শনিবার | ২ মার্চ ২০২৪
Cambrian

টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসরে মাহমুদউল্লাহ

spot_img
spot_img
spot_img

জিম্বাবুয়ের মাঠে নামার আগে বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা মাঠের পাশে সারি বেঁধে মুখোমুখি দাঁড়ালেন। তাদের করতালির মধ্য দিয়ে হেঁটে মাঠে ঢুকলেন মাহমুদউল্লাহ। এরপর তাঁর পিছু পিছু অন্যরা। টেস্টের শেষ দিন রোববার সকালে হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠের দৃশ্য এটি। আর এর মধ্য দিয়ে ৫০তম টেস্ট খেলেই মাহমুদউল্লাহ বিদায় জানালেন টেস্ট ক্রিকেটকে। এর আগে নামার সময় মাহমুদউল্লাহ পেলেন সতীর্থদের গার্ড অব অনার। মোট কথা টেস্ট ক্রিকেটে আজই তার শেষ দিন। মনে রাখার মতো এক ইনিংস খেলেই অবসর নিলেন মাহমুদউল্লাহ।
যদিও শনিবার রাতেও সতীর্থরা বা সংশ্লিষ্ট কেউই মাহমুদউল্লাহর টেস্ট ক্রিকেট থেকে বিদায় নেয়ার বিষয়ে নিশ্চত ছিলেন না। বেশীরভাগের দারণা ছিল, যা হবার তা ঢাকায় ফিরে হবে। কিন্তু না, সেই সময় আর দেননি মাহমুদউল্লাহ।
এর আগে টেস্টের তৃতীয় দিনে দলের বা বোর্ডের কারও সঙ্গে আলোচনা না করেই ড্রেসিংরুমে সতীর্থ খেলোয়াড়, কোচ ও দলের সঙ্গে থাকা কর্মকর্তাদের উদ্দেশে মাহমুদউল্লাহ জানিয়ে দেন, চলতি হারারে টেস্টের পর আর সাদা পোশাকের ক্রিকেট খেলবেন না তিনি। টেস্টে নিজের আরও একবার নিজের সামর্থ্য দেখানোর ছিল তাঁর। সেঞ্চুরি করে সেটি দেখিয়ে দিয়েছেন।
এ বিষয়ে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান সাংবাদিকদের বলেন, ঢাকা থেকে তিনিও এ রকম একটা কিছু শুনেছেন মাহমুদউল্লাহর এমন সিদ্ধান্তে ক্ষোভও প্রকাশ করেন নাজমুল হাসান। জিম্বাবুয়ে আসার আগে অন্য ক্রিকেটারদের মতো মাহমুদউল্লাহও বোর্ডকে লিখিতভাবে জানিয়েছেন ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা। জাতীয় দলের টি–টোয়েন্টি অধিনায়ক নাকি সেখানে লিখেছেন, ভবিষ্যতে তিনি তিন সংস্করণের ক্রিকেটই খেলতে চান। সে জন্যই তাঁকে জিম্বাবুয়ের টেস্ট দলে নেওয়া হয়েছে। তা ছাড়া একটা টেস্টের মাঝখানে অবসরের কথা বলে মাহমুদউল্লাহ ঠিক করেননি বলেও মন্তব্য করেন বিসিবি সভাপতি।

৫০ টেস্টের ক্যারিয়ারে (চলতি হারারে টেস্টসহ) ৩৩.৪৯ গড়ে মাহমুদউল্লাহ রান করেছেন ২৯১৪। সেঞ্চুরি ৫টি ও ফিফটি ১৬টি। বল হাতে নিয়েছেন ৪৩ উইকেট।

হারারে টেস্টের আগে গত বছর ফেব্রুয়ারিতে রাওয়ালপিন্ডিতে সর্বশেষ টেস্ট খেলেন মাহমুদউল্লাহ। জাতীয় দলের কোচ রাসেল ডমিঙ্গো এরপরই তাঁকে জানিয়ে দেন, মাহমুদউল্লাহ যেন টেস্ট খেলার চিন্তা বাদ দিয়ে শুধু সাদা বলের ক্রিকেটেই মনোযোগ দেন। এরপর বাংলাদেশ দলের টানা পাঁচটি টেস্টে মাহমুদউল্লাহ ছিলেন না। প্রথমে ছিলেন না জিম্বাবুয়ে সিরিজের দলেও। তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহিমের চোটের কারণে পরে তাঁকে দলভুক্ত করা হয়।

ব্যাট হাতে বঞ্চনার জবাবটা ভালোভাবেই দিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ। হারার টেস্টের প্রথম ইনিংসে দলের ব্যাটিং বিপর্যয়ের মুখে বাঁধ দিয়ে খেলেছেন ক্যারিয়ারসেরা অপরাজিত ১৫০ রানের ইনিংস। এরপর দ্বিতীয় ইনিংসে সাদমান ইসলাম ও নাজমুল হোসেনের সেঞ্চুরি আজ শেষ দিনে জয়ের স্বপ্নই দেখাচ্ছে বাংলাদেশকে।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ