বৃহস্পতিবার | ১৩ জুন ২০২৪
Cambrian

ফেসবুককে দুষলো তালেবান, বন্ধ করা হলো হোয়াটসঅ্যাপও

spot_img
spot_img
spot_img

ক্র্যাবনিউজ ডেস্ক
ফেসবুকে তালেবান নিষিদ্ধ। এমনকি ফেসবুকের মালিকানাধীন সেবা, যেমন ইনস্টাগ্রাম ও হোয়াটসঅ্যাপেও তাদের সমর্থনে কোনো পোস্ট থাকতে পারবে না।
গত সোমবার এমন ঘোষণার পর তালেবান পরিচালিত হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্টগুলো একে একে বন্ধ করে দেওয়া শুরু করে ফেসবুক। আর এবার ফেসবুকের বিরুদ্ধে বাকস্বাধীনতা রোধের অভিযোগ আনল তালেবান।
ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বাকস্বাধীনতা নিয়ে এক প্রশ্নের উত্তরে তালেবান মুখপাত্র সুহাইল শাহিন বলেন, প্রশ্নটি তাদের করা উচিত, যারা নিজেদের বাকস্বাধীনতার পথপ্রদর্শক দাবি করে, অথচ সব তথ্য প্রকাশ করতে দেয় না…ফেসবুক কোম্পানি।
ইন্ডিয়া টুডের খবরে বলা হয়েছে, মার্কিন আইন মেনে তালেবানকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে বাধ্য হয়েছে বলে গত সোমবার জানিয়েছে ফেসবুক। কারণ, তালেবান সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে চিহ্নিত।
এদিকে তালেবান সদস্যরা ফেসবুকের মালিকানাধীন সেবা হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করছেন, এমন প্রতিবেদনের পর তালেবান সদস্যদের ব্যবহৃত হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্টগুলো একে একে বন্ধ করে দেওয়া হয়।
ফেসবুকের এক মুখপাত্র বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, ‘মার্কিন আইনের আওতায় তালেবান সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে চিহ্নিত এবং আমাদের “বিপজ্জনক সংগঠন” নীতিমালার আওতায় ফেসবুকের সেবাগুলো থেকে তাদের নিষিদ্ধ করা হয়েছে।’ সঙ্গে যোগ করেছেন, মার্কিন আইন মানতে ফেসবুক বাধ্য।
কাবুল তালেবানের নিয়ন্ত্রণে আসার পর সেখানে সহিংসতা ও লুটপাট বেড়ে গেলে অভিযোগ জানানোর জন্য হোয়াটসঅ্যাপে হটলাইন নম্বর চালু করে তালেবান। সে হটলাইনটি বন্ধ করে দিয়েছে ফেসবুক। তবে আফগানিস্তানের ‘পরিবর্তনশীল পরিস্থিতি মাথায় রেখে’ মার্কিন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছে বলেও জানিয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমটি।
আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ তালেবানের হাতে থাকলেও বিশ্বের অনেক দেশেই তারা সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে চিহ্নিত। এতে তালেবান সদস্যদের পরিচালিত অ্যাকাউন্টগুলো বন্ধের জন্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো চাপে পড়ে যায়।
তালেবান নিয়ন্ত্রিত হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্টগুলো বন্ধে ‘একদল আফগানের সাহায্য’ নেয় ফেসবুক, যারা দারি ও পশতু ভাষাভাষী এবং স্থানীয় পরিস্থিতি সম্পর্কে জানে।
ফেসবুকের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, তাদের কর্মী দল আফগান পরিস্থিতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে। সেই সঙ্গে বলেছে, ফেসবুক কোনো দেশের সরকারকে স্বীকৃতি দেয় না, বরং এ ধরনের সিদ্ধান্তের জন্য আন্তর্জাতিক কমিউনিটির ওপর নির্ভর করে।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ