শুক্রবার | ১ মার্চ ২০২৪
Cambrian

দিনভর ঘুমাতেন, রাতে ধনীর দুলালদের বাসায় ডাকতেন

spot_img
spot_img
spot_img

নিজস্ব প্রতিবেদক
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের আলাদা মামলায় মডেল ফারিয়া মাহবুব পিয়াসা ও মরিয়ম আক্তার মৌকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। পুলিশের নানামুখী প্রশ্নে অবশেষে মুখ খুলতে শুরু করেছেন তারা। জানাচ্ছেন আধাঁর জগতের নানা অজানা কাহিনী।

অন্যদিকে গ্রেপ্তার দুই মডেলকে অস্বীকার করেছে শিল্পী সমিতি। এরা কিসের মডেল- এমন তীর্যক মন্তব্য খোদ প্রতিথযশা শিল্পী-কলাকুশলীদের।
এদিকে ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা (উত্তর) শাখার যুগ্ম-কমিশনার হারুন-অর-রশীদ জানিয়েছেন, গ্রেপ্তার দুই মডেল ‘রাতের রাণী’। তারা দিনের বেলায় ঘুমাতেন এবং রাতে উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তানদের পার্টির নামে বাসায় ডেকে আনতেন। ওই দুই মডেল তিন দিনের রিমান্ডে রয়েছেন বলেও জানান ওই পুলিশ কর্মকর্তা।
রিমান্ডে পওয়া তথ্যের বরাত দিয়ে গোয়েন্দা কর্মকর্তা হারুন বলেন, “বাসায় তাদের (ডেকে আনা ধনীর দুলালদের) সঙ্গে আপত্তিকর ছবি তুলতেন এবং ভিডিও করে রাখতেন। পরে সেসব ভিডিও ও ছবি ভিকটিমদের পরিবারকে পাঠানোর হুমকি দিয়ে ব্ল্যাকমেইল করতেন এবং মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নিতেন।”
গত রবিবার রাত ১০টার দিকে গুলশান থানার বারিধারার ৯ নম্বর রোড এলাকায় মডেল পিয়াসার বাসায় অভিযান চালায় গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। বিপুল পরিমাণ বিদেশি মদ, ইয়াবা ও সীসাসহ তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।
পরে তাকে নিয়ে মোহাম্মদপুরের বাবর রোডে মডেল মৌয়ের অভিযান চালায় পুলিশ। সেখান থেকেও এসব মাদক দ্রব্য উদ্ধার করা হয়। পরে মৌকেও গ্রেপ্তার করা হয়।
এঘটনায় সোমবার দুপুরে গুলশান থানায় পিয়াসার বিরুদ্ধে ও মোহাম্মদপুর থানায় মৌয়ের বিরুদ্ধে মামলা করে পুলিশ।
মোহাম্মদপুর থানার মামলায় পুলিশ মৌকে ১০ দিনের হেফাজতে নিতে চাইলেও ঢাকা মহানগর হাকিম মো. আশেক ইমাম তিন মঞ্জুর করেন।
একইভাবে গুলশান থানার মামলায় পিয়াসাকে তিন দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন মহানগর হাকিম শহীদুল ইসলাম। আদালতে পিয়াসার পক্ষে আইনজীবী আসিফ ও মৌয়ের পক্ষের আইনজীবী শহীদুল ইসলামস সিদ্দিকী রিমান্ড না মঞ্জুর করে জামিনের আবেদন করেন। তারা দুজনেই তাদের মোয়াক্কেলকে সাজানো মামলায় ফাঁসানো হয়েছে বলে দাবি করেন।
মহানগর দায়রা জজ আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান কৌসুঁলি আবদুল্লাহ আবু ও অন্যান্যরা তাদের আবেদন ও বক্তব্যের বিরোধিতা করেন।
কিসের মডেল, কিসের অভিনয়শিল্পী
‘ওরা কিসের মডেল! কিসের অভিনয়শিল্পী। এত বছরের অভিনয়জীবন, কারও নামই তো শুনলাম না। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও সংবাদমাধ্যমকে অনুরোধ—কাউকে মডেল ও অভিনয়শিল্পী হিসেবে প্রচারের আগে অবশ্যই খতিয়ে দেখবেন। সমাজে এই ধরনের অপকর্মের কারণে সেনসেশন তৈরি হয়। দেশ–বিদেশের মানুষের কাছে সত্যিকারের শিল্পী ও মডেল সম্পর্কে নেতিবাচক ভাবমূর্তি হয়।’ ক্ষোভের সঙ্গে কথাগুলো বলছিলেন জনপ্রিয় অভিনয়শিল্পী ও অভিনয় শিল্পী সংঘের সভাপতি শহীদুজ্জামান সেলিম।
মডেল ও অভিনয়শিল্পী পরিচয়ধারী দুই নারী ফারিয়া মাহবুব পিয়াসা ও মরিয়ম আক্তার মৌকে গত রোববার রাতে ঢাকার বারিধারা ও মোহাম্মদপুর থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। সোমবার মাদক মামলায় পিয়াসা ও মৌকে তিন দিন করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দিয়েছেন আদালত। পুলিশের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালত গতকাল এ আদেশ দেন। মডেল ও অভিনয়শিল্পী হিসেবে তাদের প্রচারের কারণে বিনোদন অঙ্গনের বেশির ভাগ সদস্যের মধ্য মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।
শহীদুজ্জামান সেলিম বলেন, ‘এদের আমরা একদমই চিনি না। এরা কী কাজ করেছে, কখনো সেটাও জানি না। এখানে আমাদের একটা বক্তব্য, সব শিল্পীই শিল্পী নয়, সব মডেলই মডেল নয়। একটা প্রবণতা আমরা ইদানীং দেখছি, একটা ছেলে বা মেয়ে কোথাও অপরাধ করে নিজেদের মডেল বা অভিনয়শিল্পী দাবি করছে। যাঁরা গ্রেপ্তার করেন, তারাও মনে হয়, এসব পরিচয়ে গ্রেপ্তার করতে পুলকিত হন। মডেল অমুক ধরা পড়েছে, সংবাদমাধ্যমেও সেভাবে লেখা হয়। এভাবে লেখা বা প্রচারের কারণে সত্যিকারের শিল্পীরা বিব্রত হন। সমাজের মানুষের কাছে তাদের নেতিবাচক ধারণা তৈরি হয়। অসম্মান করা হয়!’
কথায় কথায় সেলিম বলেন, ‘তার পরিচয় কী? মডেল। সে কি মডেলিং করেছে, কেউ কিন্তু জানি না। তার পরিচয় অভিনয়শিল্পী, কিন্তু সে কিসে অভিনয় করেছে, কেউ বলতে পারবে না। একজন মানুষকে হুটহাট অভিনয়শিল্পী বা মডেল বলাটা সত্যিকারের শিল্পী ও মডেলদের অপমান। এমন ঘটনার কারণে আমাদের আগেও বিড়ম্বনার সম্মুখীন হতে হয়, এখনো হচ্ছে। সংবাদ পরিবেশন এবং গ্রেপ্তারের সময় কেউ যদি অভিনয়শিল্পী বা মডেল দাবি করে, তাহলে কী করেছে তা জানতে চাওয়া অবশ্যই উচিত। সত্যিকারে মডেল ও অভিনয়শিল্পীকে প্রমাণ করারও তো কিছু নাই, তারা সবার কাছে পরিচিত। অখ্যাতরা অপরাধ করে ইন্ডাস্ট্রির সুনাম নষ্ট করছে, এটা তো মানা যায় না।’
শহীদুজ্জামান সেলিম জানালেন, তাদের কয়েকটি সংগঠন রয়েছে। অভিনয়শিল্পী, মডেল, প্রযোজক, পরিচালক, কলাকুশলীরা এসব সংগঠনের সদস্য। সবাই সবাইকে চেনেন। সবার পরিচয়পত্রও আছে। সেলিম বলেন, ‘কোথাও কেউ নিজেকে মডেল বা অভিনয়শিল্পী দাবি করলে আমাদের সংগঠনের যে কাউকে ফোন করলে নিশ্চিত হতে পারবেন। যথার্থতা যাচাই করতে পারবেন, আদৌ তারা অভিনয় বা মডেলিংয়ের সঙ্গে যুক্ত কি না। সমস্ত পরিচালক, প্রযোজক অভিনয়শিল্পী, কলাকুশলীর সাংগঠনিক পরিচয়পত্র আছে।’
অন্যদিকে ডিরেক্টরস গিল্ডের সভাপতি ও অভিনয়শিল্পী সালাহউদ্দিন লাভলু বলেন, ‘আমাদের সময়ে অনলাইন টিভি, ইউটিউব, ফেসবুক এসবের ছড়াছড়ি ছিল না। এক্সপোজারের একমাত্র উপায় ছিল টেলিভিশন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম বা অনলাইনে এখন কোথা থেকে কে কী বানাচ্ছে—লাইকি, টিকটক আরও কী কী অ্যাপ যেন রয়েছে। এসবের মাধ্যমে অনেকে নিজেদের তারকা ভাবা শুরু করছে। এদের নিয়ে আবার বিভিন্ন পণ্য প্রতিষ্ঠানের মাতামাতির শেষ নাই। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যারা খারাপ কাজে লিপ্ত থাকবে, তাদের ধরবে, সাংবাদিকেরা তাদের নিয়ে লিখবে—কিন্তু পরিচয় প্রকাশের আগে একটুখানি খোঁজখবর ও যাচাই–বাছাই নিয়ে দেওয়া উচিত।
আমরা দেখছি, কোনো মডেল ও অভিনয়শিল্পী পরিচয়ধারী কেউ যখন এই ধরনের ঘটনা ঘটায়—আমাদের অঙ্গনের সত্যিকারের শিল্পী ও মডেলদের বিব্রত হতে হয়। সামাজিকভাবে হেয় হতে হয়। মানুষও ঢালাওভাবে নেতিবাচকভাবে দেখা শুরু করে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের তো কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই, যার যা খুশি মুখে আসে লিখে চলছে!’
সালাহউদ্দিন লাভলু বলেন, ‘গ্রেপ্তার দুজনের কাউকে আমরা কখনোই মডেল বা অভিনেত্রী হিসেবে দেখিনি। চিনিও না। শিল্পী সমিতির নেতৃবৃন্দের সঙ্গেও কথা হয়েছে, তারাও বলেছে, এদের চেনে না, জানেও না। বাংলাদেশের ১৮ কোটি মানুষের মধ্যে যদি ধরে নেই ১০–১২ কোটি টেলিভিশন দেখে, তারা কিন্তু এই অঙ্গনের মানুষকে অনেক সম্মান করে। এটা অর্জন করতে অনেক বছর ধরে সময় লেগে যায়। গুটিকয়ের অপকর্মের দায় যেন বিনোদন অঙ্গনের সবার ওপর না পড়ে।
মূল ধারার সঙ্গে এই দুজনের সংশ্লিষ্টতা নেই
গ্রেপ্তার হওয়া দুই নারীকে গণমাধ্যমে মডেল হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেওয়ায় বিব্রত অভিনয়শিল্পী সংঘ। তাদের দাবি, মূল ধারার মডেলিং বা অভিনয়ের সঙ্গে এই দুজনের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই। তারা মনে করে, এমন ঘটনা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এবং ব্যক্তিগতভাবে নাট্য অঙ্গনের মানুষদের নানা ধরনের প্রশ্নের সম্মুখীন করছে। এটা নিয়ে সোচ্চার হয়েছে ছোট পর্দার সংগঠন। তারা লিখিত একটি বিবৃতিতে হতাশা প্রকাশ করেছে। নিচে অভিনয়শিল্পী সংঘের পুরো বিবৃতিটি দেওয়া হলো।
‘ব্যক্তিগত পরিচয়, প্রভাব, কখনো বাহ্যিক সৌন্দর্য, কিছু ক্ষেত্রে কপালের জোরে দু-একটা বিজ্ঞাপন বা নাটকে কাজ করলেই তাকে মডেল বা অভিনেত্রী বলা যায় কি না, সেই ভাবনা জরুরি হয়ে উঠছে। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, কেউ সময় কাটানোর জন্য সামাজিক মাধ্যমে, ঘরোয়াভাবে তৈরি ভিডিওতে অভিনয় করছেন। মডেল হিসেবে হয়তো বাসার পাশের কোনো টেইলরের দোকানে অথবা একটা–দুটো বিলবোর্ডে ছবি আছে, সেও সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজেকে অ্যাক্টর বা মডেল দাবি করছে।
হুট করে এসে কেউ মডেল বা অভিনেতা হয়ে ওঠে না, তা–ও না। তেমন ঘটনাও আছে। কালচারাল অ্যাকটিভিস্ট, বিনোদন জগতের স্টেক হোল্ডার, মডেল বা অভিনেত্রী তকমা নেওয়ার ও দেওয়ার আগে, তার কাজ, কাজের প্রতি আগ্রহ, সামাজিক দায়বদ্ধতা, প্রস্তুতি প্রভৃতি বিষয় বিবেচ্য হওয়া জরুরি।
মডেল বা অভিনয়শিল্পী হয়ে ওঠার জন্য নিষ্ঠা, একাগ্রতা, জ্ঞান, দর্শন, প্রস্তুতি, সামাজিক ও পেশাদার দায়বদ্ধতা প্রয়োজন। শতভাগ একাগ্রতার সঙ্গে নিজেকে তৈরি করতে হয় আরও ভালো কাজের জন্য, শিল্পী হিসেবে পরিপূর্ণতার দিকে এগিয়ে যাওয়ার জন্য। সে ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সংগঠন, সক্রিয় সাংস্কৃতিক সংগঠন, অভিজ্ঞ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ তার আগ্রহ ও নিষ্ঠাকে গুরুত্ব দেন। তাদের চেষ্টাকে গাইড করে, তার মধ্যে শিল্পী হয়ে ওঠার আকাঙ্ক্ষা তৈরি করে। বাংলাদেশের এমন প্রচুর অভিনয়শিল্পী ও মডেল তাঁদের কাজ দিয়ে সম্মান অর্জন করেছেন, পরিবারের জন্য গর্ব হয়েছেন, পেয়েছেন মানুষের অকুণ্ঠ ভালোবাসা, সামাজিক ও জাতীয় স্বীকৃতি, হয়েছেন কোটি মানুষের আদর্শ।
কোথাও পুলিশি অভিযানে ধরপাকড় হলে অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায়, হেডলাইন হয় অমুক মডেল বা অভিনেতা–অভিনেত্রী গ্রেপ্তার, যা অবধারিতভাবে হয়ে ওঠে আকর্ষণীয় সংবাদ। এ ধরনের হেডলাইন, সর্বজনশ্রদ্ধেয়, প্রথিতযশা অভিনেতা-অভিনেত্রী, মডেলসহ বিনোদনমাধ্যমে নিষ্ঠার সঙ্গে কর্মরত সবার জন্য সামাজিকভাবে অত্যন্ত বিব্রতকর এবং অসম্মানজনক হয়ে ওঠে।
যারা নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব নিয়ে এই কাজ করেন, তাদের প্রায়ই আত্মীয় ও বন্ধুবান্ধবের কাছ থেকে শুনতে হয়, “দেখলাম তোমাদের এক মডেল/অভিনেতা এই করেছে”—এ রকম শ্লেষাত্মক কথা। এ ছাড়া এই পেশার মানুষ সম্পর্কে একধরনের অনাস্থা ও অসম্মান তৈরি হয় সমাজে, যা হয়ে উঠতে পারে অপ্রত্যাশিত সোশ্যাল ট্যাবু। গণমাধ্যম কাকে অভিনেতা, অভিনেত্রী বা মডেল বলবে, তার ওপরই নির্ভর করে এই পরিস্থিতি তৈরি হবে কি না?
এত এত সম্মানিত ব্যক্তি নানান প্রতিকূলতার মধ্যে স্বপ্নপূরণের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন। পরিশ্রমী এবং ভবিষ্যতে বিনোদনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে কাজ করে নিজের প্রতিভার স্বাক্ষর রাখতে উদ্‌গ্রীব নতুন প্রজন্ম। তাদের এই রকম বিব্রতকর প্রশ্নের সম্মুখীন যেন না হতে হয়, সেটা দায়িত্বশীলতার সঙ্গে নিশ্চিত করার দায়িত্ব অনেকটাই আপনাদের। তাই গণমাধ্যম যখন হেডলাইন করবে, সংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলো থেকে যাচাই এবং সংশ্লিষ্ট কাজে তার নিষ্ঠা ও তার অবদান গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করে পেশা উল্লেখ করবে, এটাই প্রত্যাশিত।’
অভিনেত্রী জয়া আহসান, ফজলুর রহমান বাবু, সাজু খাদেমসহ একাধিক শিল্পী অভিনয়শিল্পী সংঘের এই লিখিত বক্তব্য ফেসবুকে শেয়ার করেছেন।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ