বৃহস্পতিবার | ১৩ জুন ২০২৪
Cambrian

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে চিরুনি অভিযান

spot_img
spot_img
spot_img

নিজস্ব প্রতিবেদক
করোনার মধ্যেই ডেঙ্গুর হানায় আতঙ্কে রাজধানীবাসী। নির্মাণাধীন ভবনে গেলেই মিলছে এডিসের লার্ভা। ঢাকার দুই সিটিতে দ্বিতীয় দফায় চিরুনি অভিযানের প্রথম দিন বেশ কয়েকটি ভবনের মালিককে জরিমানা করা হয়। কিন্তু সাধারণ মানুষ সচেতন না হলে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হবে না বলে জানিয়েছেন নগর কর্তৃপক্ষ।নির্মাণাধীন ভবনে দীর্ঘদিন ধরে জমে থাকা পানি এবং আবর্জনা মিলেমিশে একাকার। এর থেকেই তৈরি হচ্ছে এডিসের লার্ভা। যা মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকির কারণ। সে লক্ষ্যেই ৭ আগস্ট পর্যন্ত এই কার্যক্রম পরিচালিত হবে।

মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) রাজধানীর মিরপুরের রূপনগর এলাকা থেকে এই অভিযানের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। চিরুনি অভিযানের উদ্বোধন করেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সেলিম রেজা।
দ্বিতীয় দফার চিরুনি অভিযানের প্রথম দিন সকাল ১০টা থেকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ১০টি অঞ্চলের ৫৪টি ওয়ার্ডে ছেটানো হয় লার্ভিসাইড। অভিযানে যেসব ভবনে এডিসের লার্ভা পাওয়া যাচ্ছে, সেই ভবনের মালিককে জরিমানা করছেন ভ্রাম্যমান আদালত।
এ সময় ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সেলিম রেজা বলেন, আমরা বেশ কয়েকটি ভবনে জমানো পানি পেয়েছি। আমরা মালিককে খুঁজছি, পেলে জরিমানা করা হবে আর না পেলে মামলা করা হবে।
তিনি বলেন, ডেঙ্গুর বিস্তার রোধে সবাইকে সচেতন হতে হবে। সবার মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যেই আমাদের এই চিরুনি অভিযান। তাই আগের সময়গুলোর চেয়ে এবার মোবাইল কোর্ট বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে বলেও জানান সেলিম রেজা।

নগরবাসী বলছেন, নিজে সচেতন হয়েও পাশের নির্মাণাধীন ভবনের কারণে ডেঙ্গু আক্রান্তের ঝুঁকিতে আছেন তারা।
গত বছর মশক নিধনে ওষুধের কার্যকারিতা নিয়ে যে প্রশ্ন উঠেছিল, এবার সে বিষয়ে সতর্ক অবস্থানের কথা জানিয়েছেন ডিএনসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জোবায়দুর রহমান।
তিনি বলেন, ওষুধ তিনটি ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়। সব নিশ্চিত হওয়ার পরই ওষুধ মাঠে প্রয়োগ করা হয়। মানুষ যদি একটু সচেতন হয়, তাহলে ৮০ শতাংশ মশা নিয়ন্ত্রণ সম্ভব। সাধারণ নাগরিকদের সচেতন করতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।
শুক্রবার বিরতি দিয়ে দ্বিতীয় দফার এই অভিযান চলবে আগামী ৭ আগস্ট পর্যন্ত।
এর আগে গত ১১ থেকে ১৯ জুলাই পর্যন্ত এডিস মশা নির্মূলে চিরুনি অভিযান পরিচালনা করে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন।
ডিএনসিসির জনসংযোগ কর্মকর্তা আবুল বাশার মোহম্মদ তাজুল ইসলামের দেওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, এ ক’দিনে মোট ৫৪ ওয়ার্ডে ৮৮ হাজার ৬১৬টি স্থাপনা পরিদর্শন করে মোট ৫৮২টি স্থানে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায়। এ সময় মোট ৬৫ হাজার ২৬২ স্থাপনায় লার্ভিসাইড স্প্রে করেন মশক নিধন কর্মীরা। নিয়মিত ১২টি ও ভ্রাম্যমাণ আদালতে মোট ৮৯টি মামলায় জরিমানা আদায় করা হয় ১০ লাখ ৮৯ হাজার টাকা।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ