বৃহস্পতিবার | ১৩ জুন ২০২৪
Cambrian

বার কাউন্সিলে ১৫ সদস্যের এডহক কমিটি

spot_img
spot_img
spot_img

আদালত প্রতিবেদক
বাংলাদেশ বার কাউন্সিল পরিচালনার জন্য ১৫ সদস্যের এডহক কমিটি গঠন করে গেজেট প্রকাশ করেছে সরকার।
বুধবার (৪ আগস্ট) সরকারের আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগ এ সম্পর্কিত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।
আইন ও বিচার বিভাগের সচিব মো. গোলাম সারোয়ার জানিয়েছেন, বাংলাদেশ লিগ্যাল প্রাকটিশনার্স অ্যান্ড বার কাউন্সিল অর্ডার, ১৯৭২ (রাষ্টপতির ১৯৭২ সালের ৪৬ নম্বর আদেশ) এর অনুচ্ছেদ (৮) এ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে সরকার ১৫ সদস্যের সমন্বয়ে এই এডহক কমিটি গঠন করেছে।
এডহক কমিটির সদস্যরা হলেন— অ্যাটর্নি জেনারেল ও সিনিয়র অ্যাডভোকেট এএম আমিন উদ্দিন, যিনি কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। এছাড়াও সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, সিনিয়র অ্যাডভোকেট আব্দুল বাসেত মজুমদার, অ্যাডভোকেট সৈয়দ রেজাউর রহমান, অ্যাডভোকেট মোখলেছুর রহমান বাদল, অ্যাডভোকেট এইচ এ এম জহিরুল ইসলাম খান (জেড আই খান পান্ন), অ্যাডভোকেট শাহ মো. খসরুজ্জামান, অ্যাডভোকেট মো. কামরুল ইসলাম।

এছাড়াও রয়েছেন ঢাকা আইনজীবী সমিতির অ্যাডভোকেট কাজী নজীবুল্লাহ হিরু, চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতির অ্যাডভোকেট মুজিবুল হক, সিলেট আইনজীবী সমিতির অ্যাডভোকেট এ এফ মো. রুহুল আনাম চৌধুরী মিন্টু, ময়মনসিংহ আইনজীবী সমিতির অ্যাডভোকেট কবির উদ্দিন ভূঞা, খুলনা আইনজীবী সমিতির অ্যাডভোকেট পারভেজ ইসলাম খান, রাজশাহী আইনজীবী সমিতির অ্যাডভোকেট মো. ইয়াহিয়া এবং সিরাজগঞ্জ আইনজীবী সমিতির অ্যাডভোকেট মো. আব্দুর রহমান কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, বার কাউন্সিলের এই এডহক কমিটির মেয়াদ হবে ২০২২ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত। এই এডহক কমিটি ২০২২ সালের ৩১ মে বা তার আগে বার কাউন্সিলের নির্বাচন সম্পন্ন করবে এবং নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত বার কাউন্সিল ২০২২ সালের ১ জুলাই দায়িত্বভার গ্রহণ করবে।

আইন সচিব মো. গোলাম সারোয়ার আরও জানান, করোনা কোভিড-১৯ এর কারণে নির্ধারিত সময়ে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের নির্বাচন অনুষ্ঠান করা সম্ভব না হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে বার কাউন্সিলের এই এডহক কমিটি গঠন করা হয়েছে।

নেটফ্লিক্সে বাংলাদেশ বিরোধী সংলাপ, দর্শকদের ক্ষোভ
https://www.banglatribune.com/694034
বিনোদন রিপোর্ট
০৩ আগস্ট ২০২১, ১৮:২৬

নেটফ্লিক্সে বাংলাদেশবিরোধী সংলাপ, দর্শকদের ক্ষোভ
নেটফ্লিক্সে বাংলাদেশবিরোধী সংলাপ, দর্শকদের ক্ষোভ
চলতি বছরের ৩০ জুলাই নেটফ্লিক্সে মুক্তি পেয়েছে ভ্যান ড্যাম অভিনীত ছবি ‘দ্য লাস্ট মার্সেনারি’। চলচ্চিত্রটি এখন এই ওটিটি প্ল্যাটফর্মের জনপ্রিয়তার তালিকার সেরা দশে অবস্থান করছে।

বহুল ভিউ হওয়া এ ছবিটিতে বাংলাদেশি পণ্যবিরোধী প্রচারণার মতো গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। চলচ্চিত্রটির একটি সংলাপে তার প্রমাণও মেলে। বিষয়টি নিয়ে ইতোমধ্যে বাংলাদেশিদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা যায়। অনেকেই মন্তব্য করেছেন, ডেভিড চারহন পরিচালিত ফ্রেঞ্চ ভাষার এ ছবির মাধ্যমে বাংলাদেশের রফতানি পণ্যকে নিম্নমানের বলে প্রচার চালানো হচ্ছে।

ছবিটির ১ ঘণ্টা ৪১ মিনিটে শুরু হওয়া দৃশ্যে দেখা যায়, একজন অভিনয়শিল্পী বলছেন, ‘হ্যাঁ, এটা বুলেটপ্রুফ’। প্রত্যুত্তরে আরেকজন বলেন, ‘এটা মেড ইন ফ্রান্স। তবে যদি এটি বাংলাদেশ থেকে আসে তাহলে আমি ধ্বংস হয়ে যাবো (নিম্নমানের)।’

নেটফ্লিক্স ব্যবহারকারী কানাডা প্রবাসী বাংলাদেশি সাংবাদিক মুহম্মদ খান সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লিখেছেন, ‘বিষয়টাকে নেহাত সিনেমার একটা ডায়লগ মনে করলে চরম বোকামি হবে। এটা খুব প্রচ্ছন্নভাবে করা হয়েছে বলেই ধরে নেওয়া ভালো। এবং বাংলাদেশের বা বাংলাদেশে তৈরি পণ্যের নেগেটিভ ব্র্যান্ডিংয়ের জন্য এসব মুভি যে মোক্ষম অস্ত্র তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখানোর প্রয়োজন আছে বলে মনে হয় না!’

অন্য একজন বাংলাদেশি লিখেছেন, ‘আমরা বুলেটপ্রুফ কিছু তৈরি করি না। তারপরেও এর সাথে বাংলাদেশের নাম জুড়ে নিম্নমানের প্রমাণ করাটা সত্যিকার অর্থে একটা গভীর চক্রান্ত। বিশেষ করে বাংলাদেশের পোশাক, চামড়া, ওষুধ এবং অন্যান্য রফতানিযোগ্য পণ্য ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত করার উদ্দেশ্যে এসব করা হচ্ছে।’

তবে এমন ঘটনা ও প্রতিবাদের বিপরীতে এখনও নেটফ্লিক্স বা নির্মাণ কর্তৃপক্ষ থেকে কোনও সদুত্তর পাওয়া যায়নি।

১ ঘণ্টা ৫০ মিনিটের এ ছবিটি নির্মাণকারী দেশ ফ্রান্স। চলচ্চিত্রটির আইএমডিবি রেটিং ৫.৪।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ