বুধবার | ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
Cambrian

ইভ্যালি কার্যালয় বন্ধ, হতাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছেন ক্ষতিগ্রস্থ গ্রাহকরা

spot_img
spot_img
spot_img

কেউ আগাম টাকা দিয়েছেন কিন্তু পণ্য পাননি। কেউ পন্য সরবরাহ করেছেন কিন্তু পণ্যমূল্য পাননি। এমনকি ইভ্যালি অফিস, তাদের হটলাইন, কোন যোগােযাগেই সুরাহা মিলছে না। ঘুরছেন দিনের পর দিন। নাগাল পাচ্ছেন না ইভ্যালি কর্মকর্তাদের।
এমন নানান ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্থ, হয়রানীর শিকার হওয়া ভুক্তভোগী গ্রাহকরা ভিড় জমাচ্ছেন ইভ্যালির ধানমন্ডি সোবাহানবাগের কার্যালয়ে। কিন্তু সেটি বন্ধ রয়েছে।
ইভ্যালির অর্ডারে যারা গ্রাহকদের কাছে পণ্য সরবরাহ করতেন সেই মার্চেন্টদের বেশকয়েকটি প্রতিষ্ঠান সম্প্রতি ইভ্যালির সাথে ব্যবসায়িক চুক্তি না রাখার ঘোষণা দেয়। তাদের অভিয়োগ, ইভ্যালি অর্ডার সরবরাহের আগেই গ্রাহকদের কাছ থেকে পণ্যের মূল্য গ্রহণ করলেও মার্চেন্ট প্রতিষ্ঠানগুলোকে ইভ্যালি মূল্য পরিশোধ করছে না।
ফলে চুক্তি অনুয়ায়ী পণ্যের মূল্য পরিশোধ না করায় ই–কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির সঙ্গে একে একে সম্পর্ক ছিন্ন করছে পণ্য সরবরাহকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান (মার্চেন্ট)।
গত দুই দিনে এসব প্রতিষ্ঠান তাদের গ্রাহকদের খুদে বার্তার মাধ্যমে জানিয়ে দিচ্ছে, ইভ্যালির দেওয়া ভাউচারে তারা আর পণ্য সরবরাহ করবে না। কারণ, তারা ইভ্যালির কাছ থেকে পণ্যের দাম পাচ্ছে না।
রঙ বাংলাদেশের পর পোশাকের ব্র্যান্ড জেন্টল পার্ক, ট্রেন্ডস, আর্টিসানসহ আরও বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির ভাউচারে পণ্য সরবরাহ না করার কথা তাদের গ্রাহকদের জানিয়েছে।
এদিকে পণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের বকেয়া টাকার জন্য ইভ্যালির কার্যালয়ে ভিড় করছে।
পাশাপাশি পণ্য ও অর্থ ফেরত না পাওয়া গ্রাহকরাও রাজধানীর ধানমন্ডিতে ইভ্যালির কার্যালয়ে ভিড় শুরু করেছেন। তবে ইভ্যালির কার্যালয়টি বন্ধ রয়েছে। হটলাইন নম্বরেও ফোন করে কাউকে পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন গ্রাহকেরা।
এদিকে ইভ্যালিসহ ১৪টি ই–কমার্স প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। প্রতিষ্ঠানগুলোর বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করছে সিআইডি। এর মধ্যে ধামাকা নামের একটি ই–কমার্স প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক হিসাব জব্দের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকে চিঠি দিয়েছে সংস্থাটি। পর্যায়ক্রমে অন্যগুলোর বিষয়েও একধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।
ইভালির বন্ধ কার্যালয়ে দুটি নোটিশ ঝুলছে। সেগুলোতে কারও স্বাক্ষর ও তারিখ নেই। নোটিশে বলা হয়েছে, ইভ্যালির ‘সশরীর গ্রাহকসেবা প্রদান’ বন্ধ থাকবে। অনলাইন গ্রাহকসেবা ও পণ্য সরবরাহ চালু থাকবে।
কার্যালয়ে দায়িত্ব পালনকারী নিরাপত্তা প্রহরীরা ক্ষতিগ্রস্থ গ্রাহকদের জানিয়ে দিচ্ছেন, বিধিনিষেধ শিথিল করলেও ইভ্যালির কোনো কর্মকর্তা অফিসে আসেননি।
মো. নাজমুল হুদা নামে এক গ্রাহক অভিযোগ করেন, ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল মাসের বিভিন্ন সময়ে এসি, মোটরসাইকেল, বৈদ্যুতিক পাখাসহ প্রায় ৫ লাখ টাকার পণ্যের ক্রয়াদেশ দিয়েছিলেন তিনি। পণ্য সরবরাহের সময় পেরিয়ে গেছে, কিন্তু এখনো একটি পণ্যও পাননি। ৪৫ কার্যদিবস পার হওয়ার পর ইভ্যালির কার্যালয়ে ষষ্ঠবারের মতো এসেছেন নাজমুল হুদা।
তার আরও অভিযোগ, ইতিমধ্যে ইভ্যালির কাস্টমার কেয়ারে ফোন করে কয়েক হাজার টাকা খরচ করেছেন। কোনো সমাধান পাচ্ছেন না।
ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ রাসেল সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ‘আমাদের কার্যালয় বন্ধ নেই। কলসেন্টার খোলা সকাল ৮টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত। পণ্য সরবরাহ ব্যবস্থাও চালু আছে। তবে করোনার কারণে কর্মীদের একটা অংশ বাসা থেকে কাজ করছেন।’ কল সেন্টারে ফোন করে কোনো সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না বলে গ্রাহকদের অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, কেউ হয়তো একটা নির্দিষ্ট সময়ে কাউকে পাননি। আর এটাকেই সাধারণ বলে চালিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এটা অনুচিত।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ