মঙ্গলবার | ২১ মে ২০২৪
Cambrian

কোরবানির হাট ফাঁকা, অনলাইনে ১২ দিনে ১৩শ’ কোটি টাকা বিক্রি

spot_img
spot_img
spot_img

শেষ পর্যন্ত করোনা বিষয়ক বিধিনিষেধ শিথিল করা হলেও রাজধানীর পশুর হাটগুলো জমেনি। ক্রেতারা অনলাইনেই কোরবানির জন্য গবাধি পশু কিনতে ঝুঁকে পড়েছেন।
বুধবার রাজধানীর কয়কেটি হাট ঘুরে দেখা গেছে ক্রেতাদের তেমন সমাগম নেই। হাটগুলোতে গত কয়েকদিনের তুলনায় পশু আসার সংখ্যা বেড়েছে। তবে গত ১২ দিনে অনলাইনে প্রায় ১৩শ কোটি টাকার পশু বিক্রির তথ্য জানিয়েছে প্রাণীসম্পদ অধিদপ্তর।

অনলাইন হাটের প্রতীকী ছবি

অনলাইনে যে পরিমাণ কোরবানির পশু কেনাবেচা হচ্ছে তা খুবই আশাব্যঞ্জক বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। তিনি বলেন, ‘করোনা সংক্রমণ রোধে আমাদের জনসমাগম থেকে দূরে থাকতে হবে। এ বাস্তবতায় বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে ডিজিটাল হাট সময়োপযোগী উদ্যোগ।’ এ বছর মোট কেরবানির পশুর ২৫ শতাংশ ডিজিটাল ব্যবস্থায় বিপণনের লক্ষ্য রয়েছে বলে জানান তিনি।
শুরুতে অনলাইন হাটে পশু বিক্রি তেমন বেশি না হলেও পরবর্তী সময়ে বিক্রি অনেকটাই বেড়েছে। এই হাটগুলোতে ৮ জুলাই থেকে ১২ জুলাই পর্যন্ত পাঁচ দিনে বিক্রি হয়েছে ১ লাখ ৩০ হাজার ৯৮০টি পশু। অথচ ২ জুলাই শুরু হওয়া অনলাইন হাটে ৮ জুলাই পর্যন্ত ২৬ হাজার ৩০৮টি পশু বিক্রি হয়েছিল।

করোনা পরিস্থিতিতে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন আয়োজিত ডিজিটাল পশুর হাট ও অন্যান্য অনলাইন হাট ছাড়াও প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে উপজেলাভিত্তিক হাট আয়োজন করেছে।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, সোমবার পর্যন্ত অনলাইনে মোট পশু বিক্রি হয়েছে ১ লাখ ৫৭ হাজার ২৮৮টি, যার অর্থমূল্য ১ হাজার ১১৬ কোটি ৮ লাখ ৮৬ হাজার ৩০০ টাকা।


চলতি বছর কোরবানিযোগ্য গবাদিপশুর সংখ্যা মোট ১ কোটি ১৯ লাখ। সে হিসাবে এখন পর্যন্ত মাত্র ১ দশমিক ৩২ শতাংশ পশু অনলাইনে বিক্রি হয়েছে। এই পরিসংখ্যান গত বছরের চেয়ে বেশি হলেও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা খুব সন্তুষ্ট নন। প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের উপপরিচালক (খামার) জিনাত সুলতানা বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতিতে আমরা আরও অনেক বেশি অনলাইন বিক্রি আশা করেছিলাম।’
অধিদপ্তরের তথ্যমতে, ১২ জুলাই পর্যন্ত অনলাইনে সবচেয়ে বেশি পশু বিক্রি হয়েছে চট্টগ্রাম বিভাগে। বিভাগটিতে ৮৭ হাজার ৩৫৭টি গরু-মহিষ এবং ১৭ হাজার ৬৬৭টি ছাগল-ভেড়া অনলাইনে বিক্রি হয়েছে। দ্বিতীয় অবস্থানে আছে ঢাকা বিভাগ। ঢাকায় মোট ১৬ হাজার ৯৭৬টি গরু-মহিষ এবং ১ হাজার ৩৫৪টি ছাগল-ভেড়া বিক্রি অনলাইনে হয়েছে। অনলাইনে বিক্রির দিক থেকে সবচেয়ে পিছিয়ে আছে ময়মনসিংহ বিভাগ। সেখানে মাত্র ৩২২টি গরু-মহিষ এবং মাত্র ২৭টি ছাগল-ভেড়া অনলাইনে বিক্রি হয়েছে।
জিনাত সুলতানা আরও বলেন, অনলাইনে আশানুরূপ বিক্রি না হওয়ার মূল কারণ ক্রেতাদের অনভ্যস্ততা। এখনো বেশির ভাগ ক্রেতা হাটে গিয়ে পশু কেনার কথা চিন্তা করেন।
ঢাকা জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা কাজী রফিকুজ্জামান বলেন, ‘আমরা উপজেলাভিত্তিক ফেসবুক গ্রুপ তৈরি করেছি, যেমন ঢাকা মহানগর ছাড়াও ঢাকায় পাঁচটি উপজেলা আছে। এই ছয় এলাকার জন্য আলাদা ছয়টি ফেসবুক গ্রুপ তৈরি করা হয়েছে। কর্মীরা দিনে ৫ থেকে ১০টি পশুর ছবি আপলোড করছেন।’

অনলাইন হাটের প্রতীকী ছবি

এখন পর্যন্ত অনলাইনের বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে মোট ১০ লাখ ৩০ হাজার ৫৯০টি পশুর ছবি আপলোড করা হয়েছে।
জিনাত সুলতানা বলেন, ‘অনলাইনে পশু বিক্রি বাড়াতে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন আয়োজিত ডিজিটাল পশুর হাটে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের ফেসবুকভিত্তিক হাটগুলো যুক্ত করা হয়েছে। এ ছাড়া অন্যান্য কার্যক্রমের মাধ্যমে অনলাইনে পশু বিক্রি বাড়ানোর চেষ্টা করা হবে।’
গত ২ জুলাই সরকারি ব্যবস্থাপনায় অনলাইনে পশুর হাটের কার্যক্রম শুরুর পর ১৩ জুলাই মঙ্গলবার পর্যন্ত মাত্র ১২ দিনে ১ হাজার ৩২৮ কোটি টাকা মূল্যের ১ লাখ ৮৪ হাজার ৮৯৬টি গবাদিপশু বিক্রি হয়েছে। এ হিসেবে প্রতিদিন গড়ে বিক্রি হয়েছে ১৬ হাজার ৮০৮টি পশু। প্রতিদিনই পশু বিক্রির পরিমাণ বাড়ছে। গতকাল মঙ্গলবার এক দিনেই বিক্রি হয়েছে ২৭ হাজার ৬০৮টি গবাদিপশু।
প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর সূত্র জানিয়েছে, বর্তমানে একই প্ল্যাটফরমে সারা দেশে ২৪১টি পশুর হাট থেকে কোরবানির পশু বিক্রি হচ্ছে। এর বাইরেও ব্যক্তি উদ্যোগে অনেক ফেসবুক পেজ থেকেও কোরবানির পশু বিক্রি করা হচ্ছে। সেসব তথ্য এখানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। ব্যক্তি উদ্যোগে পশু বিক্রির সেসব তথ্য পাওয়া গেলে বিক্রির পরিমাণ আরো বাড়বে। এই সূত্র জানিয়েছে, করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে মূলত গত বছর থেকেই অনলাইনে পশু বিক্রির পরিমাণ বেড়েছে। কিন্তু এ বছর এতটা বাড়বে তা ছিল কল্পনারও বাইরে। ক্রেতাদের অনলাইনে কোরবানির পশু কেনা নিয়ে যে দ্বিধা-সংকোচ ছিল তা অনেকটাই কেটে গেছে।
প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর জানিয়েছে, গত বছর দেশে কোরবানিযোগ্য গবাদি পশু ছিল ১ কোটি ১৮ লাখ ৯৭ হাজার ৫০০টি। কোরবানি হয়েছে ৯৪ লাখ ৫০ হাজার ২৬৭টি গবাদি পশু। এর মধ্যে অনলাইনে গবাদি পশু বিক্রি হয়েছে প্রায় ৭০ হাজার। এ বছর ৪৫ লাখ ৪৭ হাজার গরু-মহিষ, ৭৩ লাখ ৬৫ হাজার ছাগল-ভেড়া এবং অন্যান্য ৪ হাজার ৭৬৫টি পশুসহ মোট ১ কোটি ১৯ লাখ ১৬ হাজার ৭৬৫টি কোরবানিযোগ্য গবাদিপশু রয়েছে। যা গত বছরের তুলনায় ১৯ হাজার বেশি। এবার করোনার প্রকোপ বাড়ায় অনলাইন থেকে কোরবানির গরু বিক্রির পরিমাণ কয়েক লাখ ছাড়িয়ে যেতে পারে।
সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, অনলাইনে গরু কেনা ও বিক্রিতে কোনো খরচ না থাকায় দিন দিন এই মাধ্যম জনপ্রিয় হচ্ছে। কেউ অনলাইনে গরু বিক্রি করতে চাইলে সংশ্লিষ্ট জেলা, উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসে গিয়ে জানালেই সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা অনলাইন প্ল্যাটফরমে সেই পশুর তথ্য আপলোড করে দিচ্ছেন।
ডেইরি ফারমারস অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য অনুযায়ী, দেশে বর্তমানে ছোট-বড় মিলিয়ে প্রায় ৮ লাখ খামার আছে। এর মধ্যে ঢাকা শহর ও আশপাশেই খামার আছে ৮ হাজারের বেশি। এসব খামারের রয়েছে নিজস্ব ফেসবুক পেজ। খামারের পাশাপাশি তারা তাদের ফেসবুক পেজ ও বিভিন্ন অনলাইন প্ল্যাটফরমের মাধ্যমেও কোরবানির পশু বিক্রি করছে।
বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে দেওয়া ডিজিটাল হাট-এর নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, বিক্রেতার ডেলিভারি করা পশুটি যদি ত্রুটিযুক্ত হয়, যে পশু অর্ডার করা হয়েছে তার সঙ্গে যদি মিল না থাকে, পশুর ওজনের ক্ষেত্রে বেশি অসামঞ্জস্য (১০% এর বেশি) অথবা অন্য কোনো যৌক্তিক কারণে পশুটি ক্রেতা গ্রহণ করতে অপারগতা প্রকাশ করলে সেক্ষেত্রে বিক্রেতা তাৎক্ষণিক সমমূল্যের/সমওজনের আরেকটি সমজাতীয় পশু ক্রেতাকে যথাসময়ে দিতে বাধ্য থাকবেন। এছাড়া, বিক্রেতা/মার্কেটপ্লেস যথাসময়ে ক্রেতার অথবা স্লটারিং হাউজে কোরবানির পশু সরবরাহ করতে ব্যর্থ হলে বিক্রেতা/মার্কেটপ্লেস পশুর সমপরিমাণ মূল্যের দ্বিগুণ অর্থ পরিশোধ করতে বাধ্য থাকবে।

একই প্ল্যাটফরমে ২৪১ ডিজিটাল হাট
এবার একই প্ল্যাটফরমে নিয়ে আসা হলো সারা দেশের ২৪১টি ডিজিটাল কোরবানির হাট। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এবং ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন (ই-ক্যাব)-এর যৌথ উদ্যোগে এবং এটুআই-এর কারিগরি সহায়তায় এই হাটের আয়োজন করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার এক ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে এই সম্মিলিত হাট উদ্বোধন করেন মত্স্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। হাটের ওয়েব ঠিকানা: www.digitalhaat.net

হাট ফাঁকা, ক্রেতার ভিড় নেই

পবিত্র ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে রাজধানীর উত্তরা ১৭ নম্বর সেক্টরের বৃন্দাবন থেকে উত্তর পাকুরিয়ার মাথা পর্যন্ত খালি জায়গায় গড়ে উঠেছে অস্থায়ী পশুর হাট। ধু ধু খালি জায়গায় বাঁশ ও তাঁবু টানিয়ে নির্মাণ করা হয়েছে কোরবানির পশু রাখার স্থান।
ব্যাপারিরা গুরু নিয়ে আসতে শুরু করেছেন। তবে ক্রেতা সমাগম অনেক কম। দুই-একজন ক্রেতা হাটে এলেও দাম শুনে চলে যাচ্ছেন।
কুষ্টিয়া থেকে ২৮টি গরু নিয়ে উত্তরা ১৭ নম্বর সেক্টরের এই হাটে এসেছেন ব্যাপারি মো. হেলাল। বুধবার (১৪ জুলাই) ভোর ৬টায় হাটে ঢুকেছেন তিনি।
হেলাল বলেন, গ্রামের গৃহস্থদের কাছ থেকে একটা দুইটা করে গরু কিনেছি। আর আমার গোয়ালের দুটো মিলিয়ে মোট ২৮টি গরু নিয়ে এই হাটে এসেছি। এখনও হাট জমেনি। ব্যাপারিরা গরু নিয়ে কেবল আসছেন।
তিনি বলেন, গতবার ৩০টি গরু নিয়ে এই হাটে এসেছিলাম। সব বিক্রি করে বাড়ি ফিরেছিলাম। ভালো দাম পেয়েছি। তাই এবারও এই হাটে এসেছি। এখন দেখি আল্লাহ কপালে কী রাখছে!

বগুড়ার শেরপুর থেকে ১৭টি গরু নিয়ে এসেছেন ব্যাপারি জয়নাল আবেদিন। তিনি বলেন, হাট এখনও জমেনি। ক্রেতার সংখ্যা খুব কম। এসে দেখে দাম করে চলে যায়। আমরাও দাম বলি। কারণ ঈদের এখনও সপ্তাহখানেক বাকি। হাটের অনেক জায়গাই এখনও খালি। আমাদের গ্রামের আরও দুই ব্যাপারি গরু নিয়ে ঢাকার দিকে রওয়ানা হয়েছে। তাদের মত অনেকেই এখনও আসছে।

উত্তরার বাসিন্দা ব্যবসায়ী আহসানুন হক জানান, প্রজেক্টের পাশে পশুর হাট বসেছে। তাই বাজার কেমন তা যাচাই করতে এসেছি। এখনও হাটে গরু আসেনি। তাই ব্যাপারিরাও দাম কমাতে চাইছেন না।

বুধবার কঠোর লকডাউনের শেষ দিন। ১৫ জুলাই থেকে লকডাউন পরিস্থিতি কিছুটা শিথিল হতে যাচ্ছে। ব্যাপারি ও ক্রেতারা জানান, করোনা পরিস্থিতির কারণেও অনেক ক্রেতারা হাটে আসছেন না। লকডাউন শিথিল হলে পশুর হাটে ক্রেতার সংখ্যা বাড়বে বলে সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ