মঙ্গলবার | ২১ মে ২০২৪
Cambrian

মায়ের খাঁচায়ই আছে অবন্তিকা-দুর্জয়

spot_img
spot_img
spot_img

ক্র্যাবনিউজ ডেস্ক
আড়াই মাস আগে ঢাকার মিরপুর জাতীয় চিড়িয়াখানায় জন্ম নেয় দুটি বাঘের ছানা। লকডাউনের অবকাশে দর্শনার্থীদের চোখের আড়ালেই থেকে যায় তারা। সোমবার এই বাঘশাবক দুটি আনুষ্ঠানিক নাম পেয়েছে।বেঙ্গল টাইগার প্রজাতির এ দুই ব্যাঘ্র শাবকের মধ্যে মেয়েটির নাম রাখা হয়েছে ‘অবন্তিকা’, আর ছেলেটির নাম দুর্জয়।
এদিকে এ খবর গণমাধ্যমে প্রচারিত হলে মানুষের মধ্যে বাঘশাবক দুটি সরাসরি স্বচোখে দেখতে আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে। তবে বাধ সেধেছে করোনার বিধিনিষেধ। ফলে চিড়িয়াখানা খোলা হয়নি। এখন শুধু চিড়িয়াখানা খোলার অপেক্ষা।

চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এই বাঘশাবক দুটি নিয়ে মিরপুর চিড়িয়াখানায় বাঘের সংখ্যা বেড়ে এখন ১১টি। আর চিড়িয়াখানা খোলা কবে হবে, সে বিষয়ে তাদের ভাষ্য হচ্ছে- চিড়িয়াখানা খুলতে মন্ত্রীপরিষদবিভাগ থেকেই আদেশ জারী করা হলেও চিঠি চিড়িয়াখা কর্তৃপক্ষের হাতে আসেনি। চিঠি পাওয়ার পর খোলা হবে। তবে চিড়িয়াখানা খোলার সকল প্রস্তুতিই সম্পন্ন।
মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম জানান, সোমবার বাঘের ছানা দুটির নামকরণ করা হয়েছে। চিড়িয়াখানা খুললে দর্শনার্থীরা তাদের দেখতেন পাবেন।
অবন্তিকা আর দুর্জয় এখন খাঁচায় তাদের মা বেলীর সঙ্গেই থাকছে, তবে তাদের বাবা টগরকে রাখা হয়েছে আলাদা খাঁচায়।


রেজাউল করিম বলেন, “ছেলে বাচ্চাটির নাম ‘দুর্জয়’, যা সহজে জয় করা যায় না, জয় করতে হয় কঠিনভাবে। আর মেয়ে বাচ্চাটির নাম হচ্ছে ‘অবন্তিকা’, যার নিকটবর্তী শব্দ হচ্ছে রাণী।”
জাতীয় চিড়িয়াখানায় বেঙ্গল টাইগার দম্পতি টগর আর বেলির ঘরে জন্ম নেওয়া দুর্জয় ও অবন্তিকার বয়স এখন আড়াই মাসের বেশি। ছবি: মাহমুদ জামান অভি
করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে বিধিনিষেধের মধ্যে অন্যসব বিনোদন কেন্দ্রের সঙ্গে চিড়িয়াখানও বন্ধ রাখা হয়েছিল। স্বাস্থ্যবিধি মানার শর্তে ১৯ অগাস্ট থেকে আবার সব পর্যটন কেন্দ্র ও বিনোদন কেন্দ্র খোলার অনুমতি দিয়েছে সরকার।

মিরপুর চিড়িয়াখানার পরিচালক ডা. মো. আব্দুল লতিফ মঙ্গলবার বলেন, “মন্ত্রী পরিষদ বিভাগ থেকে চিড়িয়াখানা খোলার বিষয়ে একটি পরপিত্র জারি করা হয়েছে, এটি এখনও আমরা হাতে পাইনি, তবে দর্শনার্থীদের জন্য চিড়িয়াখানা খুলে দেওয়ার সব প্রস্তুতি ইতোমধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে।”
আর মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, ১৯ তারিখেই চিড়িয়াখানা দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেওয়া যাবে বলে তিনি আশা করছেন।
ডা. লতিফ জানান, মিপুর চিড়িয়াখানার জন্য ১৯৮১ সালে খুলনা অঞ্চল থেকে প্রথম একটি পুরুষ বাঘ সংগ্রহ করা হয়। এরপর ১৯৯০ সালে ভারত থেকে তিনটি মেয়ে এবং দুটি পুরুষ বাঘ আনা হয়।
১৯৯০ সালের সেপ্টেম্বরে এ চিড়িয়াখানায় প্রথম বাঘের ছানার জন্ম হয়। তার পর থেকে এ পর্যন্ত মোট ৪০টি বাঘের জন্ম হয় হয়েছে এ চিড়িয়াখানায়। সেখান থেকে ১১টি বাঘ পাঠানো হয়েছে দেশের বিভিন্ন চিড়িয়াখানা এবং সাফারি পার্কে। এছাড়া দুটি বাঘ কুয়েত সরকারকে উপহার হিসেবে পাঠানো হয়েছে।”
গত ২৬ এপ্রিল দুর্জয় ও অবন্তিকার জন্মের আগে সর্বশেষ ২০১৬ সালে মিরপুর চিড়িয়াখানায় দুটি বাঘের ছানার জন্ম হয়েছিল, তবে জন্মের কিছুদিনের মধ্যেই সেগুলো মারা যায় বলে জানান পরিচালক আব্দুল লতিফ।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ