মঙ্গলবার | ২১ মে ২০২৪
Cambrian

টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতল বাংলাদেশ

spot_img
spot_img
spot_img

নিজস্ব প্রতিবেদক
রোববার সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে ৫ উইকেটে জিতেছে বাংলাদেশ। শুরুতে ব্যাটিংয়ে নেমে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৯৩ রানের বিশাল সংগ্রহ পায় জিম্বাবুয়ে। জবাবে ৪ বল হাতে রেখেই জয় তুলে নেয় বাংলাদেশ। বাংলাদেশের এটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান তাড়ায় জয়।
টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজে স্বাগতিকদের ধবলধোলাই করার পর টি-টোয়েন্টি সিরিজে মাহমুদউল্লাহবাহিনীর জয় এলো ২-১ ব্যবধানে।
সৌম্য সরকারের ব্যাটে জয় দেখছিল বাংলাদেশ। তবে মাঝে টানা উইকেট পতনের পর ম্যাচের মোড় ঘুরে যায়।
কিন্তু শেষদিকে মাত্র দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলতে নামা তরুণ শামীম হোসেনের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে দুর্দান্ত জয় তুলে নেয় টাইগাররা। সেই সঙ্গে টেস্ট ও ওয়ানডের পর টি-টোয়েন্টি সিরিজও জিতে নিল বাংলাদেশ।
বিশাল লক্ষ্য তাড়ায় নেমে দলীয় ২০ রানের মাথায় ওপেনার নাঈম শেখ সাজঘরে বিদায় নেন ৩ রান করে। বেশিক্ষণ খেলেতে পারেননি সাকিবও। ১৪ বলে ১ চার ২ ছক্কায় ২৫ রান তিনিও সাজঘরের দিকে হাঁটেন। তবে বিদায়ের আগে সৌম্যর সঙ্গে তার জুটিতে আসে ৩২ বলে ৫০ রান। এরপর মাহমুদউল্লাহকে নিয়ে লড়াই শুরু সৌম্য সরকারের।

শুরুটা ধীরগতির হলেও সময়ের সঙ্গে হাত খুলে খেলতে থাকেন সৌম্য। ৪০ বলে তুলে নেন ফিফটিও। এরপর দ্রুতগতিতে রান তুলতে গিয়ে লুক জঙওয়ের বলে লং অফে থাকা বদলি খেলোয়াড় মুসাকান্দার হাতে ক্যাচ তুলে দেন সৌম্য। তবে বিদায়ের আগে তিনি ৪৯ বলে ৯ চার ও ১ ছক্কায় খেলেন ৬৮ রানের দারুণ এক ইনিংস। রিয়াদের সঙ্গে গড়েন ৩৫ বলে ৬৩ রানের জুটি।

বাংলাদেশের ইনিংসের ১৫তম ওভারে আসে মাত্র ২ রান। মুজারাবনির করা ওভারের প্রথম দুই বলে সিঙ্গেল আসার পর ওই আর কোনো রান নিতে পারেননি মাহমুদউল্লাহ। পরের ওভারে ছক্কা হাঁকানোর পর ওয়েলিংটন মাসাকাদজার বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন আফিফ হোসেন। দুই ছক্কায় ৪ বলে ১৪ রান করেন এই বাঁহাতি।

আফিফের পর ক্রিজে নামা শামীম হোসেনকে নিয়ে লড়াই চালিয়ে যান মাহমুদউল্লাহ। দুজনে মিলে ১৭তম ওভারে ১২ রান তোলে ব্যবধান কমিয়ে আনেন দুজনে। শেষ ১৮ বলে দরকার ছিল ২৮ রান। ১৮তম ওভারে রিয়াদ সিঙ্গেল নেওয়ার পর শেষ তিন বলে তিন চার হাঁকান শামীম। ওভারে আসে ১৫ রান। ফলে শেষ দুই ওভারে লক্ষ্য দাঁড়ায় ১৩ রান।

মুজারাবানির করা ইনিংসের ১৯তম ওভারেও শামীম ঝলকের দেখা মেলে। তরুণ এই ব্যাটসম্যান ওভারের দ্বিতীয় বলে বাউন্ডারি হাঁকান। কিন্তু চতুর্থ বলে ক্যাচ তুলে দিয়ে বিদায় নেন মাহমুদউল্লাহ। টাইগার দলপতি ২৮ বলে ২ চার ও ১ ছক্কায় ৩৪ রান করেন।

শেষ ওভারে বাংলাদেশের লক্ষ্য দাঁড়ায় ৫ রান। শামীম প্রথম বলে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে স্কোরে সমতা টানেন। পরের বলে সিঙ্গেল নিয়ে জয় নিশ্চিত করেন তিনি। শামীম মাত্র ১৫ বলে ৬ চারে ৩১ রানে অপরাজিত থাকেন।

এর আগে হারারেতে আগে ব্যাট করে বাংলাদেশের সামনে পাহাড়সম লক্ষ্য ছুঁড়ে দেয় স্বাগতিকরা। ওপেনার ওয়েসলে মাধেভেরের ৫৪, রেগিস চাকাভার ৪৮, তিদওয়ানশে মারুমানির ২৭, ডিওন মায়ার্সের ২৩ ও শেষদিকে রায়ান বার্লের অপরাজিত ৩১ রানে ভর করে ১৯৩ রান তুলেছে দলটি। যা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে জিম্বাবুয়ের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান।

বাংলাদেশের পক্ষে ২ উইকেট নিয়েছেন সৌম্য সরকার। ১টি করে উইকেট নিয়েছেন সাইফউদ্দিন, শরীফুল ও সাকিব।

ম্যাচ ও সিরিজ সেরা নির্বাচিত হয়েছেন সৌম্য সরকার।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: বাংলাদেশ ১৯.২ ওভারে ১৯৪/৫ (জিম্বাবুয়ে ২০ ওভারে ১৯৩/৫)

দারুণ রান তাড়া

উইকেট ব্যাটিং সহায়ক হলেও ১৯৪ রান তাড়া সহজ নয় কখনোই। সৌম্যর ফিফটি ও সম্মিলিত ব্যাটিং পারফরম্যান্সে সেই লক্ষ্য ছুঁয়ে ফেলল বাংলাদেশ। তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতে নিল ২-১ ব্যবধানে।

২ উইকেট নেওয়ার পর ৬৮ রানের ইনিংস খেলে ম্যাচের সেরা সৌম্য সরকার।

বাংলাদেশের এটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান তাড়ায় জয়। ২০১৮ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে কলম্বোতে ২১৫ রান তাড়ায় জয়টিই কেবল এগিয়ে।

দ্বিপাক্ষিক টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের চতুর্থ সিরিজ জয় এটি। তিনটি জয়ই এলো দেশের বাইরে।

এবারের জিম্বাবুয়ে সফরে একমাত্র টেস্ট, তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের সবকটি জয়ের পর টি-টোয়েন্টি সিরিজও জিতল বাংলাদেশ।

জিম্বাবুয়ে: ২০ ওভারে ১৯৩/৫ (মারুমানি ২৭, মাধেভেরে ৫৪, চাকাভা ৪৮, রাজা ০, মায়ার্স ২৩, বার্ল ৩১*, জঙ্গুয়ে ১*; তাসকিন ২-০-২৮-০, সাইফ ৪-০-৫০-০, শরিফুল ৪-০-২৭-১, সাকিব ৪-০-২৪-১, নাসুম ৩-০-৩৭-০, সৌম্য ৩-০-১৯-২)।

বাংলাদেশ: ১৯.২ ওভারে ১৯৪/৫ (নাঈম ৩, সৌম্য ৬৮, সাকিব ২৫, মাহমুদউল্লাহ ৩৪, আফিফ ১৪, শামীম ৩১*, সোহান ১*; রাজা ১-০-১৩-০, চাতারা ৪-০-২৭-০, মুজারাবানি ৪-০-২৭-২, মায়ার্স ৪-০-৪২-০, জঙ্গুয়ে ৩-০-৪২-২, মাসাকাদজা ৩.২-০-৩৭-১)।

বাংলাদেশের জয়

আগ্রাসী ব্যাটিংয় শেষ সময়ের দাবি মেটালেন শামীম হোসেন। তার দারুণ ক্যামিওতে লক্ষ্য ছুঁয়ে ফেলল বাংলাদেশ ৪ বল বাকি রেখে। ৫ উইকেটের জয়ে বাংলাদেশ জিতে নিল সিরিজ।

ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক ম্যাচেই ১৫ বলে ৩১ রান করে অপরাজিত শামীম। আগের ম্যাচে করেছিলেন ১৩ বলে ২৯।

১৫ বলে যখন দরকার ২৫ রান, ডিওন মায়ার্সের বলে শামীমের টানা তিন বাউন্ডারিতে সমীকরণ হয়ে ওঠে সহজ। শেষ ওভারে প্রয়োজন পড়ে ৫ রানের। শামীম প্রথম বলেই মারেন বাউন্ডারি। পরের বলে সিঙ্গেল নিয়ে জয়।

দুর্দান্ত ক্যাচ

জয় যখন নাগালে, মাহমুদউল্লাহ আউট হলেন রেজিস চাকাভার দারুণ ক্যাচে।

অফ স্টাম্পের অনেক বাইরের বলে ব্যাট চালান মাহমুদউল্লাহ। কানায় লেগে বল যায় পেছনে। ডানদিকে ঝাঁপিয়ে বল গ্লাভসবন্দি করেন চাকাভা।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ