মঙ্গলবার | ২১ মে ২০২৪
Cambrian

পরী মণির পোশাক নির্বাচক রিমান্ডে

spot_img
spot_img
spot_img

নিজস্ব প্রতিবেদক
ঢাকাই সিনেমার নায়িকা পরী মণির কস্টিউম ডিজাইনার (পোশাক নির্ধারক) জুনায়েদ করিম জিমিকে তিন দিন হেফাজতে পেয়েছে পুলিশ।
শনিবার (৭ আগস্ট) বিকেলে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ উর রহমানের আদালত শুনানি শেষে এই রিমান্ডের এই আদেশ দেন।
এর আগে দুপুর পৌনে দুইটার দিকে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয় জিমিকে। এরপর তদন্ত কর্মকর্তা মামলার সুষ্ঠু তদন্তের প্রয়োজনে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন।
এর আগে শুক্রবার (৬ আগস্ট) রাত ৯টার দিকে গুলশান থেকে জিমিকে (৩০) আটক করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। আটকের পর তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে নেয়া হয়।
গ্রেপ্তারের পর তার বিরুদ্ধে মাদক মামলা করেছে পুলিশ। বনানী থানার ওসি নুরে আযম বলেন, শুক্রবার রাতে গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক উদয় কুমার মন্ডল বাদী হয়ে মামলাটি করেছেন।
গ্রেপ্তার জিমির সঙ্গে ২২৫ পিস ইয়াবা পাওয়া গিয়েছে বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে। ওসি বলেন, মামলাটি গোয়েন্দা পুলিশ তদন্ত করবে।
গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম-কমিশনার হারুন অর রশীদ শুক্রবার রাতে এক ব্রিফিংয়ে বলেছিলেন, সন্ধ্যায় গুলশান থেকে গ্রেপ্তার করে জিমিকে ডিবি কার্যালয়ে রাখা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা করার প্রস্তুতি চলছে।
গত জুনে মাসে ঢাকা বোট ক্লাবে গিয়ে ‘নির্যাতন ও ধর্ষণচেষ্টার শিকার’ হওয়ার অভিযোগ তোলার পর জিমির নামও আলোচনায় আসে। জিমিও সেদিন বোট ক্লাবে পরীমনির সঙ্গে ছিলেন।
পরীমনির বনানীর বাসায় ১৩ জুনের সেই সংবাদ সম্মেলনে বোটক্লাবের ঘটনার একজন প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে পরীমনিকে ‘মারধরের’ ঘটনা এবং নিজেও মারধরের শিকার হওয়ার কথা সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেছিলেন জিমি।
তবে এরপর পরীমনির বিরুদ্ধেই আরেকটি ক্লাবে ভাংচুর চালানোর অভিযোগ আসে। তার সঙ্গে বিভিন্ন ক্লাবে জিমিরও নিয়মিত যাতায়াত ছিল।
এদিকে ‘ডিজে পার্টি’ আয়োজনের আড়ালে অবৈধ কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে গত মঙ্গলবার শরিফুল হাসান (মিশু হাসান) ও মাসুদুল ইসলাম ওরফে জিসান নামে দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার পরদিন বুধবার র‌্যাব যায় পরীমনির বনানীর বাসায়।
কয়েক ঘণ্টা অভিযান শেষে পরীমনি এবং তার সহযোগী আশরাফুল ইসলাম দীপুকে আটক করে নিয়ে যায় র‌্যাব। এরপর অভিযান চলে বনানীতে চলচ্চিত্র প্রযোজক নজরুল ইসলাম রাজের বাড়িতে। সেখান থেকে রাজ এবং তার ব্যবস্থাপক সবুজ আলীকে র‌্যাব আটক করে।
র‌্যাব সদরদপ্তরে বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে চিত্রনায়িকা পরীমনির বাসা থেকে উদ্ধার করা মদ ও মাদক দেখানো হয়।
মিশু ও জিসানের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই পরীমনি ও রাজের বাড়িতে অভিযান চালানো হয় বলে কমান্ডার আল মঈন সেদিন জানান।
পরীমনি, রাজ ও তাদের দুই সহযোগীকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করার পর বনানী থানায় মাদক আইনে দুটি এবং পর্নগ্রাফি আইনে একটি মামলা করা হয়।
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তাদের আদালতে তোলা হলে মাদক আইনের দুই মামলায় চারজনকে চার দিন করে রিমান্ডে পাঠান বিচারক।
শুক্রবার গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার হারুন অর রশিদ জিমিকে গ্রেপ্তারের ইঙ্গিত করে বলেছিলেন, “জিমিকে আপনারাও দেখেছেন, রাতের বেলা হ্যাফপ্যান্ট আর গেঞ্জি পরে বিভিন্ন ক্লাবে যাতায়াত করত। ওর বিষয়ে খোঁজখবর নিচ্ছি। তাকে শিগগিরই গ্রেপ্তার করা হবে। আরও যারা তাকে পৃষ্ঠপোষকতা করছে, তাদেরও খোঁজখবর আমরা নিচ্ছি। আমরা মনে করি, শিগগিরই আইনের আওতায় আনতে পারব।”
এদিকে পরিমনির মামলা সিআইডিতে হস্তান্তর হওয়ার পর শুক্রবার রাতেই তাকে সিআইডির কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আজাদ।পরীমনির সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে আলোচনায় থাকা ঢাকা অতিরিক্ত উপকমিশনার মো. গোলাম সাকলায়েনকে শনিবার দুপুরে ডিএমপি কমিশনারের এক আদেশে ডিবি থেকে ডিএমপির পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্টে (দাঙ্গা দমন বিভাগ, পশ্চিম) বদলি করা হয়।
বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ডিএমপির গণমাধ্যম ও জনসংযোগ বিভাগের উপকমিশনার মো. ফারুক হোসেন। তিনি বলেন, বদলির আদেশের আগে সাকলায়েনকে ডিবির সব ধরনের দায়িত্ব থেকে বিরত রাখা হয়।
পরীমনির সঙ্গে ডিবির গুলশান বিভাগের এডিসি (অতিরিক্ত উপকমিশনার) গোলাম সাকলায়েনের ঘনিষ্ঠতা রয়েছে—এমন খবর গণমাধ্যমে আসে। সাকলায়েনের বাসায় পরীমনির যাতায়াত ছিল বলে অভিযোগ ওঠে।
যদিও সাকলায়েন তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, পরীমনির করা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হিসেবে তাকে পরীমনি ফোন করেছিলেন। তার বাসায় পরীমনির যাতায়াত ছিল না এবং তার সঙ্গে সম্পর্কও নেই।
একটি বেসরকারি টেলিভিশনের একাত্তরের সংবাদে বলা হয়েছে, ১ আগস্ট সকাল ৮টা ১৫ মিনিটে পরীমনির সাদা রঙের একটি হ্যারিয়ার গাড়ি থেকে লাল রঙের টি-শার্ট পরিহিত ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের একজন গোয়েন্দা কর্মকর্তা নামেন। এরপর সাদা রঙের একটি স্লিপিং গাউন পরিহিত অবস্থায় গাড়ি থেকে নামেন নায়িকা পরীমনি।

বিজ্ঞাপন
পুলিশ কর্মকর্তাদের বাসভবনের নিচে নিরাপত্তায় নিয়োজিত পুলিশ সদস্যদের কাছ থেকে বাসার চাবি নেন ওই পুলিশ কর্মকর্তা। এরপর তাঁরা দুজন লিফটে করে ওই কর্মকর্তার বাসায় যান। এরপর পরীমনির গাড়ি থেকে একটি ট্রলি ব্যাগও ওই কর্মকর্তার বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়।

খবরে বলা হয়, আলোচিত সেই কর্মকর্তার নাম গোলাম সাকলায়েন। তিনি ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের গুলশান বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার হিসেবে কর্মরত। আর সরকারি ফ্ল্যাট রাজাবাগ অফিসার্স কলোনির মধুমতি ভবনে।
এরপর আরও বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমে এ–সংক্রান্ত খবর প্রকাশিত হয়।

এর মধ্যেই আজ দুপুরে ডিবির এডিসি সাকলায়েনকে বদলির আদেশ হলো।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ