বৃহস্পতিবার | ১৩ জুন ২০২৪
Cambrian

ডা. নাজনীন হত্যায় আমিনুলের মৃত্যুদন্ড বহাল

spot_img
spot_img
spot_img

রাজধানীর সেন্ট্রাল রোডে ১৬ বছর আগে চিকিৎসক নাজনীন আক্তার ও তার গৃহকর্মীকে হত্যার ঘটনায় আসামি আমিনুল ইসলামের মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখেছে আপিল বিভাগ।

মৃত্যুদণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে আসামির জেল-আপিল খারিজ করে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে ছয় বিচারকের ভার্চুয়াল আপিল বেঞ্চ সোমবার এ রায় দেয়।

সর্বোচ্চ আদালতে আসামিপক্ষে শুনানি করেন রাষ্ট্র নিযুক্ত আইনজীবী এবিএম বায়েজীদ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ।

মামলার বিবরণে বলা হয়, ল্যাব এইডের চিকিৎসক নাজনীন আক্তারের স্বামী আসারুজ্জামানের বড় বোনের ছেলে আমিনুল ইসলামকে লেখাপড়া করানোর জন্য ঢাকায় নিয়ে এসেছিল ওই পরিবার। তাকে ভর্তি করা হয়েছিল মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় কলেজে।

২০০৫ সালের ৭ মার্চ হাসপাতাল থেকে বাসায় ফেরার পর নাজনীনকে কুপিয়ে হত্যা করেন ভাগ্নে আমিনুল। গৃহকর্মী পারভীন আক্তার পারুল তা দেখে ফেললে তাকেও কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

এরপর বগুড়ায় চলে যান আমিনুল। সেখান থেকে ফরিদপুরে গিয়ে শরিফুল ইসলাম নাম নিয়ে রোজ ৫০ টাকা পারিশ্রমিকে এক বাড়িতে কাজ নেন।

এভাবে আত্মগোপনে থাকার সময় ডিবি পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। পরে হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে আমিনুল আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

ওই ঘটনায় ধানমন্ডি থানায় করা হত্যা মামলায় ২০০৮ সালের ২৯ মে ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-৪ আমিনুলকে মৃত্যুদণ্ড দেয়।

নিয়ম অনুযায়ী এ মৃত্যুদণ্ডদেশ অনুমোদনের আবেদন (বিচারিক আদালতের রায়সহ মামলার আনুসঙ্গিক নথি, যা ডেথ রেফারেন্স হিসেবে পরিচিত) হাই কোর্টে পাঠানো হয়। আর এদিকে রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে আমিনুল।

আপিল এবং ডেথ রেফারেন্সর শুনানির পর আমিনুলকে দেওয়া বিচারিক আদালতের মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল রাখে হাই কোর্ট। ২০১৩ সালের ১০ অক্টোবর সেই রায় হয়।

এরপর হাই কোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে জেল আপিল করে আমিনুল। শুনানি শেষে সোমবার আপিলটি খারিজ করে দিয়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশই বহাল রাখল সর্বোচ্চ আদালত।

রায়ে বলা হয়, “আপিল খারিজ করা হল। বিচারিক আদালতের দেওয়া মৃত্যুদণ্ডাদেশ; যা হাই কোর্ট বহাল রেখেছিল তা বহাল রাখা হল।”

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ পরে সাংবাদিকদের বলেন, “আমিনুল ইসলাম তার মামি ও ওই বাসার গৃহকর্মী পারুলকে বটি দিয়ে কুপিয়ে নৃসংশভাবে হত্যা করে। নাজনীনের গলা ও শরীরে সাতটি আর গৃহকর্মী পারুলের শরীরে ১৮টি কোপের চিহ্ন ছিল।

“এ হত্যাকাণ্ডের দায়ে বিচারিক আদালত মৃত্যুদণ্ড দিয়ে যে রায় দিয়েছিল, সেটিই বহাল রাখা হয়েছে আপিল বিভাগের রায়ে।”

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ