বৃহস্পতিবার | ১৩ জুন ২০২৪
Cambrian

ধর্ষণ-হত্যা : একজনের মৃত্যুদণ্ড বহাল, তিনজনের যাবজ্জীবন

spot_img
spot_img
spot_img

আদালত প্রতিবেদক
সতের বছর আগে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার লালনগরে এক কিশোরীকে ধর্ষণ ও হত্যার মামলায় এক আসামির মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখে তিন জনের সাজা কমিয়ে যাজ্জীবন দিয়েছে আপিল বিভাগ।
আসামিদের আপিল ও জেল আপিলের শুনানি শেষে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির ভার্চুয়াল আপিল বেঞ্চ বুধবার এ রায় দেয়।
সার্বোচ্চ আদালতের রায়ে লালনগর গ্রামের খয়ের আলীর ছেলে শুকুর আলীর মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখা হয়েছে।
একই গ্রামের পিজাব উদ্দিনের ছেলে নুরুদ্দিন সেন্টু, আবু তালেবের ছেলে আজানুর রহমান ও সিরাজুল প্রামাণিকের ছেলে মামুন হোসেনের সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন দেওয়া হয়েছে।
তাদের কনডেম সেল থেকে সাধারণ সেলে স্থানান্তর করতে নির্দেশ দিয়েছে আপিল বিভাগ।
আদালতে আসামিপক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী এস এম শাহজাহান ও রাগীব রউফ চৌধুরী। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ।
পরে আইনজীবী রাগীব রউফ চৌধুরী বলেন, “সতের বছর আগে অপরাধের সময় শুকুর আলী বাদে বাকি তিন আসামির বয়স ছিল যথাক্রমে ১৪, ১৫ ও ১৬ বছর। বিচারিক আদালত তাদের বয়স বিবেচনায় না নিয়েই বিচারপ্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছেন। এ বিষয়টি আমরা সর্বোচ্চ আদালতে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি।
“এছাড়া দুজন আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে হত্যার ক্ষেত্রে শুকুর আলী ছাড়া আর কারও নাম আসেনি। তাছাড়া সঠিক প্রক্রিয়া অনুসরণ করে জবানবন্দি নেওয়া হয়নি। আর মেডিকেল রিপোর্ট অনুযায়ী ধর্ষণের অভিযোগের বিষয়ে সন্দেহ রয়েছে।”
কোন কোন বিষয় বিবেচনায় নিয়ে সর্বোচ্চ আদালত এ রায় দিয়েছে জানতে চাইলে এ আইনজীবী বলেন, “যেহেতু পূর্ণাঙ্গ রায় অমাদের সামনে আসে নাই, যে কারণে আদালতের ব্যাখ্যা বা যুক্তি আমরা বলতে পারছি না। তবে আমরা যে যুক্তি ও ব্যাখ্যা উপস্থাপন করেছি, সেসব যুক্তি ও ব্যাখ্যার ভিত্তিতেই হয়তো আদালত এ রায় দিয়েছেন।”
২০০৪ সালের ২৫ মার্চ রাতে প্রতিবেশির বাড়ি থেকে টেলিভিশন দেখে ফেরার পথে ওই কিশোরীকে অপহরণ করে পাশের তামাক খেতে নিয়ে ধর্ষণ ও হত্যা করা হয়। পরদিন কিশোরীর বাবা পাঁচ জনকে আসামি করে দৌলতপুর থানায় মামলা করেন।
মামলার বিচার শেষে ২০০৯ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি পাঁচ আসামির মৃত্যুদণ্ড দেয় কুষ্টিয়ার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক আকবর হোসেন।
নিয়ম অনুযায়ী মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকরে করতে হাই কোর্টের অনুমোদন লাগে। অনুমোদনের জন্য বিচারিক আদালতের রায় ও মামলার নথি যুক্ত করে যে আবেদনটি করা হয়, সেটি ডেথ রেফারেন্স হিসেবে পরিচিত।
সে ডেথরেফারেন্স হাই কোর্টে আসার পর আসামিরাও বিচারিক আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে।
এ আপিল বিচারের সময় আব্দুল গনির ছেলে কামু ওরফে কামরুলের মৃত্যু হয়। বিচারিক আদালত তাকেও মৃত্যুদণ্ড দিয়েছিল।
এরপর ডেথ রেফারেন্স ও আসামিদের আপিলের শুনানি শেষে ২০১৪ সালে হাই কোর্ট চার আসামিরই মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখে।
সে রায়ের বিরুদ্ধে আসামিদের করা জেল আপিল ও আপিলের শুনানি শেষে বুধবার রায় দিল সর্বোচ্চ আদালত।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ