শুক্রবার | ১ মার্চ ২০২৪
Cambrian

অন্যরকম লড়াইয়ে ভারত-পাকিস্তান

spot_img
spot_img
spot_img

স্পোর্টস ডেস্ক
শুরু হয়েছে এক নতুন লড়াই। লড়াই ভারত ও পাকিস্তানের। উপলক্ষ ক্রিকেট। এ লড়াইয়ের পরিণতি এখনো অজানা। আপাতত এটা স্পষ্ট, কাশ্মীরকে আন্তর্জাতিক মানচিত্রে নিয়ে আসতে পাকিস্তান এবার হাতিয়ার করেছে উপমহাদেশের জনপ্রিয়তম খেলা ক্রিকেটকে।
পাকিস্তানি অধিকৃত কাশ্মীরে পাকিস্তান শুরু করতে চলেছে কাশ্মীর ক্রিকেট লিগ বা কেপিএল। ৬ আগস্ট মোট ছয় দলের ওই প্রতিযোগিতা শুরু হওয়ার কথা। সব কটি ম্যাচ হবে পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরের রাজধানী মুজফফরাবাদে। ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের (বিসিসিআই) আপত্তির কারণও তা। ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলকে (আইসিসি) জানানো হয়েছে, কেপিএলকে যেন স্বীকৃতি দেওয়া না হয়। কারণ, যেখানে এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে, পাকিস্তান তা অন্যায়ভাবে দখল করে রেখেছে। ওই অঞ্চলের প্রকৃত দাবিদার ভারত।
আইসিসির ওপরে সবটা ছেড়ে না দিয়ে বিসিসিআই এ প্রতিযোগিতা বন্ধে অন্যভাবেও সচেষ্ট। সংস্থার এক কর্তার বরাতে সংবাদ সংস্থা জানিয়েছে, কেপিএলে যাঁরা অংশ নেবেন, তাঁরা কেউ কখনো ভারতীয় ক্রিকেটের সঙ্গে যুক্ত থাকতে পারবেন না। এ দেশে খেলা যাবে না, ধারাভাষ্য দেওয়া যাবে না, কোনোভাবেই ক্রিকেটের সঙ্গে যুক্ত থাকতে পারবেন না। বিসিসিআই এ বিষয়ে এতটাই কঠোর যে বিভিন্ন দেশের ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডকে নাকি বলা হয়েছিল এ প্রতিযোগিতায় অংশ না নিতে। ক্রিকেটার না পাঠাতে। বিসিসিআইয়ের ওই কর্তার কথায়, জাতীয় স্বার্থেই এ সিদ্ধান্ত। সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সেই সাক্ষাৎকারে ওই কর্তা বলেছিলেন, পাকিস্তান ক্রিকেট লিগ নিয়ে তাদের আপত্তি নেই। আপত্তি পাকিস্তানি অধিকৃত কাশ্মীরে আয়োজন করা নিয়ে। বোর্ড সরকারি নীতি অনুযায়ী কাজ করছে।
বিসিসিআই এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে এ বিষয়ে কিছু বলেনি। এমনকি দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটার হার্শেল গিবসের টুইট সত্ত্বেও। ৩১ জুলাই গিবস এক টুইটে বলেন, ‘বিসিসিআই আমাকে কেপিএলে খেলতে বাধা দিচ্ছে। ক্রিকেটের সঙ্গে সম্পূর্ণ অপ্রয়োজনীয়ভাবে রাজনৈতিক সম্পর্ককে জড়িয়ে দিচ্ছে। আমাকে হুমকি পর্যন্ত দেওয়া হয়েছে, কেপিএলে খেললে ক্রিকেট সম্পর্কিত কোনো বিষয়ে ভারতে আসতে দেবে না। হাস্যকর।’
বিসিসিআই এ টুইটের জবাবে কোনো প্রতিক্রিয়া দেয়নি। ইতিমধ্যে ইংল্যান্ডের চার ক্রিকেটার মন্টি পানেসার, ফিল মাস্টার্ড, ওয়াইস শাহ ও ম্যাট প্রায়র কেপিএল থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। গিবসের টুইটের পর পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডও ভারতের বিরুদ্ধে অসন্তোষ প্রকাশ করেছে।
ভারত ও পাকিস্তান নিজেদের দেশে ২০১২ থেকে একে অন্যের বিপক্ষে দ্বিপক্ষীয় ক্রিকেট সিরিজ খেলেনি। ২০১৪ সালের শেষার্ধ থেকে দুই দেশের মধ্যে কোনো দ্বিপক্ষীয় বিষয় নিয়ে আলোচনাও হয়নি। সম্পর্কের অবনতির কারণে সার্ক সম্মেলনও বন্ধ রয়েছে। এর মধ্যে কাশ্মীরের দ্বিখণ্ডীকরণ ও সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদ হয়। পাকিস্তান তারও প্রতিবাদ জানিয়েছে। পাকিস্তান বরাবরই কাশ্মীর সমস্যার আন্তর্জাতিকীকরণে সচেষ্ট। কাশ্মীরকে কেন্দ্র করে দুই দেশের বিবাদে ক্রিকেটকে টেনে এনে পাকিস্তান এবার অন্য মাত্রা যোগ করল।

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ