বৃহস্পতিবার | ১৩ জুন ২০২৪
Cambrian

তালেবান কি সন্ত্রাসী তকমা ঘোচাতে পারবে?

spot_img
spot_img
spot_img

লেখা : ফাওয়াজ এ. জর্জেস
অধ্যাপক, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ, জর্জেস লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিকস।
(ইংরেজি থেকে বাংলায় অনূদিত)

তাড়াহুড়া করে আফগানিস্তান থেকে সেনা সরিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন মারাত্মক ভুল করেছেন—এই কথার পক্ষে-বিপক্ষে অনেক যুক্তিতর্ক আছে। যেমন মার্কিন সিনেটের সংখ্যালঘু নেতা মিচ ম্যাককোনেল তালেবানের এই ঝড়ের গতিতে ক্ষমতা দখল করাকে যুক্তরাষ্ট্রের জন্য ‘১৯৭৫ সালে ভিয়েতনামের সায়গন পতনের চেয়ে অপমানজনক’ বলে আখ্যায়িত করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ জেনারেলরা, রক্ষণশীল নেতারা এমনকি কিছু উদারপন্থী নেতাও জোর দিয়ে বলেছেন, ক্ষমতায় চলে আসা তালেবান অচিরেই আন্তর্দেশীয় সন্ত্রাসবাদী চেহারা নিয়ে পুনরুত্থিত হবে।
এটি সোজাসাপ্টা ভবিষ্যদ্বাণী। ইসলামপন্থী জঙ্গি গ্রুপ হিসেবে তালেবান অবধারিতভাবেই আল–কায়েদা, আইএসসহ অন্য সম্ভাব্য উগ্রপন্থী গ্রুপগুলোকে আশ্রয় প্রশ্রয়, প্রশিক্ষণ ও আক্রমণ পরিকল্পনা দেবে এবং পশ্চিমাবিরোধী নানা ধরনের হামলায় তারা সহায়তা দেবে বলে আন্দাজ করা যায়। ম্যাককোনেল হুঁশিয়ারি দিয়েছেন, আগামী মাসে আল–কায়েদা এবং তালেবান ‘কাবুলে মার্কিন দূতাবাসে আগুন দিয়ে’ ২০০১ সালে চালানো নাইন ইলেভেন হামলাখ্যাত টুইন টাওয়ারে বিমান হামলার ২০ বছর পূর্তি উদ্‌যাপন করবে।
তবে এই ধারণায় একটি ত্রুটি আছে। এই মূল্যায়নে মনে হবে যেন তালেবান ও আল–কায়েদার মধ্যে তেমন কোনো পার্থক্যই নেই। তারা একই মুদ্রার এপিঠ-ওপিঠ। কিন্তু বাস্তবতা হলো, তালেবান ও আল–কায়েদা অভিন্ন ধর্মীয় মতাদর্শ ও বিশ্বভাবনার অনুসারী হলেও লক্ষ্যের দিক থেকে তাদের মধ্যে অনেক বড় ফারাক আছে। তালেবান আফগানিস্তানে শরিয়া আইনে পরিচালিত একটি ইসলামি আমিরাত প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে লড়াই করেছে। তাদের ভাষ্যমতে, দেশের বাইরে তাদের এই ইসলামি শাসন সম্প্রসারণের কোনো উচ্চাভিলাষ নেই। অন্যদিকে আল–কায়েদার কোনো জাতীয়তার পরিচয় নেই, কোনো ভৌগোলিক সীমানায় থাকার মতাদর্শেও তাদের বিশ্বাস নেই। এটি একটি সীমান্তবিহীন আন্দোলন। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে তাদের শাখা আছে। যেকোনো মূল্যে, এমনকি সহিংসতা দিয়ে হলেও দুনিয়ার সবখানে তারা তাদের মতাদর্শ ছড়িয়ে দিতে চায়।
লক্ষ্য করার মতো আরও একটি বিষয় হলো, এখন যে আল–কায়েদার অস্তিত্ব মেলে, তা আসলে আল–কায়েদার আগেকার আদলের ছায়ামাত্র। আফগানিস্তান ও পাকিস্তানে আল–কায়েদার আস্তানাগুলোর ওপর নির্বিচার বিমান হামলার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র আল–কায়েদার সক্ষমতাকে এতটাই কমিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে যে আল–কায়েদার পক্ষে এখন আর আগের মতো পশ্চিমা স্বার্থের ওপর আঘাত হানা সম্ভব হবে না। অন্যদিকে, আন্তর্দেশীয় জিহাদিরা এখন আর আফগানিস্তানে নেই। তারা এখন মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকা এবং দক্ষিণ এশিয়ার অন্য দেশগুলোতে ছড়িয়ে পড়েছে।
অবশ্য কেউ এমন যুক্ত তুলতেই পারেন, তালেবানের আশ্রয়ে গিয়ে আল–কায়েদা নিরাপদ আস্তানা গেড়ে আবার আফগানিস্তানে সংগঠিত হতে পারে। সেখান থেকে তারা পশ্চিমা স্বার্থে আবার আঘাত হানতে পারে। এমন আশঙ্কা একেবারে উড়িয়ে দেওয়া যায় না। তবে এটি করতে গেলে তাদের মধ্যে যে ধরনের ক্যারিশমাটিক নেতা ও দক্ষ ক্যাডার বাহিনী থাকা দরকার, তা তাদের আপাতত নেই। এমনকি আল–কায়েদার আধ্যাত্মিক নেতা আয়মান আল জাওয়াহিরি বেঁচে আছেন কি না, তা কারও কাছে এখনো পরিষ্কার নয়।
এর চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিক হলো, তালেবান তাদের দেশে আল–কায়েদাকে নতুন করে ঘাঁটি গাড়ার অনুমতি দেবে বলে মনে হয় না। অন্তত আপাতত সে আশঙ্কা একেবারেই নেই। গত ফেব্রুয়ারিতে দোহায় ট্রাম্প প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত বৈঠকে তালেবান নেতারা আফগানিস্তানের মাটিতে থেকে পশ্চিমা স্বার্থের বিরুদ্ধে আল–কায়েদাকে কোনো তৎপরতা চালাতে দেবে না বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। সে প্রতিশ্রুতি তাঁরা এখনই লঙ্ঘন করবেন বলে মনে হয় না।
এক বছর ধরে তালেবান জোরালো কূটনৈতিক তৎপরতা চালিয়েছে। তারা তাদের প্রধান শত্রু আমেরিকা, রাশিয়া, ইরানসহ অনেক দেশের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কূটনৈতিক যোগাযোগ রেখেছে। তারা আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি ও বৈধতার মাধ্যমে আফগানিস্তানে তাদের নিয়ন্ত্রণকে পাকাপোক্ত করার চেষ্টা করে গেছে। এখন আল–কায়েদাকে যদি তারা আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয়, তাহলে সেই আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি ও বৈধতা পাওয়ার পথ বন্ধ হয়ে যাবে। তালেবান ভালো করেই জানে, তাদের আশ্রয়ে থেকে আল–কায়েদা ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর টুইন টাওয়ারে যে হামলা চালিয়েছিল, সেই হামলার কারণে তাদের দেশছাড়া হতে হয়েছিল। ২০ বছর পর তারা আবার ক্ষমতায় এসেছে। এখন আবার তারা একই কাজ করলে আবার তাদের ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার ঝুঁকি আছে।
তবে তালেবানের ক্ষমতারোহণে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই—ব্যাপারটা এমনও নয়। তাদের সুশৃঙ্খল সামরিক তৎপরতার মধ্য দিয়ে তারা বিজয়ী হলেও এই আন্দোলন রাজনৈতিকভাবে একচেটিয়া নয়। অনেক প্রতিদ্বন্দ্বী উপদল তালেবানের মধ্যে আছে। এসব উপদলের কোনো কোনোটি আল–কায়েদা কিংবা পাকিস্তানের উগ্র কোনো গোষ্ঠীর সঙ্গে আঁতাত গড়ে তুলতেই পারে। এ ধরনের নজির আছে। নব্বইয়ের দশকে তালেবানের মজলিসে শুরার বেশির ভাগ সদস্য আন্তর্জাতিক চাপের মুখে পড়ে আল–কায়েদা নেতা ওসামা বিন লাদেনকে আফগানিস্তান থেকে বের করে দেওয়ার পক্ষে মত দিয়েছিলেন। এরপরও শুরাপ্রধান মোল্লা মোহাম্মাদ ওমর লাদেনকে আশ্রয় দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। বিশ্ব যখন স্পষ্টভাবে নাইন ইলেভেন হামলা প্রত্যক্ষ করল, তখন লাদেনের কারণে তালেবানকে ক্ষমতাচ্যুত হতে হলো।
তালেবান যেহেতু আগে আল–কায়েদাকে দুহাত বাড়িয়ে স্বাগত জানিয়েছিল, সেহেতু আল–কায়েদার বাইরের অন্যান্য সন্ত্রাসী গ্রুপ তালেবানের ক্ষমতায় ফেরার সুযোগ নেওয়ার আশা করতে পারে। কিন্তু বাস্তবতা হলো, তালেবান এর আগে আল–কায়েদাকে যতটা আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়েছিল, আইসিসকে ততখানিই প্রত্যাখ্যান করেছে। বলা যায়, আইএসের বিরুদ্ধে তারা লড়াই করে আইএসের নিয়ন্ত্রিত এলাকাকে নিজেদের নিজেদের নিয়ন্ত্রণে এনেছে।
এখন আফগানিস্তান আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদের সূতিকাগার হতে পারে—এমন ধারণাকে বিশ্বের একেবারে অগ্রাহ্য করা ঠিক হবে না। আবার তালেবানের ক্ষমতায় থাকার কারণে দেশটিতে মানবাধিকার পরিস্থিতি একেবারে ধূলিসাৎ হয়ে যাবে এমন আশঙ্কায় স্থির হয়ে থাকাও উচিত হবে না। আফগানিস্তান থেকে পালাতে সাধারণ আফগান নাগরিক যেভাবে মরিয়া হয়ে বিমানে উঠেছে এবং সেই ছবি যেভাবে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে এসেছে, তা দেখে এটি স্পষ্ট হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা তাদের সহযোগী সাধারণ আফগানদের বিপদের মুখে ফেলে চলে গেছে। এই অবস্থায় তালেবান যদি সর্বোচ্চ সহিষ্ণুতা দেখিয়ে সর্বস্তরের মানুষের আস্থা অর্জন করতে পারে, তাহলে হয়তো তার গা থেকে সন্ত্রাসী তকমা মুছতে পারে।

● ফাওয়াজ এ. জর্জেস লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিকসের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ের অধ্যাপক

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ