বৃহস্পতিবার | ১৩ জুন ২০২৪
Cambrian

ইসিতে জাপার নালিশ

spot_img
spot_img
spot_img

নিজস্ব প্রতিবেদক
সিলেট-৩ আসনের উপ-নির্বাচনে দলের প্রার্থী ও কর্মীদের সঙ্গে পুলিশের আচরণ নিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) কাছে ‘নালিশ’ জানিয়েছে জাতীয় পার্টি।
সোমবার সিইসি কে এম নুরুল হুদার সঙ্গে জাতীয় পার্টি- জাপা এর মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু দেখা করেছেন বলে দলের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।
এতে বলা হয়, সিলেট- ৩ আসনের উপ-নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করার দাবিতে জাপা মহাসচিব সিইসির সঙ্গে দেখা করেন।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “এসময় তিনি প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে বলেছেন, মাঠ পর্যায়ের কিছু পুলিশ কর্মকর্তার আচারণে সিলেট-৩ আসনের উপ-নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে দাঁড়িয়েছে। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে অবিলম্বে মাঠ পর্যায়ের ওই সকল অতি উৎসাহী পুলিশ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে দাবি জানিয়েছেন জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু।”
“এসময় তিনি বলেন, দেশের গণতন্ত্র বিকাশের জন্য অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন খুবই প্রয়োজন। ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে আসা এবং নির্বাচনের প্রতি আস্থা ফিরিয়ে আনতে সিলেট-৩ আসনের উপ-নির্বাচন অবাধ ও নিরপেক্ষ হওয়া খুবই জরুরি।“
এই নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হলে নির্বাচন কমিশনের প্রতি জনগণের আস্থা বাড়বে উল্লেখ করে বাবলু বলেন, “তফসিল ঘোষণার পর থেকেই জাতীয় পার্টির প্রার্থী ও কর্মীদের প্রতি মাঠ পর্যায়ের কিছু পুলিশ যে আচরণ করছে তা সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য হুমকিস্বরুপ।“
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “এসময় প্রধান নির্বাচন কমিশনার একেএম নুরুল হুদা অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে যা যা করণীয় তার সকল ব্যবস্থা করবেন বলে আশ্বাস দেন।”
গত ১১ মার্চ মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর মৃত্যুতে সিলেট-৩ আসন শূন্য ঘোষণা করা হয়। সংবিধানের ১২৩ অনুচ্ছেদের শর্ত ৪ অনুযায়ী ৯০ দিনের মধ্যে শূন্য পদ পূরণ করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।
তবে দৈব-দূর্বিপাকের কারণে এই সময়ের মধ্যে নির্বাচন করা না গেলে পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন করার কথা বলা আছে ওই শর্তে। সে অনুযায়ী এই নির্বাচন করার জন্য ১০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময় পাচ্ছে নির্বাচন কমিশন।
গত ২৯ এপ্রিল নির্বাচন কমিশন এক প্রজ্ঞাপনে ৮ জুন সিলেট-৩ আসনে উপ-নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করলেও করোনাভাইরাস সংক্রমণ বেড়ে গেলে তা স্থগিত করে।
পরে গত ২ জুন নির্বাচন কমিশন তফসিল ঘোষণা করে ১৪ জুলাই ভোট গ্রহণের তারিখ রাখে। কিন্তু করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে সরকার ১ থেকে ৭ জুলাই পর্যন্ত সারাদেশে কঠোর লকডাউন ঘোষণা করে। পরবর্তীতে তা আরও এক দফা বাড়ানো হয়।
কোরবানির ঈদ সামনে রেখে কঠোর লকডাউন গত ১৪ জুলাই থেকে শিথিল করলেও পরিস্থিতি বিবেচনায় আটকে যায় ফলে সিলেট-৩ আসনের ভোট গ্রহণ।
এমন পরিস্থিতিতে গত ১৫ জুন নির্বাচন কমিশন ২৮ জুলাই নতুন তারিখ ঘোষণ করে।
তবে ২৬ জুলাই এক আদেশে করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে জারি করা লকডাউনের মধ্যে ভোটগ্রহণ আগামী ৫ অগাস্ট পর্যন্ত স্থগিত করে হাই কোর্ট।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ