বুধবার | ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
Cambrian

জামালপুর-বগুড়া রুটে চালু হচ্ছে ফেরি

spot_img
spot_img
spot_img

প্রিয়দেশ ডেস্ক
বগুড়ার সারিয়াকান্দির কালিতলা খেয়াঘাট থেকে জামালপুরের মাদারগঞ্জের জামথল রুটে ফেরি চালু হচ্ছে। আগামী ১২ আগস্ট ফেরি সার্ভিসের উদ্বোধন করবেন নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। এতে এই অঞ্চলের মানুষ স্বল্প সময়ে রাজধানীসহ আশপাশের বিভিন্ন জেলায় যেতে পারবেন।
ইতোমধ্যে ঘাটে প্লাটুন এসে পৌঁছেছে। শিগগিরই সি ট্রাক (ফেরি) আসবে। দীর্ঘ প্রতীক্ষিত ফেরি সার্ভিস চালুর খবরে দুই পাড়ের মানুষের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা বিরাজ করছে।
স্থানীয়রা জানায়, সারিয়াকান্দির কালিতলা ও মথুরাপাড়া খেয়াঘাট থেকে প্রতিদিন শত শত মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নৌকায় ওপারে মাদারগঞ্জ ও অন্যান্য এলাকায় যাতায়াত করেন। আমলাতান্ত্রিক জটিলতাসহ নানা কারণে সারিয়াকান্দি-মাদারগঞ্জ রুটে ফেরি সার্ভিস চালুর বিষয়টি দীর্ঘদিন ধরে ঝুলে ছিল। সম্প্রতি আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম এমপির প্রচেষ্টায় নৌপথ চালুর উদ্যোগ নেওয়া হয়।
এই রুটে ফেরি চালু হলে বগুড়াসহ এ অঞ্চলের মানুষ, উৎপাদিত কৃষিপণ্য, হালকা ইঞ্জিনিয়ারিং সামগ্রীসহ অন্যান্য পণ্য স্বল্প সময় ও খরচে রাজধানীসহ আশপাশের জেলায় নিতে পারবেন। বঙ্গবন্ধু সেতু পথে যেতে না হওয়ায় প্রায় ৮০ কিলোমিটার পথ কমবে।
গত মে মাসে ওই রুটে ফেরি সার্ভিস চালু করতে ফেরিঘাট নির্মাণ, সড়ক যোগাযোগ স্থাপন ও নাব্যতা ফেরাতে নদী খননসহ নদী সংস্কার ও উন্নয়নে প্রকল্প গ্রহণের প্রাক-সম্ভাব্যতা যাচাইয়ে একটি কারিগর বিশেষজ্ঞ দল সারিয়াকান্দি ও মাদারগঞ্জ এলাকা পরিদর্শন করেন। সরকারের পানি ব্যবস্থাপনা প্রকল্পে পরিকল্পনা ও প্রযুক্তি সহায়তা প্রদানকারী সরকারি জাতীয় গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইনস্টিটিউট অব ওয়াটার মডেলিংয়ের (আইডব্লিউএম) দুই সদস্যের প্রতিনিধি দল প্রকল্পের নানাদিক পর্যবেক্ষণ করেন। পাশাপাশি এই রুটে ফেরি সার্ভিস চালুর জন্য কারিগরি দিক বিবেচনা করে সুপারিশসহ প্রতিবেদন সংশ্লিষ্ট দফতরে জমা দেন।
প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে ছিলেন আইডব্লিউএম-এর পরামর্শক মহিউদ্দিন পাটোয়ারী। এর প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) ও পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় ১৬ কিলোমিটার রুটে ফেরি সার্ভিস চালুর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।
বাহাদুরাবাদ-বালাসী রুটে ফেরি চলাচল বন্ধের পর ময়মনসিংহের মানুষ জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জের পরিবর্তে মাদারগঞ্জ হয়ে নৌকায় যমুনা নদী পার হয়ে যাতায়াত শুরু করেন। বগুড়াসহ উত্তরবঙ্গের মানুষ সারিয়াকান্দির কালিতলা বা মথুরাপাড়া ঘাট থেকে খেয়া নৌকায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ওপারের জেলাগুলোতে যাতায়াত ও পণ্য পরিবহন করতেন। কালিতলা ঘাট থেকে মাদারগঞ্জ যেতে প্রায় দুই ঘণ্টা সময় লাগে। নৌকায় জনপ্রতি ভাড়া লাগতো ৬০ থেকে ৮০ টাকা।
মাদারগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক এবং সি ট্রাকের ইজারাদার জাহেদুর রহমান উজ্জ্বল তালুকদার জানান, দীর্ঘদিন পর হলেও সারিয়াকান্দি-মাদারগঞ্জ নৌপথে ফেরি সার্ভিস চালু হচ্ছে। এতে এলাকার জনগণ আনন্দিত। আগামী ১২ আগস্ট বেলা ১০টার দিকে জামতল ঘাটে নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী ফেরি (সি-ট্রাক) সার্ভিসের উদ্বোধন করবেন। এ সময় উপস্থিত থাকবেন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, জামালপুর-৩ (মাদারগঞ্জ-মেলান্দহ) আসনের এমপি মির্জা আজম এবং বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য সাহাদারা মান্নানসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।
তিনি আরও জানান, মাদারগঞ্জ উপজেলার জামথল থেকে সারিয়াকান্দি খেয়াঘাট রুটে সি ট্রাক চালু হলে ২-৩ ঘণ্টা সময় সাশ্রয় হবে। এক ঘণ্টার এই রুটে চলাচলকারী সি ট্রাকে ২০০ যাত্রী, ২-৩টি প্রাইভেট গাড়ি ও ১৫টি মোটরসাইকেল পারাপার সম্ভব। ভাড়া হবে জনপ্রতি ১০০ টাকা।
সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও পৌর মেয়র মতিউর রহমান মতি জানান, সারিয়াকান্দি-মাদারগঞ্জে জামথল রুটে ফেরি চলাচল শুরু হলে এই অঞ্চলের মানুষ স্বল্প সময় ও খরচে যমুনা নদী পারাপার হতে পারবেন। এতে এ অঞ্চলের ব্যবসা ও শিক্ষাসহ সবকিছুর প্রসার ঘটবে। দুই পাড়ের মানুষের মাঝে বন্ধন আরও দৃঢ় হবে। যমুনা নদীর কারণে বিচ্ছিন্ন কাজলা কর্ণিবাড়ি, বোহাইল ও চালুয়াবাড়ি ইউনিয়নের মানুষ খুব সহজে দুই পারে যাতায়াত করতে পারবেন।
এমপি মির্জা আজম বলেন, সারিয়াকান্দি-মাদারগঞ্জ রুটে ফেরি সার্ভিস চালুর প্রস্তুতি শেষ পর্যায়ে। যমুনা নদীর দুই পাড়ের মানুষের দীর্ঘ প্রতীক্ষিত এ ফেরি সার্ভিস আগামী ১২ আগস্ট উদ্বোধন করা হবে। তবে আপাতত দুই পাড়ে কোনও ফেরিঘাট নির্মাণ হচ্ছে না।
তিনি আরও বলেন, যাত্রী ও ছোট গাড়ি পারাপারের মধ্য দিয়ে ফেরি সার্ভিস চালু হলেও শিগগিরই বড় যানবাহন পারও শুরু হবে। এজন্য বগুড়া-জামালপুর আঞ্চলিক মহাসড়ক নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। মাদারগঞ্জ থেকে জামথল পর্যন্ত এলজিইডির ১২ ফুট চওড়া সড়ক ২৪ ফুটে উন্নীত করতে সড়ক ও জনপথ বিভাগে হস্তান্তর করা হয়েছে। জমি অধিগ্রহণ শুরু হবে। এছাড়া বড় ফেরি চলাচলের সুবিধার্থে যমুনায় নাব্যতা ফেরাতে খনন করতে হবে। অন্যদিকে ইতোমধ্যে বগুড়া-সারিয়াকান্দি সড়ক সম্প্রসারণের কাজ শুরু হয়েছে।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ