শনিবার | ২ মার্চ ২০২৪
Cambrian

‘ছেলে হত্যার ন্যায় বিচার চাই’

spot_img
spot_img
spot_img

নিজস্ব প্রতিবেদক
‘আমার মা মরা ছেলেটাকে ওরা গাড়ির নিচে ফেলে হত্যা করেছে। ও ছিনতাইকারী না। আমি ছেলে হত্যার ন্যায় বিচার চাই। ছোট বেলায় ওর (নিহত) মা মারা যায়, সেই ছেলেকে আমার….’ এভাবেই কান্নায় ভেঙে পড়েছিলেন হত্যাকান্ডের শিকার হওয়া কিশোর জয়ের বাবা শামসুদ্দিন জুম্মন। গত ৭ আগস্ট রাতে জয়কে গাড়ির নিচে ফেলে হত্যার দৃশ্য ধরা পড়ে সিসি ক্য্যামেরার ফুটেজে। আজ শনিবার বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনে (ক্র্যাব) এক সংবাদ সম্মেলন করেন নিহত কিশোর জয়ের বাবা ও অন্য স্বজনরা। সংবাদ সস্মেলনে সিসি টিভির সেই ফুটেজ সাংবাদিকদের দেখানো হয়।
‘ ‘পুলিশ উল্টা আমাদের হেনস্তা করছে। আমার ছেলেক হত্যা করে আমাদের স্বজনদের আসামী দিয়ে ডাকাতি মামলা দিয়েছে। সন্তানকেও হারিয়েছে, আবার হয়রানিও হচ্ছি। আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে এই সত্য ঘটনার বিচার চাই।’ সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের কাছে কান্না বিজরিত কন্ঠে জুম্মন এসব অভিযোগ করেন।

সংবাদ সস্মেলনে উপস্থাপিত লিখিত বক্তব্য হুবহু তুলে ধরা হলো।

সম্মানিত সাংবাদিকবৃন্দ আসসালামু আলাইকুম,
আপনাদের জানাচ্ছি যে, আমি সামসুদ্দীন জুম্মন, পিতা: মৃত. আলীম উদ্দিন, ঠিকানা: ৪২/কে, বি উর্দ্দু রোড, থানা: চকবাজার, জেলা ঢাকা। ছেলে হারিয়ে আজ আপনাদের সামনে এসে ছেলে হত্যাকান্ডের ন্যায় বিচার চাইছি। আপনাদের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও পুলিশের মহা-পুলিশ পরিদর্শকসহ (আইজিপি) সংশ্লিষ্টদের জরুরী হস্তক্ষেপের আকুল আবেদন করছি। স্থানীয় সন্ত্রাসী ও থানা পুলিশের সোর্স পরিচয়দানকারী মো. রিয়াজ উদ্দিন, পিতা: মৃত, শামসুদ্দিন @ লাল মিয়া, ঠিকানা: ১৪ নং উর্দ্দু রোড, থানা: চকবাজার, জেলা: ঢাকা। তার সহযোগী রাব্বি, পিতা: মৃত, মিজান, ঠিকানা: কাজী রিয়াজউদ্দিন রোড, কচু ময়দান, থানা: চকবাজার, জেলা: ঢাকা। দীর্ঘ দিনযাবত এলাকায় চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই এবং মাদক ব্যবসা করে আসছে। তাদের অপরাধমূলক ও অনৈতিক কর্মকান্ডকে বাধা দিয়ে আসছিলো আমার ছেলে জয়। যার প্রেক্ষিতে রিয়াজের সাথে জয়ের সম্পর্ক খুবই খারাপ হয়েছিলো। তাদের মধ্যে শত্রুতার সৃষ্টি হওয়ায় জয়ের ক্ষতি করার জন্য তার গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করতো ওই দুই সন্ত্রাসী। যার ধারাবাহিকতায় গত ৭ আগস্ট রাত ৮টা ৪০ মিনিটে চকবাজার থানা এলাকার উর্দ্দু রোডের জনতা ব্যাংকের সামনের পথ দিয়ে জয় যাওয়ার সময় পূর্ব থেকে ওঁৎ পেতে থাকা মো. রিয়াজ উদ্দিন ও রাব্বিসহ আরো ৫/৬ জন অজ্ঞাতনামা সন্ত্রাসী তার পথরোধ করে অতর্কিতভাবে হামলা চালায় এবং সন্ত্রাসীরা জয়কে মারধর করে রক্তাক্ত করে। এক পর্যায়ে সন্ত্রাসীরা জয়ের গলা চেপে ধরে জোড়পূর্বক চলন্ত গাড়ীর দিকে ধাক্কা মারে। এতে জয়ের দেহ গাড়ীর সাথে ধাক্কা লেগে গাড়ীর নিচে পড়ে যায়। এ সময়ও সন্ত্রাসীরা তার উপর অমানুষিক নির্যাতন চালালে
ঘটনাস্থলেই হত্যাকান্ডের শিকার জয়ের মৃত্যু হয়। যার প্রমাণ সিসিটিভি ভিডিও ফুটেজে রয়েছে। জয়ের উপর এমন হামলা ও নির্যাতনের দৃশ্য দূর থেকে দেখে মো. হাসিব হোসেন @ আকিব, পিতা: মো. রফিকুল ইসলাম পান্নু, ঠিকানা: ৩৯/১, উমেশ দত্ত রোড, থানা: চকবাজার, জেলা: ঢাকা সন্ত্রাসীদের হাত থেকে জয়কে রক্ষা করতে দৌড়ে এসে নিচ থেকে টেনে তোলার চেষ্টা করলে তাকেও সন্ত্রাসীরা ব্যাপক মারধর করে। পরবর্তীতে রক্তাক্ত অবস্থায় জয়ের নিথর দেহ উদ্ধার করে হাসাপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরবর্তীতে এই মর্মান্তিক হত্যাকান্ডের ঘটনাকে আড়াল করার অপচেষ্টা চালায় জড়িত সন্ত্রাসীরা।
তারা চকবাজার থানার এক পুলিশ অফিসারের মাধ্যমে ঘটনার পরদিন (৮/০৮/২০২১) একটি মিথ্যা ঘটনা সাজিয়ে নিহত জয় ও তাকে উদ্ধার করতে যাওয়া মো. হাসিব হোসেন ওরফে আকিবসহ আরো কয়েকজনকে আসামী করে দন্ডবিধির ৩৯৫/৩৯৭ ধারায় চকবাজার থানায় একটি মিথ্যা সাজানো ডাকাতি মামলা দায়ের করে (মামলা নং-২৪(৮)২০২১)।
প্রিয় সাংবাদিকবৃন্দ,
এতে প্রমাণিত হয় পরিকল্পিত হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে হত্যাকারীদের প্ররোচনায় সাজানো ডাকাতি মামলা দিয়ে নিহতের পরিবারসহ কয়েকটি পরিবারকে হয়রানি করছে। প্রকৃত ঘটনা উ ̃ঘাটন করতে ও মিথ্যা মামলাকারী জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পুলিশের আইজিপির জরুরী হস্তক্ষেপের সবিনয়ে অনুরোধ জানাচ্ছি। পরিশেষে এতক্ষণ ধৈর্য ̈ধারণ করে আমার কথা শোনার জন্য সকলের সুস্থ ও সুন্দর আগামী দিনের প্রত্যাশা করছি।
নিবেদক
সামসুদ্দীন জুম্মন
(নিহত জয়ের হতভাগা পিতা)

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ