শুক্রবার | ১ মার্চ ২০২৪
Cambrian

ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ, বিপর্যয়ের শঙ্কা

spot_img
spot_img
spot_img

স্পোর্টস ডেস্ক
খেলার শুরুতেই টসে জিতে ব্যাটিং শুরু করে বাংলাদেশ। আজ সন্ধ্যা ৭টায় এ রিপোর্ট লেখার সময় টাইগারদের অর্জন ৬০ রান। এর মধ্যেই ১৩ ওভারে ৪ উইকেট হারায় বাংলাদেশ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: বাংলাদেশ ১১ ওভারে ৫১/৪

নাঈম ও সৌম্যকে উইকেটে একরকম বেঁধেই রাখেন অস্ট্রেলিয়ান বোলাররা। রান তোলার পথই পাচ্ছেন না বাংলাদেশের দুই ব্যাটসম্যান।

প্রথম তিন ওভারে তিন বাউন্ডারির পর টানা ৬ ওভারে একবারও সীমানা পার হয়নি বল। দশম ওভারে হেইজলউডকে স্কুপ করে চার মারেন সাকিব। ওই ওভারে আউটও হয়ে যান তিনি।

১০ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান দাঁড়ায় ৪৮। দলের ফিফটি আসে ১০.১ ওভারে।

হেইজেলউডের শিকার সাকিব

উইকেটে একদমই ছন্দ পাচ্ছিলেন না সাকিব। অনেকটা সময় ক্রিজে থেকেও খুঁজে পাচ্ছিলেন না টাইমিং। জশ হেইজেলউডের বলে স্কুপ করে বাউন্ডারিতে চার মেরে জেগে ওঠার ইঙ্গিত দিলেও শেষ পর্যন্ত পারলেন না টিকতে।

রাউন্ড দা উইকেটে শরীর তাক করে লেংথ বল করেন হেইজেলউড। লাফানো বলে জায়গা বানিয়ে কাট করার চেষ্টা করেন সাকিব। বল তার ব্যাটের কানায় লেগে যায় কিপারের গ্লাভসে।

সাকিব আউট হলেন ২৬ বলে ১৫ রান করে। বাংলাদেশ ৯.৫ ওভারে ২ উইকেটে ৪৮। নতুন ব্যাটসম্যান মাহমুদউল্লাহ।

পাওয়ার প্লেতে ৩০

শুরুটায় ভালো কিছুর ইঙ্গিত থাকলেও শেষ পর্যন্ত পাওয়ার প্লেতে ভালো কিছু করতে পারল না বাংলাদেশ। প্রথম তিন ওভারে রান ছিল ২২। পরের তিন ওভারে রান আসে কেবল ৮। স্বস্তি কেবল, উইকেট পড়েছে ওই একটিই।

সৌম্যর বিদায়

৩ ওভারে ২২ রান, এমন দারুণ কোনো কিছু নয়। কিন্তু এই সিরিজের প্রেক্ষাপটে, এটিই অনেক। সিরিজে বাংলাদেশের সেরা উদ্বোধনী জুটি বলে কথা! আগের তিন ম্যাচে শুরুর জুটি সেরা ছিল ১৫ রান।

ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে হেইজেলউডকে দুটি বাউন্ডারি মারেন মোহাম্মদ নাঈম শেখ। সৌম্য সিরিজের প্রথম বাউন্ডারি পান অ্যাশটন টার্নারের বলে।

তবে সেই স্বস্তি বেশিক্ষণ থাকল না। বিভীষিকার মতো সিরিজ কাটানো সৌম্য সরকার আবারও আউট হলেন অল্পতেই।

জশ হেইজেলউডের রাউন্ড দা উইকেটে করা লেংথ বলটি ছিল অফ স্টাম্পের বাইরে। সৌম্য সেখান থেকেই পুল করতে যান, কোনো পজিশনেই ছিলেন না তিনি। ব্যাটে লেগে বল উঠে যায় ওপরে। মিড অফে সহজ ক্যাচ নেন অ্যালেক্স কেয়ারি।

আগের তিন ম্যাচ মিলিয়ে ৪ রান করার পর এবার সৌম্য ফিরলেন ১০ বলে ৮ রান করে।

আবার টার্নারকে দিয়ে শুরু

আগের ম্যাচের মতোই অ্যাশটন টার্নারের অফ স্পিন দিয়ে বোলিং আক্রমণ শুরু করেছে অস্ট্রেলিয়া। অনিয়মিত এই অফ স্পিনার প্রথম ওভারে ২ রান দেওয়ার পর আর বোলিং পাননি শুক্রবার। এবারও তার প্রথম ওভার থেকে রান এসেছে ঠিক ২। সৌম্য সরকার ও মোহাম্মদ নাঈম শেখ করেছেন একটি করে রান।

একই একাদশ বাংলাদেশের

আগের তিন ম্যাচ জয়ী দলে কোনো পরিবর্তন আনেনি বাংলাদেশ। সিরিজ জয়ের পর আরও এগিয়ে যাওয়ার লড়াইয়ে নেমেছে তারা একই একাদশ নিয়ে।

বাংলাদেশ একাদশ: সৌম্য সরকার, মোহাম্মদ নাঈম শেখ, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ (অধিনায়ক), আফিফ হাসান, নুরুল হাসান সোহান, শামীম হোসেন, মেহেদি হাসান, শরিফুল ইসলাম, মুস্তাফিজুর রহমান, নাসুম আহমেদ।

দুই পরিবর্তন অস্ট্রেলিয়ার

আগের ম্যাচের একাদশ থেকে দুটি পরিবর্তন এনেছে অস্ট্রেলিয়া। ব্যাটিং নিয়ে ভোগান্তি চলতে থাকলেও বদল এনেছে তারা বোলিং আক্রমণে। লেগ স্পিনার অ্যাডাম জ্যাম্পা পেয়েছেন বিশ্রাম, তার জায়গায় সুযোগ পেয়েছেন লেগ স্পিনার মিচেল সোয়েপসন।

আগের ম্যাচে অভিষেকে হ্যাটট্রিক করা ন্যাথান এলিসকে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে এক ম্যাচ পরই। তার বদলে একাদশে ফিরেছেন আরেক পেসার অ্যান্ড্রু টাই। ফাস্ট বোলার মিচেল স্টার্ক আছেন বিশ্রামেই।

অস্ট্রেলিয়া একাদশ: বেন ম্যাকডারমট, অ্যালেক্স কেয়ারি, মিচেল মার্শ, মোইজেস হেনরিকেস, ম্যাথু ওয়েড (অধিনায়ক), অ্যাশটন টার্নার, অ্যাশটন অ্যাগার, ড্যানিয়েল ক্রিস্টিয়ান, মিচেল সোয়েপসন, অ্যান্ড্রু টাই, জশ হেইজেলউড।

টস জয় বাংলাদেশের

টানা দ্বিতীয় ম্যাচে টস জিতলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। প্রত্যাশিতভাবে আবারও তিনি বেছে নিলেন ব্যাটিং।

দ্বিতীয় ম্যাচে যে উইকেটে খেলা হয়েছিল, সেখানেই হচ্ছে এই ম্যাচ। বাংলাদেশ অধিনায়ক টস জয়ের পর বললেন, উইকেটের আচরণ আগের মতোই থাকবে বলে তার ধারণা। ব্যাটিংয়ে উন্নতি করে ভালো স্কোর গড়তে চান তারা।

ব্যাটিংয়ে উন্নতি আর ৪-০ করার আশা

সিরিজ জয় হয়ে গেছে প্রথম তিন ম্যাচেই। তবে বাংলাদেশের প্রাপ্তির অভিযান শেষ হয়নি। আপাতত চাওয়া আরও একটি ম্যাচ জয় এবং সেই জয়ের পথে ব্যাটিংয়ের উন্নতি।

প্রথম তিন ম্যাচ মূলত বোলারদের অসাধারণ পারফরম্যান্সেই জিতেছে বাংলাদেশ। সিরিজের বাকি দুই ম্যাচে ব্যাটসম্যানদের কাছে আরেকটু বেশি কিছু চান অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ।

“ব্যাটসম্যানদের অবশ্যই আরও ভালো করা উচিত। ব্যাটিংয়ে আমাদের আরেকটু দায়িত্ব নিতে হবে। আমার মনে হয়, সেই সামর্থ্য আমাদের আছে। আমি বিশ্বাস করি, বাকি দুই ম্যাচে আমাদের ব্যাটিং ইউনিট আরও ভালো করবে।”

“(উইকেটের) কন্ডিশনে মানিয়ে নিয়ে আমরা যদি ব্যাটিংটা আরেকটু ভালো করতে পারি, আরও ১০-১২টি রান, একটি-দুটি চার, কয়েকটি ডাবলস বা সিঙ্গেলস নিয়ে যদি আদায় করতে পারি, তাহলে ব্যাটিং ইউনিট হিসেবে আমরা খুশি হব, আমাদের বোলারদেরও বেশি বিশ্বাস জোগাবে।”

Print Friendly and PDF

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ