শুক্রবার | ১ মার্চ ২০২৪
Cambrian

ইউরোর ফাইনালে হামলা চালাতে পারে লাখ লাখ পিঁপড়া!

spot_img
spot_img
spot_img

ইউরো কাপের ফাইনালে ঝাঁকে ঝাঁকে উড়াল পিঁপড়া এসে ওয়েম্বলিকে মেঘের মতো ঢেকে ফেলতে পারে। খেলার মাত্র একদিন বাকি থাকতেই শুক্রবার (৯ জুলাই) লন্ডন ও সাউথ-ইস্টে লাখ লাখ কীটের উপস্থিতি রাডারে ধরা পড়েছে।

রোববার (১১ জুলাই) ইংল্যান্ড ও ইতালির মধ্যে ইউরো ফাইনাল হতে যাচ্ছে। ভাগ্য খারাপ হলে দিনটি পিঁপড়াদের প্রজনন সময়ের মধ্যে পড়ে যেতে পারে। সাধারণত জুন ও সেপ্টেম্বরের দিকে এমন ঘটনা অহরহ ঘটতে দেখা যায়।-খবর গার্ডিয়ানের

যদিও দিনটির আবহাওয়াকে প্রতিশ্রুতিময় বলে আখ্যায়িত করেছে ব্রিটেনের আবহাওয়া অফিস। কিন্তু খেলার দিন পিঁপড়ার প্রজনন সময় পড়ে গেলে তা ব্যাপক উৎপাত তৈরি করতে পারে। বিশেষ করে, উড়াল পিঁপড়াদের ভনভনানিতে খেলোয়াড় ও ভক্তরা অস্বাভাবিক পরিবেশের মুখোমুখি হতে পারেন।

আবহাওয়া অফিসের প্রকাশ করা কয়েকটি ছবিতে দেখা যায়, রাজধানী ও বিভিন্ন এলাকার ওপর দিয়ে উড়াল পিঁপড়ার কম্পমান ছায়া ভেসে বেড়াচ্ছে।
গ্লোচেস্টারশায়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান যোগাযোগ বিভাগের অধ্যাপক অ্যাডাম হার্ট বলেন, শুক্রবার উড়াল পতঙ্গের যে ঝাঁক দেখা গেছে, তা এটির প্রজনন মৌসুমের শুরুর পর্যায়ের। যদি রোববারই এমন ঘটনা ঘটে যাকে, তবে একটা বিব্রতকর অবস্থা তৈরি হবে।

উড়ন্ত পিঁপড়ার প্রাদুর্ভাব তখনই ঘটে, যখন নতুন রানি পিঁপড়া তার প্রজননের জন্য প্রস্তুত হয়। হাজার হাজার পুরুষ পিঁপড়া নিয়ে বাসা ছেড়ে বেড়িয়ে আসে রানিরা।
অ্যাডাম হার্ট বলেন, সবচেয়ে বড় পিঁপড়াগুলো স্ত্রী। নতুন রানি পিঁপড়া। আর ছোটগুলো পুরুষ। সাধারণত গ্রীষ্মের সময় হালকা বাতাসে তারা বাসা ছেড়ে বের হয়। বৃষ্টির আগেভাগে তাদের বের হওয়ার সময়।

এর আগেও বড় প্রতিযোগিতাগুলোতে ক্রীড়াবিদদের ওপর পতঙ্গদের ঝাঁপিয়ে পড়ার ঘটনা আছে। উইম্বলডনে টেনিস ম্যাচে উড়ন্ত পিঁপড়াদের হানা দেওয়ার ঘটনা বলতে গেলে নিয়মিত। জুন ও জুলাইয়ে উইমবল্ডনে অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।

২০১৪ সালের বিশ্বকাপের সময় কলোম্বিয়ার জেমস রদ্রিগুয়েজ পেনাল্টি কিক দেওয়ার সময় তার বাহুতে একটি পতঙ্গ এসে পড়ে। যদিও তিনি সফলভাবে গোলপোস্টে বল ঢোকাতে সক্ষম হয়েছিলেন। ২০০৭ সালে বেসবল গেমের সময় আকাশ থেকে ঝাঁকে ঝাঁকে পতঙ্গ মাঠে নেমে আসে।

এদিকে রোববারের ম্যাচকে সামনে রেখে উজ্জীবিত ইংলিশ দর্শকরা। এদিন গ্যালারিতে ইল্যান্ডের দর্শকে পরিপূর্ণ থাকবে। তবে এ নিয়ে মোটেও চিন্তিত না ইতালি। দেশটির মিডফিল্ডার মার্কো ভেরাত্তি বলেন, এমন একটা মঞ্চে ইংল্যান্ডকে হারানোর হাতছানিই আমাদের বড় অনুপ্রেরণা।

এই মাঠে সবশেষ ১৭ ম্যাচের ১৫টিতে জয় পেয়েছে ইংল্যান্ড। গোল করেছে ৪৬টি। বিপরীতে গোল হজম করেছে মাত্র পাঁটি। বলার অপেক্ষা রাখে না, এই মাঠ ঘিরে তাদের দারুণ উচ্ছ্বাস।

তবে ইতালির জন্যও এটি নতুন কিছু না। চলতি আসরে শেষ ষোলোয় এখানে অস্ট্রিয়াকে ধরাশায়ী করেছিল তারা। সেমি-ফাইনালে স্পেনের বিপক্ষে জয়ও এসেছে এই মাঠেই।
বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে ওয়েম্বলির আবহে তারা কাবু হবেন না বলে জানান ভেরাত্তি বললে। তিনি বলেন, এ নিয়ে আমাদের মধ্যে কোনো শঙ্কা নেই। ডেনমার্কের বিপক্ষে ওদের সেমি-ফাইনাল আমরা সবাই একসঙ্গে বসে দেখেছি। ইংল্যান্ড শক্তিশালী দল। তাদের এমন সব ফুটবলার আছে, যারা টেকনিক্যালি খুব ভালো।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ