বুধবার | ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
Cambrian

অস্ট্রেলিয়ায় স্থায়ী হাইকমিশন ভবন নির্মাণ করছে বাংলাদেশ

spot_img
spot_img
spot_img

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী ক্যানবেরায় নির্মিত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ চ্যান্সারি ভবন। গত ২৮ জুলাই জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় প্রকল্পটির অনুমোদন দেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা। অনুষ্ঠিত সভায় অনুমোদিত ১০টি প্রকল্পের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে প্রস্তাবিত ক্যানবেরার বাংলাদেশ চ্যান্সারি ভবনের প্রকল্পটিও রয়েছে। অস্ট্রেলিয়ায় এ প্রকল্প বাস্তবায়নে বাংলাদেশ সরকার ১৪৬ কোটি ৮৭ লাখ টাকা ব্যয় করবে। আগামী ২০২৫ সাল নাগাদ নির্মাণকাজ শেষ হবে বলে আশা করছে সরকার।
অস্ট্রেলিয়ার রাজধানীতে চ্যান্সারি ভবন নির্মিত হলে এটি বাংলাদেশ হাইকমিশনের প্রধান এবং স্থায়ী কার্যালয় হিসেবে ব্যবহৃত হবে। ক্যানবেরায় ভবন নির্মাণের জন্য বরাদ্দ জমিটির প্রতিবেশী হিসেবে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রসহ সুইডেন, পোল্যান্ড, তুর্কি ও ফিলিপাইন দূতাবাস। বর্তমানে ক্যানবেরার ওমেলি এলাকায় প্রায় ১৭ হাজার বর্গফুটের একটি লিজ নেওয়া ভবনে অস্থায়ীভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করছে বাংলাদেশ হাইকমিশন। তবে প্রতিবছর কাজের পরিধির পাশাপাশি বাড়ছে কর্মকর্তার সংখ্যা। আর স্থানসংকুলানের বিপরীতে বৃদ্ধি পাচ্ছে বিভিন্ন অনুষ্ঠান ও সভার জন্য ভেন্যু ভাড়া নেওয়ার খরচ। তবে বন্ধুরাষ্ট্র হিসেবে অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশের চ্যান্সারি ভবন নির্মাণের প্রকল্পের প্রস্তাবনা এবারই নতুন নয়। প্রথম ১৯৮৫ সালে প্রথম চ্যান্সারি ভবন নির্মাণের জন্য জায়গা বরাদ্দ দেয় অস্ট্রেলিয়া সরকার। তবে দাপ্তরিক সব প্রক্রিয়ার পর ১৯৯৯ সালে মূল প্রক্রিয়ার কাজ শুরু হলেও নির্মাণকাল দীর্ঘায়িত হওয়ার কারণ দেখি ২০০৪ সালে বরাদ্দকৃত জমি ফেরত নিয়ে নেয় অস্ট্রেলিয়া সরকার।
এর সাত বছর পর আবার একটি জমি বরাদ্দ নেয় বাংলাদেশ হাইকমিশন। নির্মাণ প্রকল্প অনুমোদনের দাপ্তরিক প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার আগেই ২০১৭ সালে আবার আপত্তি জানায় দেশটির পরিবেশ বিভাগ। তাদের প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ চ্যান্সারি ভবনের নির্মাণের জন্য নির্ধারিত জমিটি একটি বিরল প্রজাতির মথের (প্রজাপতির মতো দেখতে পতঙ্গ) অভয়ারণ্য। নির্মাণকাজে প্রায় ৪০ হাজার বর্গফুট জায়গার মথের বাসস্থান ধ্বংস হয়ে যাবে। সব সমস্যার সমাধান করে বর্তমানে ক্যানবেরার ইয়ারালুমলা এলাকায় নির্মাণকাজ শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। একনেকের সভায় বাংলাদেশ চ্যান্সারি ভবন নির্মাণ প্রকল্পটি অনুমোদিত হয়েছে। প্রবাসীদের বিভিন্ন সেবা প্রদান কার্যক্রমের অংশ হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছেন। শিগগিরই বাংলাদেশ চ্যান্সারি ভবনের নির্মাণকাজ চালু হওয়ার কথা রয়েছে।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ