শনিবার | ২ মার্চ ২০২৪
Cambrian

মা-মেয়ে পাচারে গ্রেপ্তার ৩, চাকরির প্রলোভনের ফাঁদে সর্বনাশ

spot_img
spot_img
spot_img

নিজস্ব প্রতিবেদক
মা ও মেয়েকে পাচারে জড়িত থাকার অভিযোগে তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। তারা হলেন- কালু ওরফে কাল্লু (৪০), মো. সোহাগ ওরফে নাগিন (৩২) ও বিল্লাল হোসেন (৪১)। রবিবার রাতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।
আজ সোমবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাবের বাহিনীর আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।
তিনি বলেন, গত জানুয়ারি মাসে পল্লবী এলাকার ১৭ বছরের এক তরুণীকে ভারতে পাচার করা হয়। ওই তরুণীর মা পরিচয় গোপন করে মেয়েকে উদ্ধার করতে পাচার চক্রের সঙ্গে যোগাযোগ করে।পরে তাকেও মেয়ের মত চক্রটি ভারতে পাচার করে দেয়। তরুণীর মা কৌশলে ওই চক্রটির হাত থেকে পালিয়ে যান এবং উত্তর দিনাজপুরে একটি নিষিদ্ধ পল্লীতে মেয়েকে খুঁজে পান। পরে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে মা-মেয়েকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়।
কাল্লু-নাগিন চক্রটি এই পাচারের সঙ্গে জড়িত জানিয়ে কমান্ডার মঈন বলেন, এই চক্রটি প্রতারণার ফাঁদে ফেলে এবং প্রলোভন দেখিয়ে পাশের দেশে নারী ও তরুণীদের পাচার করে। তারা পার্শ্ববর্তী দেশে মার্কেট, সুপারশপ, বিউটি পার্লারসহ বিভিন্ন জায়গায় চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে পাচার করত। তাদের মূল টার্গেট ছিল দরিদ্র ও নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের তরুণীরা।
চক্রের ‘মূল হোতা’ কালু। বিল্লাল সীমান্তবর্তী এলাকার সমন্বয়ক। পাচারচক্রে নারী সদস্যও রয়েছে। এছাড়া ২০ থেকে ২৫ জন এই চক্রের সঙ্গে জড়িত বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।
র‌্যাব কর্মকর্তা মঈন বলেন, চক্রটি ঢাকার মিরপুর, তেজগাঁও, গাজীপুরসহ কয়েকটি এলাকায় সক্রিয় রয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানিয়েছে, তরুণীদের অবৈধভাবে নৌ ও স্থলপথে সীমান্ত পারাপার করানো হত এবং কয়েকটি ধাপে পাচরের কাজটি করা হয়।
“কালু জানিয়েছে, জনপ্রতি এক থেকে দেড় লাখ টাকায় প্রত্যেক ভুক্তভোগীকে পার্শ্ববর্তী দেশের দালালের কাছে বিক্রি করত।”
বিল্লাল ও তার রাজিয়া খাতুন ২০১৮ সালে পল্লবী থানায় দায়ের করা মানবপাচারের মামলায় এক বছর সাজাও ভোগ করেছেন বলে জানান তিনি। এছাড়া পাঁচ বছর আগে কালুও করাভোগ করেছেন।
সংবাদ সম্মেলনের পর র‌্যাবের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত মে মাসে পার্শ্ববর্তী দেশে বাংলাদেশের এক তরুণীর পৈশাচিক নির্যাতনের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এর প্রেক্ষিতে র‌্যাব পার্শ্ববর্তী দেশে মানব পাচারকারী চক্রের অন্যতম হোতা বসরাফিসহ কয়েকজন সদস্যকে গ্রেফতার করে।
র‌্যাব জানায়, ‘সাম্প্রতিক সময়ে, দেশী-বিদেশী গণমাধ্যমে প্রচারিত সংবাদে একজন মহিয়সী মা সম্পর্কে জানা যা পড়ার হওয়া মেয়েকে পাচারকারীর হাত হতে উদ্ধারে এই মা নিজ জীবন বিপন্ন করে, জীবনের সর্বোচ্চ ঝুঁকি নিতে দ্বিধাবোধ করেননি। মায়ের এই আত্মত্যাগ ও সন্তানের প্রতি ভালবাসা এক অনন্য উদাহরণ সৃষ্টি করেছে। মায়ের এই অর্জন দেশবাসীর অকুণ্ঠ শ্রদ্ধা ও সাধুবাদে সিক্ত।’
যেভাবে পাচারকারীর হাত থেকে মেয়েকে উদ্ধার মায়ের, র‌্যাবের বর্ননা সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব জানায়, ‘গত জানুয়ারি মাসে রাজধানীর পল্লবী এলাকায় বর্ণিত মায়ের অজ্ঞাতসরে তার ১৭ বছর বয়সী তরুণী কন্যাকে পার্শ্ববর্তী দেশে পাচার করা হয়। স্বাবলম্বী হতে চাওয়া উক্ত তরুণীকে পাচারকারীরা পার্শ্ববর্তী দেশে উচ্চ বেতনে বিউটি পার্লারে চাকুরীর প্রলোভন দেখিয়ে প্রলুব্ধ করে। ভুক্তভোগী মেয়ে সাতক্ষীরা সীমান্তে পাচারকালীন সময়ে তার মা’কে পাচারের বিষয়টি জানাতে সক্ষম হয়। অনন্যোপায় হয়ে মা একাই তার মেয়েকে উদ্ধার করতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। এই মহিয়সী মা পাচার চক্রের সাথে যোগাযোগ করে। চক্রটি একই প্রক্রিয়ায় পার্শ্ববর্তী দেশে ভিকটিমের মাকেও পাচার করে। পরিচয় গোপন করতে ভিকটিম মা ‘মুন্নি’ নাম ধারণ করে। পরবর্তীতে ঐ চক্রের সদস্যদের কাছ থেকে ম কৌশলে পালিয়ে গিয়ে মেয়ের সন্ধান করতে থাকে। একপর্যায়ে পার্শ্ববর্তী দেশের উত্তর দিনাজপুরের পাঞ্জিপাড়ায় একটি নিষিদ্ধ পল্লীতে তার মেয়ের সন্ধান পান। অতঃপর স্থানীয় চেয়ারম্যানের সহযোগিতায় মা তার মেয়েকে উদ্ধার করে। মেয়েকে নিয়ে দেশে ফেরার সময় সীমান্ত এলাকায় অবৈধ অনুপ্রবেশের কারণে বিএসএফের নিকট তারা আটক হয়। কিন্তু বিএসএফ সম্পূর্ণ ঘটনা শুনে সমব্যথী হয়ে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে তাদেরকে বিজিবি’র নিকট হস্তান্তর করে। উক্ত ঘটনা দেশী ও বিদেশী গণমাধ্যমে বহুল প্রচারিত হয় এবং ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে। এ ঘটনায় আমরাও মানবিকভাবে উদ্বেলিত হই। মানবিক দায়বদ্ধতা হতে র‌্যাব সংশ্লিষ্ট ঘটনায় কার্যকরী উদ্যোগ গ্রহণ করে। ফলশ্রুতিতে ক্লাব উক্ত ঘটনার ছায়া তদন্ত শুরু করে ও বর্ণিত মানব পাচারের বিষয়ে গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করে।’

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ