২ মাস ধরে প্রতি মাসে ৩ হাজার টাকা করে তুহিনের কাছ থেকে চাঁদা নিত তারা এবং এই টাকা না দিলে তাকে জয়যাত্রার সাংবাদিকতা থেকে বাদ দেওয়ার কথা বলা হত।”
গত বৃহস্পতিবার গুলশানের বাসা গ্রেপ্তার হওয়া হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে পল্লবী ও গুলশান থানায় মোট চারটি মামলা হয়েছে।
রাজধানীর গুলশানের বাসায় বৃহস্পতিবার প্রায় চার ঘণ্টা অভিযানের পর র‌্যাব গ্রেপ্তার করে সম্প্রতি আলোচনায় আসা ব্যবসায়ী হেলেনা জাহাঙ্গীরকে।
হেলেনা জাহাঙ্গীর আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক উপকমিটিতে সদস্য ছিলেন। কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগেরও উপদেষ্টা পরিষদে ছিলেন তিনি।
‘বাংলাদেশ আওয়ামী চাকরিজীবী লীগ’ নামের একটি ‘ভূইফোঁড়’ সংগঠনের সভাপতি হওয়ার খবর চাউর হলে সম্প্রতি তাকে কমিটি থেকে বাদ দেওয়া হয়।
শুক্রবার রাতে এফবিসিসিআইর পরিচালক হেলেনার বিরুদ্ধে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইনে গুলশান থানায় দ্বিতীয় মামলা দায়েরের আগে সন্ধ্যায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় তাকে তিন দিনের রিমান্ডে পাঠায় আদালত।
পাশাপাশি মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ১২ সেপ্টেম্বর দিন ধার্য করে দেয় আদালত।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ