শনিবার | ২ মার্চ ২০২৪
Cambrian

মামলা তদন্তে গতিশীল হচ্ছে দুদক

spot_img
spot_img
spot_img

*তিন মাসে অর্ধশতাধিক মামলা * শতাধিক ঘটনার অনুসন্ধান শেষ, মামলার অপেক্ষা

ইসমাঈল হুসাইন ইমু

করোনার প্রকোপ ঠেকাতে দেশব্যাপী লকডাউনে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) মামলা তদন্তে অনেকটা ধীরগতি চলছিল। লকডাউন শেষ হওয়ায় এবার তা গতি পাবে বলে আশাবাদ সংশ্লিষ্টদের। কমিশন চলতি বছর আগষ্ট পর্যন্ত সারাদেশে ৫০টি মামলার অনুমোদন দিয়েছে। করোনাকালীন সময়ে অনুসন্ধান শেষে সর্বশেষ গত ৮ মার্চ তিনটি মামলা দায়েরের অনুমোদন দেয় ঢাকা, পিরোজপুর ও বরিশালে। তবে গত প্রায় ৫ মাস কোন মামলার অনুমোদন দিতে পারেনি দুদক।
এদিকে অনুসন্ধান শেষে মামলার অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে ৫০টির বেশি। করোনাকালীন সময়ে অফিস বন্ধ থাকার কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এর আগে গত বছর করোনাকালীন সময়ে ১৪৫টি মামলা দায়ের করেছিল দুদক। স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতি নিয়ে সরব ছিল দুর্নীতি বিরোধী সরকারী স্বায়ত্বশসিত এ প্রতিষ্ঠান। আলোচনায় ছিল সায়েদ, সাবরিনাকে গ্রেপ্তার প্রসঙ্গ। দুদক সূত্রে এ সকল তথ্য জানা গেছে।
সূত্র জানায়, চলতি বছরের প্রথম দিকে অনুসন্ধান শেষে মামলায় অগ্রগতি হয়। প্রথম তিন মাসেই ৫০টির বেশি মামলার অনুমোদন দেয়া হয়। বছরের শুরুতেই ৪ জানুয়ারী মানিলন্ডারিং আইনে সোনালী ব্যাংক বানারী পাড়া শাখার পিন্সিপাল অফিসার এফ এম সাইদুর রহমান ও নুরুল আলমের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়। এরপর ২৩ মার্চ পর্যন্ত মোট ৫০ টি মামলা দায়ের হয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো সিলেট বিয়ানীবাজার শাখার ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের উপ-মহাব্যবস্থাপক শাহাদাৎ আবেদিন সিরাজ, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের পরিচালক (জোন ৬) শাহিনুল ইসলাম ও সমবায় ব্যাংকের চেয়ারম্যান মহিদুল ইসলাম মাহির বিরুদ্ধে মামলার অনুমোদন দেয়া হয়। এরপর মূলত আর কোন মামলার অনুমোদন দিতে পারেনি সংস্থাটি।
দুদক সূত্র জানায়, অনুসন্ধান শেষে আরো প্রায় ৫০টির বেশি অভিযোগের অনুসন্ধান শেষে মামলার চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়ার অপেক্ষায় রয়েছে। এর মধ্যে গণপূর্তের আলোচিত তিন প্রকৌশলী রয়েছেন। এরা হলেন, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী এ কে এম সোহরাওয়ার্দী ও নিবার্হী প্রকৌশলী মোহাম্মদ শওকত উল্লাহ। অনুসন্ধান শেষ করার আগে তাদের নোটিশ পাঠিয়ে দুদক কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন কর্মকর্তারা।
দুদক সূত্র আরো জানায়, আলোচিত ঠিকাদার জি কে শামীমসহ অন্যান্য ব্যক্তির বিরুদ্ধে সরকারি কর্মকর্তাসহ প্রভাবশালীদের শত শত কোটি টাকা ঘুষ দিয়ে বড় বড় কাজ বাগিয়ে বিভিন্ন অনিয়মের মাধ্যমে সরকারি অর্থ আত্মসাৎ, ক্যাসিনো ব্যবসা ও অন্যান্য অবৈধ কর্মকা-ের মাধ্যমে শত শত কোটি টাকা অবৈধ প্রক্রিয়ায় অর্জনপূর্বক বিদেশে পাচার ও জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ রয়েছে এই তিন প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে।
দুদকের পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেন বলেন, করোনাকালীন সময়ে আমাদের কাজের কিছুটা ধীরগতি। তবে আমাদের অনুসন্ধান কিন্তু থেমে থাকেনি। অনেক অভিযোগের অনুসন্ধান শেষে প্রতিবেদনও জমা হয়েছে। অনুসন্ধান চলাকালে কেউ যেন দেশের বাইরে যেতে না পারে তার জন্যও করোনাকালীন সময়েও ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। গত জুন মাসে হুইপ শামসুল ইসলামসহ সুনামগঞ্জ ১ আসনের সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, ভোলা ৩ আসনের সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম প্রধান সাজ্জাদুল ইসলাম, সাবেক অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. আব্দুল হাই এবং ঢাকা ওয়ান্ডার্স ক্লাবের কর্মচারী আবুল কালাম আজাদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। এছাড়াও কিছু সরকারী কর্মকর্তাও রয়েছেন যাদের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান শেষে প্রতিবেদন জমা রয়েছে। এটির প্রেক্ষিতে মামলার অনুমোদন দেয়া হবে।
এদিকে দুদক সূত্রে জানা যায়, গত বছর দুদক ঢাকাসহ সারাদেশে ১৪২ টি মামলার অনুমোদন দেয়। বিশেষ করে বছরের শেষভাগ থেকে ক্যাসিনো ব্যবসার সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের খোঁজ নিতে শুরু করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এসব মামলা আর অনুসন্ধান নিয়েই ২০২০ বছর শুরু করে দুদক।
করোনাকালীন ওই সময়ে গরিবদের জন্য সরকারি ত্রাণ আত্মসাৎকারীদের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান শুরু করে দুদক। মামলা হতে থাকে বিভিন্ন স্থানীয় জনপ্রতিনিধির নামে। এরই মধ্যে করোনা ভাইরাসের সুরক্ষাসামগ্রী কেনায় ভয়াবহ দুর্নীতির খবরে নড়েচড়ে বসে দুর্নীতিবিরোধী সংস্থাটি। এন-৯৫ মাস্ক, পিপিইসহ বিভিন্ন সুরক্ষামূলক সামগ্রী কিনতে অনিয়ম-দুর্নীতি-প্রতারণা বা জাল জালিয়াতির অভিযোগে দুদক পরিচালক মীর মো. জয়নুল আবেদীন শিবলীর নেতৃত্বে চার সদস্যের অনুসন্ধান দল গঠন করা হয়। এ দলটির প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে স্বাস্থ্যখাতের সঙ্গে সম্পৃক্ত পাঁচ ঠিকাদারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুদকে তলব করা হয়। এরই মধ্যে রিজেন্টের তথ্য জানতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অভিযানেও যায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) একটি অনুসন্ধানী দল। এরপর ১২ ও ১৩ আগস্ট স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক।
দুর্নীতি দমন কমিশনের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান জানান, বর্তমানে দুদকের বিচারাধীন মামলার সংখ্যা প্রায় সাড়ে ৩ হাজার। যার মধ্যে বিচার চলছে ২ হাজার ৬৫৪টি মামলা। উচ্চ আদালতের আদেশে দুদকের মামলার স্থগিতের সংখ্যা বর্তমানে ২৩৭টি।
২০২০ সালে দুদকের মামলায় সাজা হয়েছে ৯৭ জনের। খালাস পেয়েছেন ৪২ জন।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ