শনিবার | ২০ এপ্রিল ২০২৪
Cambrian

গভীর রাতে কবরীর বাড়ি যে কারণে ‘বহিরাগত’

spot_img
spot_img
spot_img

আবু হেনা রাসেল
গভীর রাতে বাংলা সিনেমার কালজয়ী অভিনেত্রী ও সাবেক সংসদ সদস্য প্রয়াত কবরী সরোয়ারের বাড়িতে ‘বহিরাগতদের উপস্থিতি’ সংক্রান্তে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) তদন্তে শঙ্কার কিছু পায়নি পুলিশ। বাড়িদখল চেষ্টার যে আশঙ্কার কথা জিডির কথা বলা হয় জিডিতে। তবে তদন্তে সে আলামত মেলেনি, বলছে পুলিশ।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গুলশান থানার এসআই আজিজুল হক জানান, গুরুত্বসহকারে এ বিষয়ক জিডি তদন্ত করেছে গুলশান থানা।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, ওই রাতে যারা সেখানে গিয়েছিলেন, সিসি টিভির ফুটেজ দেখে শনাক্তের পর পুলিশ তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। তারা বেতনভিত্তিক নাইটগার্ড। রাতে ওই সড়কের বাড়িসহ সবকিছু পাহাড়ায় নিয়োজিত। কবরীর বাড়িতে কর্মরত নিরাপত্তাকর্মীর কক্ষে তাস খেলতে গিয়েছিলেন ওই রাতে।

এদিকে কবরীর ছেলে ফ্ল্যাটের দরজা খুলে বাইরে আসছে- এমন শব্দ পেয়ে গ্যারেজের লাইট নিভিয়ে দেয়ার যে যুক্তি জিডিতে উল্লেখ রয়েছে, সে বিষয়ে পুলিশ বলছে, ভয়ে লাইট নিভিয়েছিলেন তারা।

জিডির তদন্ত কর্মকর্তা আজিজুল বলেন, ‘ গত মঙ্গলবার (২৯ আগস্ট) কবরী ম্যাডামের ছেলের অভিযোগ পেয়ে আমরা তাদের গুলশান লেক রোডের বাড়িতে যাই। অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাই। সহিদুল ও সিকিউরিটি গার্ড যে লাইট নিভিয়েছিলেন, তার প্রমাণও তাৎক্ষণিকভাবে পেয়েছি। আমরা আরও তদন্ত করছি।’ তিনি আরো বলেন, সহিদুল মুলত অত্র এলাকার কয়েকটি বাসার কেয়ারটেকারদের ইনচার্জ।

তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, অভিনেত্রীর বাসায় যারা গিয়েছিলেন, তাদের উদ্দেশ্য ছিল একত্রে তাস খেলা, আড্ডা দেয়া। তদন্তের স্বার্থে একাধিক ব্যক্তির সাথে, গোপনে-প্রকাশ্যে তথ্য নিয়ে এই তথ্যই বেরিয়ে আসছে।

গুলশান থানা পুলিশ জানায়, অভিনেত্রী কবরী মারা যাওয়ার আগে তার গুলশানের বাড়িটি নিয়ে নানা আশঙ্কার কথা জানিয়েছিলেন পুলিশকে অভিনেত্রী ও সাবেক সাংসদ কবরী। কবরীর মৃত্যুর পরপরই তার ছোট ছেলে শাকের ওসমান চিশতী শঙ্কা প্রকাশ করে বলেছিলেন, বাড়িটি দখলের চেষ্টা করছে অনেকেই।

প্রসঙ্গত, গত ২৭ সেপ্টেম্বর গভীর রাতে কে বা কারা অভিনেত্রী ও সাবেক সংসদ সদস্য কবরীর বাড়িতে ঢুকে পড়েন। বহিরাগত লোকজনের উপস্থিতি টের পেয়ে ফোন করে পুলিশ ডাকেন কবরীর ছেলে শাকের ওসমান। পুলিশের পরামর্শে গত মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টম্বর গুলশান থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন কবরীর ছেলে।

গুলশান থানায় করা সাধারণ ডায়েরিতে শাকের ওসমান চিশতী অভিযোগ করেন, ‘গত ২৭ সেপ্টেম্বর রাত আনুমানিক আড়াইটার দিকে আমার বাসার সিঁড়িতে কিছু মানুষের আনাগোনার আওয়াজ পাই। সিসি ক্যামেরায় দেখি, গ্রাউন্ড ফ্লোরের সব বাতি নেভানো। সিঁড়িতে পায়ের আওয়াজ পেয়ে ইন্টারকমে ফোন করি। কর্তব্যরত সিকিউরিটি গার্ড ফোন না ধরায় আমার সন্দেহ বাড়তে থাকে। ২০ মিনিট পর রাত ২টা ৫০ মিনিটে ক্যামেরায় দেখি তিন ব্যক্তি মুঠোফোনের আলো জ্বালিয়ে সিঁড়ি দিয়ে নিচে নামছেন, পরে একটি মোটরসাইকেলে করে তাঁরা চলে যান। আমি ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে দায়িত্বরত পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করি। আনুমানিক রাত সোয়া তিনটায় পুলিশ আসে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে বাসার সিকিউরিটি গার্ড সব লাইট জ্বালিয়ে দেন। গার্ড জানান, বাসার কেয়ারটেকার সহিদুল ইসলামের কথায় তিনি লাইট নিভিয়েছিলেন।’

জিডিতে কবরী তখন লিখেছিলেন, ‘আমি কবরী গুলশান ২ নম্বরের একটি পাঁচতলা ভবনে থাকি। ১০ এপ্রিল বেলা ১১টার দিকে ওই ভবনের দুটি ফ্ল্যাটের মালিকের কর্মচারীর সাহায্যে পাঁচ-ছয়জন বহিরাগত জোর করে ভেতরে ঢোকেন। ছেলেকে নিয়ে আমি বাড়ির নিচে নেমে বহিরাগতদের কাছে জোর করে ঢোকার কারণ জানতে চাই। তখন তারা বাড়ি রং করার কথা বলেন।’ জিডিতে কবরী এ–ও উল্লেখ করেন, ‘আমার এই বাড়িটি নিয়ে আদালতে মামলা আছে এবং আদালতের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তাই বাড়িতে রং করা যাবে না। একপর্যায়ে বহিরাগতরা আমার ওপর চড়াও হন, আমাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন এবং মেরে ফেলার হুমকি দেন। এরপর অফিসের কর্মচারীদের খবর দিয়ে দ্রুত পাঁচতলায় ফ্ল্যাটে আশ্রয় নিই।’

এদিকে অভিনেত্রী কবরীর ছেলে শাকের চিশতী বলেন, ‘মা বেঁচে থাকা অবস্থায় এই বাড়ি নিয়ে একটি চক্র নানা ষড়যন্ত্র করেছিল। মাকে তখন লাঞ্ছিত করা হয়, হত্যার হুমকিও দেওয়া হয়। ওরা ভেবেছে, মা যেহেতু এখন আর নেই, সহজে বাড়ি দখল করতে পারবে! দেশে তো আইন-আদালত সব আছে। আমরাও তা বিশ্বাস করি।’

অভিনেত্রী ও সাংসদ সারাহ বেগম কবরী বেঁচে থাকতেই এই বাড়ি নিয়ে নানা জটিলতার কথা বলেছিলেন। গুলশান ২ নম্বরে তার বাড়ির নিচতলায় তাকে লাঞ্ছিত করার কথাও বলেছিলেন। এ ঘটনায় ২০১৮ সালের ১০ এপ্রিল তিনি গুলশান থানায় আরো একবার জিডি করেছিলেন।

জিডিতে কবরী তখন লিখেছিলেন, ‘আমি কবরী গুলশান ২ নম্বরের একটি পাঁচতলা ভবনে থাকি। ১০ এপ্রিল বেলা ১১টার দিকে ওই ভবনের দুটি ফ্ল্যাটের মালিকের কর্মচারীর সাহায্যে পাঁচ-ছয়জন বহিরাগত জোর করে ভেতরে ঢোকেন। ছেলেকে নিয়ে আমি বাড়ির নিচে নেমে বহিরাগতদের কাছে জোর করে ঢোকার কারণ জানতে চাই। তখন তাঁরা বাড়ি রং করার কথা বলেন।’ জিডিতে কবরী এ–ও উল্লেখ করেন, ‘আমার এই বাড়িটি নিয়ে আদালতে মামলা আছে এবং আদালতের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তাই বাড়িতে রং করা যাবে না। একপর্যায়ে বহিরাগতরা আমার ওপর চড়াও হন, আমাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন এবং মেরে ফেলার হুমকি দেন। এরপর অফিসের কর্মচারীদের খবর দিয়ে দ্রুত পাঁচতলায় ফ্ল্যাটে আশ্রয় নিই।’

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ